• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • POLICE ATTEMPTS TO ARREST TEACHER LEADER MODIUL ISLAM IN BELEGHATA DMG

Moidul Islam Arrest Drama: শিক্ষক নেতাকে ধরতে শ্বশুরবাড়িতে হানা পুলিশের, মাঝরাতে বেলেঘাটায় টান টান নাটক

মইদুল ইসলামের শ্বশুরবাড়ির বাইরে পুলিশ৷ Photo- Facebook

আত্মহত্যা প্ররোচনা এবং খুনের চেষ্টার অভিযোগ এনে শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চের নেতা মইদুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে বিধাননগর উত্তর থানার পুলিশ৷ (Moidul Islam Arrest Drama)

  • Share this:

    #কলকাতা: শিক্ষক ঐক্য মঞ্চের নেতা মইদুল ইসলামের (Moidul Islam) গ্রেফতারিকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার রাতভর নাটক চলল বেলেঘাটায়৷ যদিও ধরা দিতে নারাজ মইদুলকে সকাল পর্যন্ত গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ৷ তবে তাঁর বাড়ির বাইরে পুলিশি প্রহরা রয়েছে৷ মইদুল জানিয়েছেন, পুলিশের এই পদক্ষেপের বিরোধিতায় আজই তিনি কলকাতা হাইকোর্টের শরণাপন্ন হবেন৷

    গত মাসেই বিকাশ ভবনের সামনে বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন পাঁচ জন এসএসকে শিক্ষিকা৷ সেই ঘটনায় মইদুলের বিরুদ্ধে আত্মহত্যা প্ররোচনা এবং খুনের চেষ্টার অভিযোগ এনে শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চের নেতা মইদুলের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে বিধাননগর উত্তর থানার পুলিশ৷ বৃহস্পতিবার রাতে বিধাননগর উত্তর থানা এবং বেলেঘাটা থানার পুলিশের একটি যৌথ দল বেলেঘাটা চাউলপট্টি এলাকায় মইদুলের শ্বশুরবাড়িতে হানা দেয়৷ সেই সময় সেখানেই ছিলেন ওই শিক্ষক নেতা৷

    মইদুলের অভিযোগ, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে এগারোটা- বারোটা নাগাদ তাঁর শ্বশুরবাড়ি ঘিরে ফেলে প্রচুর পুলিশ৷ যদিও বাড়ির গেট বন্ধ থাকায় ভিতরে ঢুকতে পারেনি পুলিশ৷ গ্রেফতারি নিয়ে শিক্ষক নেতার সঙ্গে পুলিশের তীব্র বাদানুূবাদ শুরু হয়৷ পুলিশের তরফ থেকে জানানো হয়, মইদুলকে গ্রেফতারির জন্য প্রয়োজনীয় নথি রয়েছে তাদের কাছে৷ যদিও সেই দাবি মানতে চাননি মইদুল৷ তাঁর অভিযোগ, ওয়ারেন্ট ছাড়াই পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করতে এসেছে৷ পুলিশের তরফ থেকে বার বার মইদুলকে বাড়ির বাইরে আসতে বলা হলেও তিনি রাজি হননি৷ শিক্ষক নেতা পাল্টা প্রশ্ন তোলেন, সারাদিন কেন পুলিশ এলো না? সকালের আগে তিনি ধরা দেবেন না বলেও জানিয়ে দেন মইদুল ইসলাম৷

    আরও পড়ুন: বিকাশ ভবনের সামনে ধুন্ধুমার, পুলিশের সামনেই বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা পাঁচ শিক্ষিকার

    মইদুল ইসলাম বলেন, 'আমি তো চুরি ডাকাতি করিনমি, সারাদিন বাড়িতেই ছিলাম৷ তখন কেন পুলিশ গ্রেফতার করতে এলো না? আমি কি চুরি করেছি না আমরা তালিবান জঙ্গি যে রাত বারোটার সময় পুলিশকে গ্রেফতার করতে আসতে হবে? আমি তো একজন শিক্ষক৷ আমার শ্বশুর, শাশুড়ি, স্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে পুলিশ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছে৷ এই বর্বর আচরণের বিরুদ্ধে আমি আইনি পদক্ষেপ করব৷' পাল্টা পুলিশ আধিকারিকদের বলতে শোনা যায়, 'আপনার আচরণ একজন মাস্টারমশাইয়ের মতো নয়৷' মইদুলের দাবি, পুলিশ তাঁর বিরুদ্ধে

    শিক্ষিকাদের আত্মহত্যায় প্ররচোনা দেওয়ার ভিত্তিহীন অভিযোগ করেছে৷ পুলিশের পাল্টা দাবি, আইন মেনেই তারা যা করার করছে৷ বরং মইদুলের স্ত্রীই বেলেঘাটা থানা ভাঙচুর করার, পুড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন বলে অভিযোগ পুলিশের৷

    রাতভর এই নাটকে স্থানীয় বাসিন্দারাও জড়ো হয়ে যান৷ তাঁদের সঙ্গেও কথা বলে পুলিশ৷ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকেও বিষয়টি জানানো হয়৷ যদিও জোর করে বাড়িতে ঢোকার চেষ্টা করেনি পুলিশ৷ সকালেও মইদুলের বাড়ির বাইরে পুলিশি প্রহরা রয়েছে৷ সকালবেলাও পুলিশের কাছে ধরা দেননি মইদুল৷ তিনি শ্বশুরবাড়ির ভিতরেই রয়েছেন৷ মইদুল জানিয়েছেন, আজই তাঁরা পুলিশি পদক্ষেপের বিরুদ্ধে কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির দৃষ্টি আকর্ষণ করবেন৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: