corona virus btn
corona virus btn
Loading

ডায়েরিয়া নিয়ে দায় এড়াল পুরসভা, প্যাকেজড ও টিউবওয়েলের জলকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করাচ্ছেন মেয়র

ডায়েরিয়া নিয়ে দায় এড়াল পুরসভা, প্যাকেজড ও টিউবওয়েলের জলকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করাচ্ছেন মেয়র
Representational Image

দক্ষিণ কলকাতায় ডায়েরিয়ার জন্য দায়ী প্যাকেজড ওয়াটার। অর্থাৎ কেনা জল থেকেই জীবাণু ছড়িয়েছে।

  • Share this:

#কলকাতা: দক্ষিণ কলকাতায় ডায়েরিয়ার জন্য দায়ী প্যাকেজড ওয়াটার। অর্থাৎ কেনা জল থেকেই জীবাণু ছড়িয়েছে। আজ এমন মারাত্মক তথ্য দিয়েছেন মেয়র। তাঁর দাবি, প্যাকেটজাত জল, টিউবওয়েল ও রিজার্ভার থেকে নেওয়া জলেই মিলেছে কলিফর্ম ব্যাকটেরিয়া। যদিও মেয়রের এই বক্তব্যে প্রশ্ন তুলেছেন বিরোধীরা। নাইসেডের রিপোর্ট বলছে, মলের নমুনায় মিলেছে কলেরার জীবাণু। আর তাতেই বেড়েছে উদ্বেগ।

ডায়েরিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশ বেড়েই চলেছে দক্ষিণ কলকাতার যাদবপুর অঞ্চলে ৷ ইতিমধ্যেই বাঘাযতীনে ডায়েরিয়াতে মৃত্যুর অভিযোগও উঠেছে ৷ মৃত্যু বিশ্বজিৎ দাস নামে এক ব্যক্তির ৷ তবে ওই ব্যক্তির মৃত্যুর সঙ্গে ডায়েরিয়ার কোনও সম্পর্ক নেই বলেই দাবি স্বাস্থ্য দফতরের ৷ ১০ জনের মলের নমুনা পরীক্ষা করা হয় ৷ তাঁদের মলে ডায়েরিয়ার জীবানু পাওয়া গিয়েছে ৷ দুটি নমুনায় রোটা ভাইরাস বা বাচ্চাদের ডায়েরিয়ার জীবাণু পাওয়া গিয়েছে ৷ একটি নমুনায় সিগেলা বা রক্ত আমাশার জীবাণু এবং অপর একটি নমুনায় ডায়েরিয়ার জীবাণু পাওয়া গিয়েছে ৷ কলেরার জীবাণুও পাওয়া গিয়েছে ৷ স্বাস্থ্য দফতর ও বেলেঘাটা আইডিকে পরীক্ষার রিপোর্টগুলি পাঠিয়েছে নাইসেড ৷  প্রতিটি নমুনা দেরি করে দেওয়া হয়েছে বলে দাবি নাইসেডের ৷

দক্ষিণ কলকাতার বিস্তীর্ণ অংশে ডায়েরিয়া নিয়ে চাঞ্চল্যকর দাবি মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের। তাঁর দাবি, একশো চুয়ান্নটি জায়গার জলের নমুনা পরীক্ষা করেই তাঁরা এমন সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন। কোথায় কোথায় মিলেছে কলিফর্ম ব্যাকটেরিয়া ? মেয়রের এই চাঞ্চল্যকর দাবিতে পাল্টা প্রশ্ন তুলেছেন বিরোধীরা।

বিরোধীদের প্রশ্ন - নিম্নবিত্ত মানুষ কি প্যাকেটজাত জল পান করেন ? - অথচ তাঁদের মধ্যেই আক্রান্তের সংখ্যা বেশি - জীবাণু মিলেছে যে রিজার্ভারে তাতে পুরসভার সরবরাহ করা জলই থাকে - এলাকার খুব কম মানুষই ডিপটিউবওয়েলের জল পান করে

বিরোধীদের প্রশ্নের উত্তর অবশ্য এড়িয়ে গিয়েছেন মেয়র। এর মধ্যেই উদ্বেগ বাড়িয়েছে নাইসেডের দেওয়া রোগীদের মলের রিপোর্ট।

নাইসেডের রিপোর্টে উদ্বেগ

- রোগীদের মলে ডায়েরিয়ার নমুনা - ১০ জনের মধ্যে ২ নমুনায় রোটা ভাইরাস বা বাচ্চাদের ডায়েরিয়ার জীবাণু - এক নমুনায় সিগেলা বা রক্ত আমাশার জীবাণু - এক নমুনায় ডায়েরিয়ার জীবাণু - এক নমুনায় মিলেছে কলেরার জীবাণু বহুক্ষেত্রেই ওষুধ খাওয়ার পর নমুনা পাঠানো হয়েছে। আগে নমুনা পাঠালে রিপোর্ট আরও স্পষ্ট হত বলে জানিয়েছে নাইসেড কর্তৃপক্ষ।

First published: February 15, 2018, 8:08 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर