Narada Scam Case: আজ ফিরহাদ-মদনদের জামিন নাকি ভিনরাজ্যে নারদ মামলা? সব নজর হাইকোর্টে

সব নজর হাইকোর্টে

নারদ কাণ্ডে (Narada Scam) রাজ্যের দুই মন্ত্রী সহ চার জনের গ্রেফতারিতে আজ হাইকোর্টে (Calcuta High Court) শুনানি। বুধবারই কি জামিন পাবেন ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim), সুব্রত মুখোপাধ্যায় (Subrata Mukherjee), মদন মিত্র (Madan Mitra) ও শোভন চট্টোপাধ্যায়রা (Sovan Chatterjee)?

  • Share this:

    #কলকাতা: নারদ কাণ্ডে (Narada Scam) রাজ্যের দুই মন্ত্রী সহ চার জনের গ্রেফতার। আর তাতেই তোলপাড় রাজ্য রাজনীতি। সোমবার টানটান উত্তেজনার শেষে গভীর রাতে প্রেসিডেন্সি জেলে যেতে হয়েছিল ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim), সুব্রত মুখোপাধ্যায় (Subrata Mukherjee), মদন মিত্র (Madan Mitra) ও শোভন চট্টোপাধ্যায়কে (Sovan Chatterjee)। প্রথমে নিম্ন আদালতের রায়ে জামিন পেলেও কলকাতা হাইকোর্টের (Calcutta High Court) প্রধান বিচারপতির বেঞ্চ তাতে স্থগিতাদেশ দেয় ওইদিনই। ফলে বাধ্য হয়ে জেলে যেতে হয় ওই চার নেতাকে। কিন্তু মঙ্গলবারও হাইকোর্টের দৃষ্টি আকর্ষণ করেও হতাশ হতে হয় নারদ কাণ্ডে ধৃত চার নেতাকে৷ জামিনের উপর দেওয়া স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করার জন্য বুধবারই কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন চার নেতা৷ যদিও কলকাতা হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দল জানিয়ে দেন, বুধবার সিবিআই-এর মূল আবেদনের সঙ্গেই চার নেতার আর্জির শুনানি হবে৷ ফলে আজ জামিন পাবেন ফিরহাদ হাকিম,মদন মিত্ররা নাকি ভিনরাজ্যে মামলা চলে যাওয়ার পাশাপাশি জামিনও আটকে যাবে চার হেভিওয়েটের, সেদিকেই নজর গোটা রাজ্যের।

    নারদ কাণ্ডে (Narada Scam) ধৃত চার নেতা বিশেষ সিবিআই আদালতে জামিন পেলেও সোমবার রাতেই সেই নির্দেশের উপর স্থগিতাদেশ জারি করেছিল কলকাতা হাইকোর্ট৷ বুধবার পর্যন্ত ধৃত চার নেতার জেল হেফাজতের নির্দেশ দেয় আদালত৷ প্রসঙ্গত, ধৃত তিন তৃণমূল নেতা এবং শোভন চট্টোপাধ্য়ায়ের হয়ে হাইকোর্টে সওয়াল করেন কংগ্রেস নেতা তথা আইনজীবী অভিষেক মনু সিংভি৷ তাঁর সঙ্গে ছিলেন তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়৷

    আজ, বুধবার নারদ-মামলায় চার অভিযুক্তের জামিন স্থগিত এবং মামলা অন্যত্র স্থানান্তরের বিষয়ে শুনানি রয়েছে। সোমবার না থাকলেও এদিন অভিযুক্তদের আইনজীবীরাও নিজেদের বক্তব্য পেশ করবেন। ইতিমধ্যে পশ্চিমবঙ্গ সরকার বা নারদ-মামলায় অভিযুক্ত চার নেতা-মন্ত্রী সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে পারেন আঁচ করে সেখানেও সিবিআই ক্যাভিয়েট জমা করছে। যার মূল বক্তব্য, সিবিআইয়ের কথা শুনে তবেই যেন শীর্ষ আদালত রাজ্য সরকার বা ফিরহাদ-মদনদের আর্জি বিবেচনা করে।

    অপরদিকে, হাইকোর্টে মঙ্গলবারই তৃণমূল নেতাদের তরফে যুক্তি দেওয়া হয়েছিল, যে শুনানির ভিত্তিতে ধৃতদের জামিনের উপরে স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়েছে, তাতে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ পাননি তাঁরা৷ একতরফা বক্তব্য শুনেই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ পাশাপাশি, বর্তমান করোনা পরিস্থিতি এবং আবেদনকারী নেতা মন্ত্রীদের শারীরিক অবস্থা ও তাঁদের কাজের কথা উল্লেখ করেই জামিনের উপর স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করার জন্য কলকাতা হাইকোর্টে আবেদন করা হয়৷ কিন্তু হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি জানিয়ে দেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি, ভিন রাজ্যে নারদ মামলা নিয়ে যাওয়া সংক্রান্ত যে আবেদনের উপর বুধবার শুনানি হওয়ার কথা, তার সঙ্গেই তৃণমূল নেতাদের জামিনের আবেদন শুনবে কলকাতা হাইকোর্ট৷ ফলে বুধবারই কলকাতা হাইকোর্টে ধৃত নেতাদের ভাগ্য নির্ধারণ হতে পারে৷ ফলে আজ দেশের নজর থাকবে কলকাতা হাইকোর্টে।

    Published by:Suman Biswas
    First published: