Home /News /kolkata /
কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পার্ট-১-এর ফলে বিতর্ক, পুরোন নিয়মেই সায় শিক্ষামন্ত্রীর

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পার্ট-১-এর ফলে বিতর্ক, পুরোন নিয়মেই সায় শিক্ষামন্ত্রীর

File Photo of Partha Chatterjee

File Photo of Partha Chatterjee

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পার্ট-১-এর ফলে বিতর্ক, পুরোন নিয়মেই সায় শিক্ষামন্ত্রীর

  • Share this:

    #কলকাতা: কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে রেকর্ড ফেলের জের। পুরোন মূল্যায়ন পদ্ধতির পক্ষেই সম্মতি জানাল রাজ্য সরকার। পড়ুয়াদের স্বার্থেই পুরোন মূল্যায়ন পদ্ধতি চালু রাখা হোক বলে বিধানসভায় জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। মূল্যায়ন পদ্ধতি নিয়ে কাল বৈঠকে বসছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট।

    কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে পুরনো মূল্যায়ন পদ্ধতিই ফিরতে চলেছে? সোমবার বিধানসভায় শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যে সেই জল্পনা শুরু হয়েছে। চলতি শিক্ষাবর্ষে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেল করেছেন অর্ধেকেরও বেশি পরীক্ষার্থী। বেনজির এই ফলাফলের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নয়া মূল্যায়ন পদ্ধতিকেই দায়ী করছেন পড়ুয়াদের একাংশ। সোমবার বিধানসভায় শিক্ষামন্ত্রী বলেন,

    - আন্দোলনকে মান্যতা দিতে সিদ্ধান্ত বদল নয় - অনেক ছাত্র-ছাত্রী ফেল করায় উদ্বিগ্ন মুখ্যমন্ত্রী - সেই জন্যই বিশেষ ভাবে বিবেচনা করেছি - ছাত্রদের স্বার্থের কথা মাথায় রেখে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে সিন্ডিকেট

    চলতি শিক্ষাবর্ষে পুরোন মূল্যায়ন পদ্ধতি ফিরলে পাশের হার বাড়বে।মঙ্গলবার বৈঠকে বসছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট। ফেল করা পড়ুয়াদের সাপ্লিমেন্টারি পরীক্ষার কথা ভাবছিল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। শিক্ষামন্ত্রীর এদিনের বক্তব্য সিন্ডিকেট বৈঠকের আগে তাই খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নতুন নিয়মকে বাতিল করলে, আইনি জটিলতা তৈরিরও সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে মঙ্গলবারের সিন্ডিকেট বৈঠকে আইনজীবীদের মতামত নেওয়া হতে পারে।

    কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে বেনজির ফলাফল ৷ ফেলের রেকর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ৷ পরীক্ষায় অকৃতকার্য ৫০ শতাংশেরও বেশি পড়ুয়া ৷ চুড়ান্ত ধাক্কা খেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নয়া পরীক্ষা পদ্ধতি ৷

    ২৫ জানুয়ারি ফল বেরোয় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএ ও বিএসসির পার্ট ওয়ানের। বিএ পার্ট ওয়ানে অনার্স ও জেনারেল মিলিয়ে ৫৭ শতাংশ পরীক্ষার্থীই ফেল করেছেন। জেনারেলে পাসের হার মাত্র ২০ শতাংশ। আশানরূপ ফল হয়নি বিএসসি-তেও । সেখানে পাসের হার ৭১ শতাংশ ।

    কাঠগড়ায় নয়া মূল্যায়ন পদ্ধতি

    - ২০১৬ থেকে মূল্যায়ন পদ্ধতিতে বদল (আনে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ) - ২০১৭ সালে নয়া পদ্ধতিতে পরীক্ষা (হয়) - আগে অনার্সের বিষয়ে যোগ্য নম্বর থাকলেই ঊত্তীর্ণ হওয়া যেত - জেনারেলে যেকোনও একটি পেপারে যোগ্য নম্বর পেলেই উত্তীর্ণ হতেন পরীক্ষার্থীরা - (নতুন নিয়মে) অনার্সে উত্তীর্ণ হতে গেলে পাস পেপার্সের অন্তত একটিতে যোগ্য নম্বর তুলতে হবে - জেনারেলের ক্ষেত্রেও তিনটির মধ্যে দু'টিতে উত্তীর্ণ হতে হবে

    কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পার্ট ওয়ানের ফলাফল এত খারাপ কেন? কোথা থেকেই বা এই নয়া মূল্যায়ন বিধির সূত্রপাত? প্রশ্নের উত্তরে উঠে এসেছে বিস্ফোরক সব তথ্য।

    নয়া মূল্যায়ন বিধির সূত্রপাত

    - নয়া মূল্যায়ন বিধি নিয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য সুগত মারজিত - সুগত মারজিত চলে যাওয়ার পর নয়া পরীক্ষা বিধি তৈরি করেন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য স্বাগত সেন - ২০১৭ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি পরবর্তী উপাচার্য আশুতোষ ঘোষ ওই বিধি নিজের ক্ষমতা প্রয়োগ করে কার্যকর করেন - বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন উপেক্ষা করে এই বিধি কার্যকর করার আগে সিন্ডিকেট বৈঠকে আলোচনাই হয়নি - এমনকী সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়নি বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য রাজ্যপালকেও - পার্ট ১ পরীক্ষার ৪ মাস আগে কার্যকর হয় নয়া মূল্যায়ন পদ্ধতি

    নয়া পরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব। আর তার জেরেই ব্যাপক হারে ফেল। অভিযোগ উঠছে এমনটাই। স্বাভাবিক ভাবেই কাঠগড়ায় এই নয়া পদ্ধতি। নয়া বিধি চালু না হলে পাসের হার অনেকক্ষেত্রেই বাড়ত বলে মনে হচ্ছে।

    পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ার জেরে আত্মঘাতী নিউ আলিপুর কলেজের ছাত্রী পর্ণা দত্ত । তাঁর সহপাঠী ও পরিবার এই নয়া পরীক্ষা পদ্ধতিকেই কাঠগড়ায় তোলেন ৷ ফেলের এমন ভয়ানক নজিরে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যক্ষকে তলব করেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ৷

    First published:

    Tags: Calcutta University, Calcutta University part 1 result, Partha Chatterjee

    পরবর্তী খবর