যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে রাজ্যপালের মন্তব্যে পাল্টা আক্রমণ শিক্ষামন্ত্রীর

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে রাজ্যপালের মন্তব্যে পাল্টা আক্রমণ শিক্ষামন্ত্রীর

মঙ্গলবার রাত ৯ টা, ফেসবুক পোস্ট শিক্ষামন্ত্রীর

  • Share this:

Venkateswar Lahiri

#কলকাতা: মঙ্গলবার রাত ৯ টা, ফেসবুক পোস্টে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় লেখেন, ''

'' যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে মাননীয় রাজ্যপালের মন্তব্য অমর্যাদাকর অসাংবিধানিক পদমর্যাদার পক্ষে অবমাননাকর এ রাজ্যে উপাচার্যদের নিয়ে উনি যদি মনে করে থাকেন তিনি ভবনের অধীশ্বর তার অধীনস্থ কর্মচারী তাহলে সেটা হবে সবচেয়ে বেশি ভুল। রাজ্যের শিক্ষা সম্পর্কে তাঁর পর্যবেক্ষণ তথ্যের ভিত্তিতে নয় বরং রাজনৈতিক নেতাসুলভ ! আমি বহুদিন এই বিষয়ে মন্তব্য করিনি। কিন্তু এবার যেহেতু রাজ্যপাল মহোদয় প্রতিদিন রাজ্য সরকারকে নিয়ম করে বিষোদগার করছেন এবং অসত্য ভাষণ দিয়ে রাজ্যের জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন, সেই হেতু আমাদেরও মুখ খুলতে হচ্ছে তার জ্ঞাতার্থে। এটা জেনে রাখা ভাল সরকার প্রসিত বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে দেশের মধ্যে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় সবার সেরা। সেই যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়কে বারবার উপাচার্যের উপর চাপ দিয়ে দলীয় নীতির পথে হারাবার যে চেষ্টা তিনি করছেন তা অত্যন্ত নিন্দনীয়| মহোদয়ের মনে রাখা ভাল বিগত আট বছরে এ রাজ্যে প্ল্যান বাজেটে স্কুল শিক্ষায় নাইন টাইমস বরাদ্দ বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিকে উচ্চশিক্ষায় প্রাণ বাজেটে বরাদ্দ বৃদ্ধি হয়েছে ৬ গুণ। যেখানে ২০১১ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ছিল ১২টা, ২০১৯-এ তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০ টায়। আরও ১১ টি বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি হওয়ার মুখে। ২০১১ সালে রাজ্যে কলেজের সংখ্যা ছিল ৪৬৫। ২০১৯-এ বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৫১৫ টি। ২০১১ সালে গ্রস এনরোলমেন্ট রেশিও ছিল ১২ শতাংশের নিচে যা এখন দাঁড়িয়েছে কুড়ি শতাংশের কাছাকাছি । কলেজে ভর্তি এখন অনলাইনে করা হয় যা আগে ছিল না । ৭২০০ জন অধ্যাপক নিয়োগ করা হয়েছে এই আট বছরে।

প্রাথমিক এবং মাধ্যমিক শিক্ষক নিয়োগ প্রায় এক লক্ষের কাছাকাছি। এছাড়াও ৪০ হাজারের উপরে অতিরিক্ত ঘর এবং লাইব্রেরি এবং ল্যাবরেটরির আমূল পরিবর্তন হয়েছে । শিক্ষাক্ষেত্রে সাফল্যর ইতিহাস সম্পর্কে রাজ্যপাল মহোদয় তথ্য নিয়ে বললেই ভাল। অযথা রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বিভ্রান্তমূলক মন্তব্য না করে সরকারের কাছ থেকে সম্পূর্ণ তথ্য নিয়ে কথা বলায় তার পক্ষে সম্মানজনক।

উপাচার্যদের সভা ডাকার আগে সরকারের কাছে শেষ খবর থাকাটা জরুরি। এটাও নির্ভর করে উপাচার্যদের ব্যস্ততার উপর। আমি আবার বলছি উপাচার্যদের সম্মান জানিয়ে মন্তব্য করাটা একান্ত কাম্য মনে রাখতে হবে আবার বলছি তারা কেউই রাজ্যপালের অধীনস্থ কর্মচারী নয়।"

First published: 10:20:47 PM Dec 24, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर