"বড় গাছের দু'চারটে পাতা খসে গেলে কিছু এসে যায় না", দলের অবস্থান স্পষ্ট করলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়

"বড় গাছের দু'চারটে পাতা খসে গেলে কিছু এসে যায় না", দলের অবস্থান স্পষ্ট করলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়

একের পর এক তৃণমূল নেতাদের দল ছাড়ার হিড়িক নিয়ে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন " অনেকেই যাবে। কিছু এসে যাচ্ছে না। যারা দলের সৈনিক তারা দলেই থাকবে।

একের পর এক তৃণমূল নেতাদের দল ছাড়ার হিড়িক নিয়ে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন " অনেকেই যাবে। কিছু এসে যাচ্ছে না। যারা দলের সৈনিক তারা দলেই থাকবে।

  • Share this:

#কলকাতা: শুভেন্দু অধিকারী,জিতেন তিওয়ারি এবং তারপর শীলভদ্র দত্ত একের পর এক তৃণমূল নেতা দল থেকে পদত্যাগ করছেন। তবে তৃণমূলের এই নেতাদের দল থেকে ছেড়ে যাওয়া নিয়ে খুব একটা চিন্তিত নয় তৃণমূল কংগ্রেস সেই ইঙ্গিতই শুক্রবার দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। একের পর এক তৃণমূল নেতাদের দল ছাড়ার হিড়িক নিয়ে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন " অনেকেই যাবে। কিছু এসে যাচ্ছে না। যারা দলের সৈনিক তারা দলেই থাকবে। যারা লড়ে, যারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি আস্থাশীল,মানুষের কল্যাণে আস্থাশীল তারা সবাই জোটবদ্ধ- ঐক্যবদ্ধ। এদিক-ওদিক গেলে বড় গাছের দু-চারটি পাতা খসে পড়ে গেলে কিছু এসে যায় না।"

এদিকে শুক্রবার কালীঘাটের তৃণমূল নেত্রীর বাড়িতে বিকেল নাগাদ এটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক রয়েছে দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের নিয়ে বলে সূত্রের খবর। যদিও তৃণমূলের তরফে দাবি, প্রত্যেক শুক্রবারে এই বৈঠক হয়। সেক্ষেত্রে একের পর এক তৃণমূল নেতাদের দল ছাড়ার হিড়িকের প্রেক্ষিতে শুক্রবারের বিকেলের বৈঠক তাৎপর্যপূর্ণ হতে চলেছে বলে রাজনৈতিক মহলের দাবি। অন্যদিকে শুক্রবার রাতেই কলকাতায় পা রাখছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। শনিবার মেদিনীপুরে গিয়ে একাধিক কর্মসূচির পাশাপাশি মেদিনীপুর কলেজ মাঠে জনসভা করার কথা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর। ওই জনসভায় একাধিক তৃণমূল নেতা বিজেপিতে যোগ দিতে পারে বলেও রয়েছে জল্পনা। যদিও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসা নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস খুব একটা চিন্তিত নয় বলেই ইঙ্গিত তৃণমূলের মহাসচিব এর। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের আসার প্রসঙ্গে পার্থ চট্টোপাধ্যায় এদিন বলেন " অমিত শাহ আসুক মোদীজি আসুক বা নাড্ডাজি আসুক কিন্তু বাংলাতে কেউ আসবে না বাংলাতে তাদের কোনও ঘাঁটি নেই। নিজেদের সংগঠন নেই কিন্তু পরনির্ভরশীল দলের সংগঠনকে ভাঙিয়ে নিজেদের দল করা এটাই প্রমাণ করেছে বাংলার মাটিতে বিজেপির কোনও ঘাঁটি নেই।"

অন্যদিকে বৃহস্পতিবারই ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার রাজ্যের ১৪ টি জেলার পুলিশ সুপার, জেলা শাসকদের নিয়ে বৈঠক করেন। সূত্রের খবর এই বৈঠকে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করার পাশাপাশি প্রত্যেকটি জেলায় আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে বাড়তি নজরদারির কথা বলা হয়। তারই সঙ্গে এখন থেকে কোন জেলায় কি ঘটছে তার পরিপ্রেক্ষিতে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে সেই বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে রিপোর্ট পাঠানোর কথা বলা হয়েছে বলেই সূত্রের খবর। যদিও আইনশৃঙ্খলা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করার প্রসঙ্গে এদিন পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন " আমি তো গিয়েছিলাম আমাকে তো এমন কথা বলেনি। উল্টে আমরাই উদ্বেগ প্রকাশ করে এসেছি যে নির্বাচন কমিশনের বাইরে কেউ কেউ আইন-শৃঙ্খলা ভাঙ্গার চেষ্টা করছে। এ রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা ভালো তাকে ভাঙ্গার চেষ্টা করা হচ্ছে।"

 সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by:Elina Datta
First published: