corona virus btn
corona virus btn
Loading

মারণ ভাইরাস মোকাবিলায় হতে হবে 'মানবিক', পুলিশ ও প্রশাসনকে ফের বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর

মারণ ভাইরাস মোকাবিলায় হতে হবে 'মানবিক',  পুলিশ ও প্রশাসনকে ফের বার্তা মুখ্যমন্ত্রীর

১৫ এপ্রিল পর্যন্ত সারা দেশে ২১ দিনের লক ডাউন ঘোষনা করেছে কেন্দ্র।

  • Share this:

#কলকাতাঃ করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় পুলিশকে  আরও মানবিক হতে হবে। কোনও অবস্থাতেই শৃঙ্খলার নামে বাড়াবাড়ি করা যাবে না। পুলিশ ও প্রশাসনের উদ্দেশ্যে মুখ্যমন্ত্রীর স্পষ্ট বার্তা, "লক ডাউন যাতে মানুষ মানে, রোগ যাতে না ছড়ায়,  সেটা যেমন নজর রাখতে হবে। ঠিক তেমনই , কারও যাতে সমস্যা না হয়, সেটাও মানবিকতার সঙ্গে দেখতে হবে।"

করোনা সংক্রমন ঠেকাতে ঘর থেকে না বেরনোর নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। আগামী ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত সারা দেশে ২১ দিনের লক ডাউন ঘোষনা করেছে কেন্দ্র। মহামারী ঠেকাতে কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের পাশে দাঁড়িয়েছে রাজ্য সরকারও। এরপরই রাজ্য সরকারের নির্দেশ পালনে রাস্তাঘাটে লোক দেখলেই তেড়ে আসছিল পুলিশ।  নির্বিচারে শুরু হয়েছিল লাঠিপেটা। পুলিশের একাংশের এই 'বাড়াবাড়ি' যে মুখ্যমন্ত্রী ভালভাবে নেননি, কয়েকজন পুলিশকে ক্লোজ করার সিদ্ধান্তে তা আজ বুঝিয়ে দিয়েছেন।

লক ডাউনের জেরে, একদিকে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিষের যোগানে টান পড়ছিল, অন্যদিকে, গরীব, খেটে খাওয়া মানুষের রুটিরুজি নিয়ে আশঙ্কা তৈরি হচ্ছিল। পরিস্থিতির গুরুত্ব আঁচ করে দ্রুত পুলিশ, প্রশাসণের কাজে লাগাম টানেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। একহাতে পুলিশের রাশ টানা, অন্য হাতে বাজারকে স্বাভাবিক রাখার বার্তা দিতে, গতকালই কলকাতার কিছু বাজার পরিদর্শনে যান তিনি। সেখানে গিয়েই স্পষ্ট করে দেন, মানুষকে সমস্যায় ফেলে কিছু করা যাবে না। মুখ্যমন্ত্রীর এই বার্তার পরই শুক্রবার সকাল থেকে কলকাতার পোস্তা বাজার, কোলে মার্কেটের মত বড় পাইকারি বাজার প্রায় স্বাভবিক হয়ে আসে। নবান্নে বসে সেই তথ্য জানান মুখ্যমন্ত্রী নিজেই। তবে, বাজার স্বাভাবিক করতে গিয়ে যাতে করোনা থাবা না বসায়, সেদিকেও নজর রাখতে প্রশাসনকে সদা সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে, শহরের পর এবার গ্রামের হাট, বাজারেও যাতে সোশাল ডিস্টান্সিং বজায় থাকে সেদিকে নজর রাখতে জেলা প্রশাসনকে সক্রিয় থাকতে নির্দেশ দিলেন মমতা। মুখ্যমন্ত্রীর বলেন, "পুলিশকে মনে রাখতে হবে, মানুষ হয়ত একটা জরুরি কাজে বেরিয়েছে। রেশন আনতে যাচ্ছে,  ওষুধ কিনতে যাচ্ছে। তাই ইয়িনি প্রকৃত কোনও কারণে বেরিয়েছেন, তাঁকে আঁতকান যাবে না। ডাক্তার, নার্স, স্বাস্থ্য কর্মী এদের কাজে যেতে বাধা দেওয়া যাবে না।"

ARUP DUTTA

First published: March 27, 2020, 7:54 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर