ভাগাড় কাণ্ডের জেরে রেস্তোরাঁয় ননভেজ ডিশে একাধিপত্য বাড়ছে মাছের

Representational Image

টেবিলে সাজানো হরেকরকমের পদে বাদ পড়েছে মটন বা চিকেন। ননভেজ ডিশে এখন একাধিপত্য শুধুই মাছের।

  • Share this:

    #কলকাতা: রবিবাসরীয় দুপুরে সপরিবারে রেস্তোরাঁয় লাঞ্চ। অথবা সন্ধেয় পরিবার নিয়ে রেস্তোরাঁয় ডিনার। চেনা এই ছবি একই আছে। কিন্তু বদলেছে মেনু। টেবিলে সাজানো হরেকরকমের পদে বাদ পড়েছে মটন বা চিকেন। ননভেজ ডিশে এখন একাধিপত্য শুধুই মাছের।

    মাছে-ভাতে বাঙালি, এই প্রবাদ বদলে দিয়েছে বর্তমান প্রজন্মের ফুড হ্যাভিট। এখন আর মাছ-ভাত নয়, বাঙালির মন কাড়ে জাঙ্ক ফুড। সারা সপ্তাহে কাজের ব্যস্ততায় ডাল-ভাত-সবজি বা মাছ-ভাতে কোনওরকমে পেট ভরাতে হয়। আর রবিবার মানেই রেস্তোরাঁয় চিকেন, মটনের বাহারি নামের বিভিন্ন লোভনীয় পদ। সাম্প্রতিক ভাগাড় ও খামারকাণ্ডের জেরে সেই লোভনীয় পদই ব্রাত্য বাঙালির পাতে। কদর বেড়েছে মাছের।

    আরও পড়ুন-মাংস এড়িয়ে মাছের দোকানে লম্বা লাইন আম আদমির

    নিরামিষ আবার কেউ খায় নাকি..!! কয়েকদিন আগেও যাঁরা এই কথা বলে ভ্রু কুঁচকাতেন, তাঁদের অনেকেই এখন ভিড় জমাচ্ছেন ভেজ রেস্টুরেন্টে। ভাগাড় ও খামারকাণ্ডের জেরে আতঙ্কে আম-আদমি।

    রাজ্যে মাছের গড় চাহিদা মাসে পঞ্চাশ হাজার টন। ভাগাড়কাণ্ডের জেরে তা বেড়ে দাঁড়িয়েেছ ৬০ হাজার টন। এই পরিমাণ আরও বাড়বে বলেই মনে করা হচ্ছ। সল্টলেক সেক্টর ফাইভে অবশ্য চিত্রটা একটু অন্যরকম। মটনের কদর কিছুটা কমলেও চিকেনের উপর ভরসা কমেনি তথ্যপ্রযুক্তি তালুকে।

    First published: