রোমিও রুখতে সক্রিয় উইনার্স টিম

রোমিও রুখতে সক্রিয় উইনার্স টিম

দিল্লির নির্ভয়াকান্ড হোক বা সম্প্রতি হায়দ্রাবাদের ধর্ষণ ও খুনের ঘটনা, সব ক্ষেত্রেই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে আঙুল তুলেছে দেশবাসী।

  • Share this:

Sujay Pal

#কলকাতা: দিল্লির নির্ভয়াকান্ড হোক বা সম্প্রতি হায়দ্রাবাদের ধর্ষণ ও খুনের ঘটনা, সব ক্ষেত্রেই পুলিশের ভূমিকা নিয়ে আঙুল তুলেছে দেশবাসী। প্রশ্ন উঠেছে, রাতের শহরে পুলিশের নজরদারি নিয়ে।

সব থেকে শিক্ষা নিয়ে শুধুমাত্র মহিলাদের নিরাপত্তার জন্য আলাদা বাহিনী গড়ল কলকাতা পুলিশ। দিল্লি বা হায়দ্রাবাদের মতো এই শহরের কোনও মহিলাকে যাতে বিপদে পড়তে না হয় তাই নারী শক্তিতেই ভরসা রেখেছে লালবাজার।

দিন হোক বা রাত, শহরের মহিলাদের নিরাপত্তার জন্য বিশেষ বাহিনী গড়েছে লালবাজার। নাম দেওয়া হয়েছে 'শক্তি'। এই বাহিনীর বাহন হিসেবে চার চাকা ও স্কুটি মিলিয়ে ৬৭টি গাড়ি নামানো হচ্ছে শহরের রাস্তায়। প্রত্যেকটি গাড়িতে একজন করে মহিলা পুলিশ থাকবেন। শহরের প্রত্যেকটি ডিভিশন, থানা এলাকায় থাকবে 'শক্তি'। গাড়িতে থাকবে জিপিএস। যা লালবাজার কন্ট্রোলরুমের সাথে সংযোগ করা থাকবে।

চার চাকা গাড়ি থাকবে বড় রাস্তায় আর স্কুটিতে করে 'শক্তি' বাহিনী টহল দেবে অলিগলিতে। কোথাও কোনও মহিলা সমস্যায় পড়লে, বা কেউ বিরক্ত করলে মুহূর্তের মধ্যেই সেখানে পৌঁছে যাবে 'শক্তি'।

মহিলাদের সুরক্ষার জন্য 'শক্তি'র আগেই রয়েছে 'উইনার্স'। রোমিওদের বাগে আনতে কলকাতা পুলিশের অ্যান্টি রোমিও স্কোয়াড হিসেবে কাজ করে 'উইনার্স'। বিশেষ প্রশিক্ষিত মহিলা পুলিশের দল স্কুটিতে করে স্কুল, কলেজ, শপিং মলের সামনে থাকা রোমিওদের উচিত শিক্ষা দিয়ে ঠান্ডা করেছে এই বাহিনী। সেই বাহিনীকেই আরও শক্তিশালী করতে আনা হল 'শক্তি'। যার নেতৃত্বে নারীরাই।

লালবাজারের এক কর্তা বলেন, ‘আমাদের কাছে নারী নিরাপত্তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। শক্তি বাহিনী শুধু মহিলাদের নিরাপত্তা দেবে। প্রত্যেক গাড়িতে একজন করে মহিলা পুলিশ থাকবে। এর পাশাপাশি মেয়েদের আত্মরক্ষার পাঠ শেখাতে তেজস্বিনী প্রকল্পও চালু করা হয়েছে।’

সোমবার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মার হাতে লালবাজারে 'শক্তি' বাহিনীর বাহন ৬৭টি গাড়ির যাত্রা শুরু হবে। তবে এরপরেও প্রশ্ন, সমাজ সচেতন না হলে নারী নিরাপত্তা সুনিশ্চিত হবে কি?

First published: 10:41:35 PM Dec 22, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर