• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • OXYGEN IS NEEDED TO DEAL WITH CORONA BENGAL INDUSTRY NEEDS OXYGEN TOO SAYS FINANCE MINISTER NIRMALA SITHARAMAN SR

'করোনা মোকাবিলায় যেমন প্রয়োজন অক্সিজেন, বাংলার শিল্পেও দরকার অক্সিজেন', মমতাকে খোঁচা নির্মলার

কেন্দ্রীয় সরকার বড় বড় উদ্যোগপতিদের পাশাপাশি ছোট ছোট ব্যবসায়ীদেরও পাশে রয়েছে সে কথাও এ দিনের অনুষ্ঠানে জোর গলায় দাবি করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।

কেন্দ্রীয় সরকার বড় বড় উদ্যোগপতিদের পাশাপাশি ছোট ছোট ব্যবসায়ীদেরও পাশে রয়েছে সে কথাও এ দিনের অনুষ্ঠানে জোর গলায় দাবি করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।

  • Share this:

VENKATESWAR  LAHIRI

#কলকাতা: করোনা মোকাবিলায় যেমন প্রয়োজন অক্সিজেনের ঠিক তেমনি রাজ্যের শিল্পেও এখন প্রয়োজন অক্সিজেন। রাজ্যের  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এ ভাবেই খোঁচা দিলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ (Nirmala Sitharaman)। গত দশ বছরে রাজ্যের শিল্পের হাল বেহাল। কোনও নতুন শিল্প নেই। যে শিল্প ছিল সে গুলোও আজ ধুঁকছে। কলকাতায় মার্চেন্টস চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (Merchants' Chamber of Commerce & Industry) আয়োজিত বণিকসভার একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এসে মঙ্গলবার এ কথাই বললেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ।

বাংলায় বর্তমানে শিল্পের অবস্থা খুবই খারাপ। নাম না করে মমতাকে খোঁচা দিয়ে নির্মলা বলেন,  'ও কিছু দিচ্ছে না , ও কিছু করছে না' - এসবের  দিন এ বার শেষ হতে চলেছে। বাংলায় বিজেপি সরকার প্রতিষ্ঠা এখন শুধুই সময়ের অপেক্ষা। তাই এ রাজ্যের উদ্যোগপতিদের কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর বার্তা, বিজেপি সরকারে এলে বাংলায় শিল্পের নবজাগরণ ঘটবে'। কেন্দ্রীয় সরকার বড় বড় উদ্যোগপতিদের পাশাপাশি ছোট ছোট ব্যবসায়ীদেরও পাশে রয়েছে সে কথাও এ দিনের অনুষ্ঠানে জোর গলায় দাবি করেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে ভয় না পেয়ে শিল্পপতিদের কাছে এ দিন আত্মবিশ্বাসের প্রয়োজনের কথা তুলে ধরে করোনা মোকাবিলায় কেন্দ্র যে সজাগ সে কথা বলে অর্থমন্ত্রী সীতারমণ বলেন, নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে দেশের বিভিন্ন রাজ্যের পরিস্থিতির উপর লাগাতার  নজর রাখা হচ্ছে। তাই  অহেতুক আতঙ্কিত হওয়ার কোনও কারণ নেই।

তবে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়লেও এই মুহূর্তে লকডাউনের কোনও  ভাবনা যে কেন্দ্রের নেই সে কথাও এ দিন  বলে বিষয়টি রাজ্য সরকারের ওপরই ছেড়ে দেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। শিল্প প্রসঙ্গে বিভিন্ন সময় মমতা বলে থাকেন, অনেক আর্থিক প্রতিকূলতার মধ্যেও শিল্পে ভাল কাজ করছে বাংলা। সব জায়গায় বাড়ছে বেকারত্ব। কিন্তু বাংলায় বেকারত্ব কমেছে ৪০ শতাংশেরও বেশি। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে বাংলা এক নম্বরে।। ৯০ লক্ষ শিল্প রয়েছে বাংলায়। সেখানে কাজ করেন ৩৬ লক্ষ মানুষ। চামড়া শিল্পে বিনিয়োগ হচ্ছে রাজ্যে। দক্ষতার উন্নয়নেও আমরা এক নম্বর। প্রায় ৩০০ আইটিআই ও পলিটেকনিক কলেজ রয়েছে। রাজারহাটে তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পের জন্য ২০০০ একর জমি দিয়েছি। সিলিকন হাবের জন্য দেওয়া হয়েছে ১০০ একর।''

মমতার বার্তা, আমাদের জমি রয়েছে। আপনারা শিল্প করুন। পর্যটন, ক্ষু্দ্র ও মাঝারি শিল্পে নীতি রয়েছে রাজ্যের। সাম্প্রতিক সময়ে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে তোপ দেগেছেন মমতা। বলেছেন, ''দেশে সর্বত্র অনিশ্চয়তা। ব‍্যাঙ্কিং ব‍্যবস্থার অবস্থা খারাপ। খুব আতঙ্কের বিষয়। আমরা সবাই টাকা ব‍্যাঙ্কে রাখি। কিন্তু এমন মহামারীর মতো অবস্থা অতীতে কখনও হয়নি। সমস্ত কেন্দ্রীয় শিল্প সংস্থা বেসরকারিকরণ করে দিচ্ছে কেন্দ্র। কোনও কন্ট্রোল নেই। শুধুমাত্র হিন্দু-মুসলমান রাজনীতিতে কাজ হয় না। সত‍্যি চেপে রেখে কিছু হয় না। আমি সবাইকে নিয়ে কাজ করি।'' যদিও একুশের নির্বাচনের বর্তমান সময় কালে বিভিন্ন রাজনৈতিক  মঞ্চে বিরোধীরা মমতাকে 'শিল্প বান্ধব' নয়, কার্যত 'শিল্প শত্রু' হিসেবেই চিহ্নিত করেছে। এ বার কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণের নিশানাতেও রাজ্য সরকার তথা রজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Published by:Simli Raha
First published: