• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • PASS FAIL PROCESS SHOULD BE REINTRODUCED FROM FIFTH STANDARD TO EIGHT PROPOSED BY STATE PASS FAIL COMMITTEE

পঞ্চম থেকে অষ্টমে ফিরবে পাশ-ফেল? রিপোর্ট পেশ করলেন ৫ সদস্যের কমিটি

তবে তিন ভাষার মধ্যে কোথাও হিন্দির কথা উল্লেখ করা হয়নি৷ Photo: Collected

  • Share this:

    #কলকাতা: রাজ্যের শিক্ষাব্যবস্থায় ফের ফিরে আসতে চলেছে পাশ-ফেল তা আগেই জানিয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ৷ তবে কোন ক্লাস থেকে ফিরছে পাশ-ফেল তা নিয়ে এখনও চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি বলেই জানিয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রী ৷ কেন্দ্রের চিঠি পাওয়ার পর থেকেই পাশ-ফেল ফেরানো নিয়ে তৎপর রাজ্য ৷ এর জন্য গত শুক্রবার ৫ সদস্যের কমিটি তৈরি করে রাজ্য ৷ কমিটির দায়িত্বে রয়েছেন রাজ্য বিএড বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সোমা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷ তাঁর নেতৃত্বেই বুধবার স্কুল শিক্ষা দফতরে রিপোর্ট পেশ করল পাশ-ফেল কমিটি ৷

    পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণিতে পাশ-ফেল ফেরাতে সুপারিশ করে এদিন স্কুল শিক্ষা দফতরের কাছে রিপোর্ট দিল পাস-ফেল কমিটি। ৩৪ পাতার রিপোর্টে বছরে তিনটি পরীক্ষা নেওয়ার সঙ্গে শিক্ষকদের বিশেষ ভূমিকার কথা উল্লেখ করা হয়েছে । এদিনের জমা রিপোর্ট খতিয়ে দেখে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন মুখ্যমন্ত্রী।

    রিপোর্টে পড়ুয়াদের নিয়ে যে সুপারিশ করা হয়েছে, তা হল-

    ১) চারটি শ্রেণী অর্থাৎ পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণিতে পাশ-ফেলের রীতি ফিরিয়ে আনা হোক ৷

    ২) বছরে তিনটি পরীক্ষা নেওয়ারও প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

    ৩) নভেম্বর-ডিসেম্বরে স্কুল নেবে চূড়ান্ত পরীক্ষা। ওই পরীক্ষায় ফেল করলে পড়ুয়াকে নতুন ক্লাসে যেতে অপেক্ষা করতে হবে এক বছর । মূলত তিনটি বিষয়ে ফেল করলে পড়ুয়াকে সামগ্রিকভাবে ফেল হিসেবে ধরা হবে।

    আরও পড়ুন  চেক বাউন্স করলেই এবার কড়া শাস্তি, তৈরি নয়া আইন

    কেন্দ্রের প্রস্তাব, কোনও পড়ুয়া ফেল করলে তার একটি বছর যাতে নষ্ট না হয় তাকে তিন মাস সময় দেওয়া হোক। তবে এই পাশ-ফেল কমিটি সময় দিতে নারাজ।  রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, কোনও পড়ুয়া ফেল করলে তার দায় নিতে হবে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের। কেন অনুত্তীর্ণ ? তার জবাবও দিতে হবে তাদের। পাশাপাশি, স্কুল শিক্ষক-শিক্ষিকাদের প্রাইভেট টিউশন কমাতে প্রয়োজনীয় নজরদারির সুপারিশও করা হয়েছে।

    স্কুল শিক্ষা দফতর সূ্ত্রে খবর, কিছু বিষয়ে সিলেবাস আরও কমিয়ে প্রশ্নের ধরন পাল্টানোর কথাও বলা হয়েছে ওই রিপোর্টে। স্কুল শিক্ষা দফতরের সঙ্গে আলোচনার পরেই এই রিপোর্টে চূড়ান্ত সিলমোহর দিতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

    রিপোর্ট- সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

    First published: