corona virus btn
corona virus btn
Loading

হাসপাতালে ভর্তি না হয়েও করা যাবে করোনা পরীক্ষা, বেসরকারি ল্যাবে হতে পারে করোনা টেস্ট

হাসপাতালে ভর্তি না হয়েও করা যাবে করোনা পরীক্ষা, বেসরকারি ল্যাবে হতে পারে করোনা টেস্ট

তবে সম্প্রতি রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর সেই সুযোগ দিয়েছে। বাড়িতে থাকলেও কারোর যদি মনে হয়, তিনি করোনা পরীক্ষা করবেন, তবে এখন থেকে তা করা যাবে।

  • Share this:

#কলকাতা: মানুষের মধ্যে করোনা পরীক্ষা কোথায়,কীভাবে করা হবে, তা নিয়ে যথেষ্টই কৌতূহল বেড়েছে। কোনও হাসপাতালে ভর্তি না হলে কি করোনা পরীক্ষা সম্ভব? সেই প্রশ্ন উঠছিল। কারোর যদি কোনও করোনা উপসর্গ না থাকে অর্থাৎ জ্বর,কাশি,গলা ব্যথা, শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি, তিনি কি করোনা পরীক্ষা করতে পারবেন? যদি সরাসরি কোনও করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে না আসেন, তবে কি করোনা পরীক্ষা করা যাবে? এতদিন ইচ্ছে হলেই করোনা পরীক্ষা করা যেত না। তবে সম্প্রতি রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর সেই সুযোগ দিয়েছে। বাড়িতে থাকলেও কারোর যদি মনে হয়, তিনি করোনা পরীক্ষা করবেন, তবে এখন থেকে তা করা যাবে। রাজ্যের যে সমস্ত বেসরকারি হাসপাতালে করোনা পরীক্ষা হয়, সেখানকার বহির্বিভাগ বা ও পি ডি বা আউটডোরে কেউ চিকিৎসক দেখানোর পর সেই চিকিৎসক যদি করোনা পরীক্ষার কথা লিখে দেন, তবে সেই হাসপাতালেই করোনা পরীক্ষা করা সম্ভব।

এছাড়াও কলকাতার বেসরকারি ল্যাবরেটরি, সুরক্ষা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নিউটাউন এবং এলগিন রোড শাখায় চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশনে করোনা পরীক্ষার উল্লেখ থাকলে সরাসরি করোনা পরীক্ষা করা সম্ভব। নমুনা পরীক্ষার একদিনের মধ্যেই রিপোর্ট পাওয়া যাবে। এমনকি সাড়ে চার হাজার টাকার নির্ধারিত খরচের থেকে অনেক কমে মাত্র ২১০০ টাকায় এই করোনা পরীক্ষা করা হবে বলে জানানো হয়েছে। আর টি - পিসিআর পদ্ধতিতে নভেল করোনা পরীক্ষা করা হবে।

আইসিএমআর (ICMR) অনুমোদিত করোনা পরীক্ষার রাজ্যের অন্যান্য বেসরকারি ল্যাবগুলিও এই করোনা পরীক্ষা করতে পারবে। সুরক্ষা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের অধিকর্তা সোমনাথ চট্টোপাধ্যায় জানান,'আইসিএমআর এর নিয়ম অনুযায়ী রাজ্য সরকারের নির্দেশে তারা সাধারণ মানুষের নোভেল করোনা ভাইরাস সংক্রামিত কিনা তা পরীক্ষা করার জন্য প্রস্তুত। সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী কোন বেসরকারি আউটডোর কিংবা চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশনে নমুনা পরীক্ষার উল্লেখ থাকতে হবে। তাহলেই সেই নমুনা পরীক্ষা করে একদিনের মধ্যে রিপোর্ট দিয়ে দেওয়া হবে। শুধু রিপোর্ট দেওয়াই নয়, সরকার নির্ধারিত যে খরচ তার থেকে অনেক কম খরচে সেই পরীক্ষা করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সাধারণ মানুষের স্বার্থে। অনেককেই করোনা পজেটিভ হওয়া সত্ত্বেও সরকারি নির্দেশে হোম কোয়ারেন্টাইন থাকতে হচ্ছে। সেক্ষেত্রে তারা বা তাদের বাড়ির মানুষেরা কিভাবে পরীক্ষা করবেন?  চিকিৎসকদের নির্দেশে প্রেসক্রিপশন নিয়ে এলেই করোনা পরীক্ষা করা হবে।"

কলকাতা বিশ্বজুড়ে করোনা আতঙ্ক বেড়েই চলেছে। প্রতিদিনই বাড়ছে নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা এবং মৃত্যুও পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে। ভারতবর্ষও তার ব্যতিক্রম নয়। শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুসারে, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৯ হাজার ৮৮৭ জন। এক দিনে এত সংখ্যক মানুষ এর আগে সংক্রমিত হননি। এই বৃদ্ধির জেরে দেশে মোট কোভিড-১৯ আক্রান্ত হলেন দু’লক্ষ ৩৬ হাজার ৬৫৭ জন। কোভিডে মোট আক্রান্তের নিরিখে ভারতের স্থান বিশ্বে পঞ্চম। আমেরিকা, ব্রাজিল, রাশিয়া, ব্রিটেন, স্পেনের পরেই। করোনার জেরে রোজ মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধিও উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া হিসাবে, গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ২৯৪ জনের। যা এক দিনে মৃত্যুর নিরিখে সর্বোচ্চ। এই নিয়ে করোনার থাবায় প্রাণ হারালেন মোট ছ’হাজার ৬৪২ জন। এ রাজ্যের পরিস্থিতিও মোটেই আশাব্যঞ্জক নয়। শনিবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের প্রকাশিত বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৪৩৫ জন। সব মিলিয়ে রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৭ হাজার ৭৩৮। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের। শুধুমাত্র করোনার কারণেই মোট মৃত্যু হয়েছে ৩১১ জনের। এ ছাড়াও কো-মর্বিডিটি-এর কারণে মারা গিয়েছেন আরও ৭২ জন। এক দিকে যেমন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, তেমনই ৩ হাজার ১১৯ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। কোভিড-১৯  টেস্টের সংখ্যাও বেড়েছে।

Published by: Pooja Basu
First published: June 7, 2020, 1:27 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर