corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিচারপতির চোখে যাদবপুরের বিদেশি ছাত্র "ব্রিলিয়ান্ট বয় !" দেশছাড়া হবে কি পড়ুয়া ?  

বিচারপতির চোখে যাদবপুরের বিদেশি ছাত্র

২৪ ফেব্রুয়ারি ভিসার চুক্তি খেলাপের দায়ে কামিলকে তাঁর নিজের দেশ পোল্যান্ডে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ জারি করে কেন্দ্র।

  • Share this:

#কলকাতা: সুদূর পোল্যান্ড থেকে কলকাতায় পাড়ি জমানো। উচ্চশিক্ষার জন্য কামিলের এই যাত্রার একটা বড় অংশ জুড়ে শহর কলকাতা। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনামূলক সাহিত্যের ছাত্র কামিল। সাহিত্য নিয়ে তাঁর পড়াশোনা। সামনের আগস্ট মাসে তার চতুর্থ সেমিস্টারের পরীক্ষা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে। এই সময় ভারত বিরোধী আন্দোলনে জড়িত থাকার অভিযোগ এনে কামিলকে তাঁর নিজের দেশে ফেরত পাঠানোর আদেশ জারি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। ভারত সরকারের এই সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেছে যাদবপুরের ছাত্র। মামলার শুরুতেই বিচারপতি সব্যসাচী ভট্টাচার্য কামিল সম্পর্কে জানতে চান তার আইনজীবী জয়ন্ত মিত্রের কাছ থেকে। কামিলের শিক্ষাগত যোগ্যতা জানতে পেরে বিচারপতি সব্যসাচী ভট্টাচার্যের ভরা আদালতে মন্তব্য, "কামিল ব্রিলিয়ান্ট বয়!" বিচারপতির এমন মন্তব্যের পর সারা এজলাসের চোখ হলুদ পাঞ্জাবি এবং ধূসর ট্রাউজার পরিহিতর দিকে। ইতিহাসে উপস্থিত কামিলের চোখমুখে ও তখন লাজুক ভাব। কামিলের আইনজীবী জয়ন্ত মিত্র আদালতকে জানান,১৯ ডিসেম্বর ২০১৯ বন্ধুদের ডাকে নিউমার্কেট চত্বরে যায় কামিল। পোলান্ড ছাত্র কোনও সরকার বিরোধী মিছিলে হাজির হয়নি। বন্ধুদের সঙ্গে নিউ মার্কেটে ছিলেন। বর্ণময় ছিল সেই জামায়েত। মিছিলের ছবি তোলে সে। জমায়েত নয়া নাগরিক আইন বিরোধী বা জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বিরোধী কোনও আন্দোলন বলে তাঁর জানা ছিল না। বন্ধুরাও সেকথা জানায়নি তাঁকে। কিছুদিন পর অচেনা এক ব্যক্তি ফোনে তাঁর নিউমার্কেটে উপস্থিত থাকা নিয়ে জানতে চায়। বন্ধুদের ডাকে গিয়েছিলেন এমনটাই জানিয়েছিলেন তিনি। সংবাদমাধ্যমে সিএএ আন্দোলনে উপস্থিত থাকা-তে জড়িয়ে যে খবর বেরিয়েছে তা সম্পূর্ণ বিভ্রান্তিকর। কামিলও আদালতকে জানিয়েছেন, তাঁর না বলা কথা সংবাদমাধ্যমে ছাপানো হয়েছে। আর এই সংবাদমাধ্যমে তাঁকে জুড়িয়ে খবর প্রকাশ হতেই হঠাৎই বিদেশমন্ত্রক থেকে তাঁকে নোটিশ পাঠানো হয় ১৪ ফেব্রুয়ারি। ২৪ ফেব্রুয়ারি ভিসার চুক্তি খেলাপে'র দায়ে কামিল'কে তাঁর নিজের দেশ পোল্যান্ডে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ জারি করে কেন্দ্র । ১৫ দিনের মধ্যে ভারত ছাড়ার আদেশ জারি করে কেন্দ্র। সামনের আগস্ট মাসে তাঁর চতুর্থ সেমিস্টার পরীক্ষা রয়েছে। ভারত ছেড়ে চলে গেলে তাঁর উচ্চ শিক্ষা সম্পূর্ণ হবে না। কামিলের আইনজীবীর এমনই সওয়াল শুনে বিচারপতি সব্যসাচী ভট্টাচার্য জানতে চান, যে আইনের প্রয়োগে কেন্দ্র কামিলকে দেশ ছাড়া হওয়ার নির্দেশ জারি করেছে সেই আইনের সাংবিধানিক বৈধতা নিয়ে কোন মামলা হয়েছে কিনা।

কেন্দ্রের তরফে আইনজীবী ফিরোজ ইদুলজি বৃহস্পতিবার কামিলের দেশছাড়া হওয়ার বিষয়ে অবস্থান স্পষ্ট করবেন আদালতে।

ARNAB HAZRA

Published by: Ananya Chakraborty
First published: March 4, 2020, 10:27 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर