corona virus btn
corona virus btn
Loading

সোয়াইন ফ্লু থেকে আগাম সর্তকতা, 'পর্ক মিট' পরীক্ষা শহরজুড়ে

সোয়াইন ফ্লু থেকে আগাম সর্তকতা, 'পর্ক মিট' পরীক্ষা শহরজুড়ে
representative image

শহরের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি হওয়া শুয়োরের মাংসের নমুনা সংগ্রহ করার কাজ শুরু করেছে ইবি

  • Share this:

#কলকাতা: বিভিন্ন রাজ্যে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সোয়াইন ফ্লু-তে  আক্রান্তের সংখ্যা। তাই শহর কলকাতাকে সোয়াইন ফ্লু থেকে নিরাপদ রাখতে আগাম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হয়েছে। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর নয়, কলকাতায় যাতে এই ভাইরাস কোনওমতেই থাবা বসাতে না পারে, সেজন্য উদ্যোগী হল কলকাতা পুলিশের এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ (ইবি)।

শহরের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি হওয়া শুয়োরের মাংসের নমুনা সংগ্রহ করার কাজ শুরু করেছে ইবি। মাংসের নমুনা সংগ্রহ করে তা পাঠানো হচ্ছে পার্ক স্ট্রিটে 'সেন্ট্রাল ফুড টেস্টিং ল্যাবে'।

কলকাতার যে সমস্ত কসাইখানায় শুয়োরের মাংস কাটা হয় সেখান থেকে যেমন নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে, তার পাশাপাশি যে সমস্ত দোকান বা খোলাবাজারে কাঁচা শুয়োরের মাংস বিক্রি করা হয় সেই সমস্ত জায়গাগুলি থেকেও প্রত্যেকদিন নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। সেই নমুনা দিনের দিন পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে পরীক্ষাগারে।

এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ সূত্রে খবর, এজন্য একাধিক টিম গঠন করা হয়েছে। প্রত্যেকদিন একাধিক টিম কাঁচা মাংস সংগ্রহ করে সেদিনই পাঠিয়ে দিচ্ছে পরীক্ষাগারে। দিন কয়েক আগে থেকে শুরু হয়েছে এই অভিযান। কলকাতা পুলিশের এক পদস্থ কর্তা বলেন, 'এ বছরই প্রথম এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কাঁচা মাংস পরীক্ষাগারে দিয়ে দেখে নেওয়া হচ্ছে তাতে কোনও ক্ষতিকারক ভাইরাস বা ব্যাকটেরিয়া আছে কিনা। শুধু তাই নয়, পর্ক মিট বলে যা বিক্রি করা হচ্ছে তা আদৌ শুয়োরের মাংস কিনা সেটাও যাচাই করে নেওয়া হচ্ছে।' তিনি জানান, একই সঙ্গে পচা মাংস বিক্রি করা হচ্ছে কিনা সেটাও দেখে নেওয়া হচ্ছে পরীক্ষার মাধ্যমে।

নমুনার জন্য নেওয়া মাংস একদিকে যেমন ফুড সেফটি ল্যাবে পাঠানো হচ্ছে, তার পাশাপাশি বেলগাছিয়াতেও পরীক্ষাগারে পাঠিয়ে দেখে নেওয়া হচ্ছে সেটি আদৌ শুয়োরের মাংস কিনা। পরীক্ষা করতে দেওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে ল্যাব কতৃপক্ষকে। কোনও জায়গা থেকে যদি খারাপ রিপোর্ট আসে তাহলে সেই জায়গায় বিক্রি যেমন বন্ধ করে দেওয়া হবে, তেমনই বিক্রেতার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে বলেও আশ্বাস দিয়েছে এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ।

গত কয়েক বছর ধরেই কলকাতা শহরতলি এমনকী বিভিন্ন জেলাগুলিতেও সোয়াইন ফ্লু-তে আক্রন্তের সংখ্যা বাড়তে দেখা গিয়েছে। চিকিৎসকদের মতে, শুয়োরের মাংস থেকেই সোয়াইন ফ্লু ভাইরাস ছড়ানোর সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই কলকাতা শহরে যাতে কোনওভাবেই এই ভাইরাস থাবা বসাতে না পারে, তাই এই উদ্যোগ।

SUJOY PAL

First published: March 3, 2020, 8:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर