• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • মদ্যপ অবস্থায় ক্যামাক স্ট্রিটের কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্টকে মারধর, অভিযুক্ত দম্পতি

মদ্যপ অবস্থায় ক্যামাক স্ট্রিটের কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্টকে মারধর, অভিযুক্ত দম্পতি

ফের মদ্যপদের হাতে আক্রান্ত পুলিশ। ক্যামাক স্ট্রিটে গাড়ির রুটিন চেকিংয়ের সময় কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্টকে মারধরের অভিযোগ

ফের মদ্যপদের হাতে আক্রান্ত পুলিশ। ক্যামাক স্ট্রিটে গাড়ির রুটিন চেকিংয়ের সময় কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্টকে মারধরের অভিযোগ

ফের মদ্যপদের হাতে আক্রান্ত পুলিশ। ক্যামাক স্ট্রিটে গাড়ির রুটিন চেকিংয়ের সময় কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্টকে মারধরের অভিযোগ

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: ফের মদ্যপদের হাতে আক্রান্ত পুলিশ। ক্যামাক স্ট্রিটে গাড়ির রুটিন চেকিংয়ের সময় কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্টকে মারধরের অভিযোগ মত্ত দম্পতির বিরুদ্ধে। গাড়ি থেকে নেমে মদ্যপ মহিলা সার্জেন্টকে ধাক্কা দিয়ে তাঁর ইউনিফর্মের নেমপ্লেট ছিঁড়ে ফেলারও চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ। অভিযুক্ত অধীরাজ ও স্নেহা মুখোপাধ্যায়কে গ্রেফতার করে পার্ক স্ট্রিট থানার পুলিশ। আজ তাঁদের আদালতে তোলা হয়।

    মত্ত অবস্থায় মহিলাদের তাণ্ডব। সম্প্রতি মন্দারমণির সি-বিচে মদ্যপ পর্যটকদের জলে নামতে বাধা দেওয়ায় বেধড়ক মারধর করা হয় পুলিশকে। কপালে জোটে লাথি, ঘুষি, চড়। রেহাই পাননি হোটেলের ম্যানেজারও। ফের একবার মদ্যপদের হাতে আক্রান্ত পুলিশ। এবার ঘটনাস্থল খাস কলকাতা।

    পানশালা থেকে বেরিয়ে ক্যামাক স্ট্রিট ও পার্ক স্ট্রিটের সংযোগস্থলের সিগনালে দাঁড়ায় রুপোলি সেডান ৷ গাড়ি চালাচ্ছিলেন অধীরাজ মুখোপাধ্যায় ৷ পাশের সিটে স্ত্রী স্নেহা এবং পিছনের সিটে ছিলেন আরও এক মহিলা ৷ রাতের রুটিন চেকিংয়ের জন্য গাড়ি দাঁড় করান সাউথ ট্রাফিক গার্ডের সার্জেন্ট এস রায়। অভিযোগ, গাড়ি থেকে নেমে পড়েন মদ্যপ স্নেহা মুখোপাধ্যায় ৷ পুলিশের উপর চড়াও হয়ে শুরু হয় বচসা, মারধর, ধাক্কাধাক্কি ৷ ইউনিফর্মের নেমপ্লেট ছিঁড়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন মত্ত স্নেহা ৷ এস রায় ফোন করেন সাউথ ট্রাফিক গার্ডের অ্যাডিশনাল এসপিকে ৷ অভিযোগ, ফোন কেড়ে নেওয়ারও চেষ্টা করেন স্নেহা ৷

    পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অন্য পুলিশকর্মীরা এলে তাঁদেরও মারধর করে মদ্যপ দম্পতি ৷ অভিযুক্ত দম্পতির বিরুদ্ধে কর্তব্যরত সরকারি কর্মীকে কাজে বাধা এবং হেনস্থার অভিযোগে মামলা রুজু করে পার্কস্ট্রিট থানার পুলিশ। গাড়িতে থাকা অন্য এক মহিলাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। ধৃতদের রবিবার ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলা হয়।

    First published: