corona virus btn
corona virus btn
Loading

নতুন বছরে ছাদ চাইছে বৌবাজার...

নতুন বছরে ছাদ চাইছে বৌবাজার...
  • Share this:

Abir Ghoshal 

#কলকাতা: একদিন আগে পেরিয়ে আসা বছরটা ছিল সব হারানোর বছর। বাস্তবের মাটিতে দাঁড়ানো আজকের নতুন বছরটা যেন সব ফিরে পাওয়ার বছর হয়ে থাকে। নতুন বছরের প্রথম দিনে প্রার্থনা বৌবাজারের বাসিন্দাদের। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে হুড়মুড় করে ভেঙে পড়তে থাকে বৌবাজারের একের পর এক বাড়ি। মেট্রো রেলের কাজ চলার সময় ঘটে দুর্ঘটনা। তার জেরেই মাথার ওপর থেকে ছাদ চলে যায় দুর্গা পিতুরী লেন, স্যাকরাপাড়ার বাসিন্দাদের। দীর্ঘদিন হোটেল বন্দি হয়ে থাকতে হয়েছিল এই সমস্ত এলাকার কয়েকশো মানুষকে। মেট্রো নির্মাণ কর্তৃপক্ষ সাহায্যের হাত বাডিয়ে দিলেও ফেরত আসেনি নিজের ঘর, নিজের বাড়ি। ফলে হোটেল আবাসিক তারপর ভাড়া বাড়ির বাসিন্দা হয়েই দিন কাটছে গৌর দে লেন, দুর্গা পিতুরি লেন, স্যাকরাপাড়া লেনের একাধিক পরিবারকে।

বছরের প্রথম দিন অবশ্য তেমন কোনও হেলদোল নেই বৌবাজারের। সোনার দোকানে চলছে বেচাকেনা। গলির ইতিউতি ঘুরে বেড়াচ্ছে মেট্রো নির্মাণ সংস্থার কর্মীরা। মাঝেমধ্যে এসে খোঁজ নিয়ে যাচ্ছে স্থানীয় থানা। ব্যস এটুকুই। “আমার ছাপা খানা ছিল। নতুন বছরে কতও কাজ হত জানেন ওখানে। এখন না আছে কাজ না আছে রোজগার। আর বাড়ির ঐতিহ্য? কে ওইসব আর আমাদের জন্য মনে রেখেছে বলুন তো।” বুজে আসা গলায় এক সাথে কথাগুলি বলে গেলেন জয়ন্ত শীল। আপাতত তিনি বাঙুরে ফ্ল্যাট নিয়ে রয়েছেন। তার বৌবাজারের বাডিটা শুধুই একটা ধুলোর স্তুপ। একই অভিযোগ সুদীপ্ত শীলের। বৌবাজারের এক হোটেলে দীর্ঘদিন ধরে ছিলেন পরিবার নিয়ে। আপাতত তিনিও ভাড়াটে হয়ে গেছেন। “কি করব বলুন তো? যা গেছে তা তো আর ফেরত আসবে না। শুধু অপেক্ষা করে আছি। নতুন বাডিটা যেন তাড়াতাড়ি হাতে পাই। রোজগার তো সব শেষ হয়ে গেছে।” একই দশা বৌবাজারের স্যাকরাপাড়ার কারিগরদের। গত দিওয়ালীতে তাদের লাভ হয়নি কিছুই। নতুন বছরে প্রার্থনা তাদের এই বছরটা যেন তাদের খারাপ না যায়।

গোটা এলাকার বিভিন্ন জায়গায় মেট্রো তাদের সংষ্কারের কাজ শুরু করেছে। তবে কবে ছাদ হারানো বাসিন্দাদের হাতে তাদের বাড়ির চাবি তুলে দিতে পারা যাবে তা নিয়ে সংশয় আছে কেএমআরসিএল কর্তৃপক্ষ। ফলে এখানকার প্রায় ৬০০ আবাসিক তাদের নতুন বছর কেমন হবে তা নিয়ে চিন্তিত। ঠিক এক বছর আগে এরকমই একটা নতুন বছর শুরুর দিনে কত আনন্দ ছিল। ঠিক এক বছর পরের ১ লা জানুয়ারি তাদের সমস্ত কিছু বদলে দিয়েছে। বৌবাজারের রাস্তার ওপর দিয়ে ছুটে যাচ্ছে একের পর এক পিকিনিকের গাড়ি। আর ভাঙা বাড়ি দেখতে দেখতে চোয়াল শক্ত হচ্ছে সব হারানো মানুষগুলির। তবে দ্রুত সবাইকে ছাদ ফিরিয়ে দেওয়া হবে এমনটাই বলছেন কে এম আর সি এল কর্তারা। নতুন বছরে তারই অপেক্ষায় বৌবাজারের মানুষগুলি। তবে সময় বলবে ২০২০ কি বয়ে নিয়ে আসল দুর্গা পিতুরী, স্যাকরাপাড়া, গৌর দে লেনের বাসিন্দাদের জন্য।

Published by: Pooja Basu
First published: January 1, 2020, 3:31 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर