মমতার আহত হওয়ার ঘটনায় কি এবার সিবিআই তদন্ত? জল্পনা তুঙ্গে

মমতার আহত হওয়ার ঘটনায় কি এবার সিবিআই তদন্ত? জল্পনা তুঙ্গে

সিবিআই তদন্তের আর্জি

বিজেপির দাবি ছিল, ওখানে 'হামলার' কোনও ঘটনাই ঘটেনি, 'নাটক' করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

  • Share this:

    #কলকাতা: নন্দীগ্রামে তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দেওয়ার দিনই বিরুলিয়া বাজারে চোট পান তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর চোট পাওয়ার পরপরই মমতার বক্তব্য ছিল, এই কাণ্ডে চক্রান্ত রয়েছে। ইতিমধ্যে দু'দফায় জাতীয় নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগও জানিয়েছে তৃণমূল। কিন্তু বিজেপির দাবি ছিল, ওখানে 'হামলার' কোনও ঘটনাই ঘটেনি, 'নাটক' করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই সিবিআই তদন্ত করা হোক। এবার তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীর আঘাত পাওয়ার ঘটনা সিবিআই তদন্তের দাবি করে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলেন এক সমাজকর্মী। তাঁকে মামলা করতে অনুমতিও দিয়েছেন হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি টি বি রাধাকৃষ্ণন।

    সুরজিৎ সাহা নামে ওই সমাজকর্মী হাইকোর্টে আবেদন করে বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে থাকে ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা। কিন্তু তা সত্ত্বেও যেভাবে মুখ্যমন্ত্রী আহত হয়েছে, তার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। আর সেক্ষেত্রে সিবিআইয়ের হস্তক্ষেপের প্রয়োজন রয়েছে। পুরো বিষয়টির পূর্ণাঙ্গ তদন্তের আবেদনও জানিয়েছেন। তাঁর সেই আবেদনের ভিত্তিতে জনস্বার্থ মামলা দায়েরের অনুমতি দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি। একইসঙ্গে ওই সমাজকর্মী দাবি করেছেন, ঘটনার পর প্রায় ৭২ ঘণ্টা কেটে গেলেও পুলিশের তরফে কোনও পদক্ষেপ করতে পারেনি। কাউকে গ্রেফতারও করা হয়নি।

    গতকালের পর এদিনও অবশ্য দিল্লিতে তৃণমূলের ৬ সাংসদের প্রতিনিধি দল গিয়ে অভিযোগ জানান। নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানানোর পর সাংসদ সৌগত রায় ফের বলেন, 'মমতার উপর ষড়যন্ত্র করে হামলা করা হয়েছে। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখা প্রয়োজন।' এর আগে বৃহস্পতিবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আহত হওয়ার ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়েই গুরুতর প্রশ্ন তুলেছিল রাজ্য়ের শাসক দল৷ যদিও তৃণমূল নেতৃত্বকে পাল্টা কড়া চিঠি দিয়ে কমিশনের বিরুদ্ধে করা সমস্ত অভিযোগ খারিজ করে দেওয়া হয়েছে। সূত্রের খবর, তৃণমূলের অভিযোগ কমিশনের মূল ভিত্তি নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিয়েছে বলেও চিঠিতে ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়েছে৷

    রাজ্যের শাসক দলের অভিযোগ, বুধবার নন্দীগ্রামে মুখ্যমন্ত্রীর প্রচারে যথাযথ নিরাপত্তার ব্যবস্থা ছিল না৷ এমনকী প্রশ্ন তোলা হয়, রাজ্যের এডিজি আইনশৃঙ্খলা ও রাজ্য পুলিশের ডিজি-কে বদলের পরেই কেন এমন ঘটনা ঘটল? একইসঙ্গে নরেন্দ্র মোদি, দিলীপ ঘোষ, সৌমিত্র খাঁ'দের সম্প্রতি করা নানা বক্তব্যও তুলে ধরা হয়েছে তৃণমূলের তরফে। যদিও বিজেপি ঘটনার পর থেকেই সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়ে আসছে। শুক্রবার হাইকোর্টে হওয়া জনস্বার্থ মামলার সঙ্গে বিজেপির কোনও সংযোগ রয়েছে কিনা, তা নিয়েও জল্পনা ছড়িয়েছে।

    Published by:Suman Biswas
    First published:
    0