corona virus btn
corona virus btn
Loading

NRC জুজুতে মাধ্যমিকের অ্যাডমিট সংশোধনের হিড়িক

NRC জুজুতে মাধ্যমিকের অ্যাডমিট সংশোধনের হিড়িক

গত একমাসে এক হাজারেরও বেশি অ্যাডমিট ও শংসাপত্র সংশোধনের আবেদন জমা পড়েছে পর্ষদে। গত দু-তিন দিন ধরে গড়ে ১০০টিরও বেশি করে আবেদন জমা প?

  • Share this:

#কলকাতা: এবার এনআরসি আতঙ্কে কয়েক হাজার পরীক্ষার্থী মধ্যশিক্ষা পর্ষদের দ্বারস্থ। গত একমাসে এক হাজারেরও বেশি পরীক্ষার্থী মাধ্যমিকের অ্যাডমিট এবং শংসাপত্র সংশোধনের আবেদন জমা দিয়েছেন পর্ষদে। যা নিয়ে কার্যত শোরগোল পড়ে গেছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদে। প্রত্যেকদিন গড়ে ১০০ টিরও বেশি করে সংশোধনের আবেদন জমা পড়ছে পর্ষদে। পর্ষদ সভাপতি অবশ্য জানিয়েছেন "এনআরসির আতঙ্কেই হয়তো এতো সংশোধনের আর্জি জমা পড়ছে"। তবে আবেদনপত্র ঠিক থাকলেই তা দ্রুত সংশোধন করে দেওয়া হচ্ছে বলেও পর্ষদ সভাপতি জানিয়েছেন।

রাজ্যজুড়ে এনআরসি, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধিতা করে আন্দোলন চলছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও জানিয়ে দিয়েছেন এ রাজ্যে এনআরসি, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন কার্যকরী করা হবে না। তার জন্য লাগাতার মিছিল, প্রতিবাদ সভা রাজ্যজুড়ে করছেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু এনআরসি আতঙ্ক কি কাটছে সাধারণ মানুষের? অন্তত গত একমাস মধ্যশিক্ষা পর্ষদের পরিসংখ্যান অন্য কথাই বলছে। পর্ষদ সূত্রে জানা গিয়েছে গত একমাসে ১০০০ টিরও বেশি মাধ্যমিকের অ্যাডমিট, শংসাপত্র সংশোধন করার জন্য আবেদন জমা পড়েছে। যার বেশির ভাগই সংশোধন করে দেওয়া হয়েছে। মূলত পরীক্ষার্থীর নাম, বাবার নাম, জন্মতারিখ, ঠিকানা সংশোধন করার জন্য আবেদন জমা পড়ছে পর্ষদে। পর্ষদ সূত্রের খবর আবেদনপত্রের সঙ্গে স্কুল থেকে নেওয়া নির্দিষ্ট তথ্যাবলী এবং জন্মের শংসাপত্র সঠিক দিলেই অ্যাডমিট কার্ড সংশোধন করে দিচ্ছে পর্ষদ। রাজ্যের সব জেলা থেকেই সংশোধন করার আবেদন জমা পড়ছে বলেই পর্ষদ সূত্রের খবর।

এ প্রসঙ্গে মধ্যশিক্ষা পর্ষদের সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়েছেন "মানুষ হয়তো এনআরসির ভয়েই এত তাড়াহুড়ো করছেন। আমাদের এই ধরনের সংশোধন প্রক্রিয়া সারা বছর ধরেই চলে। কিন্তু গত একমাস প্রত্যেকদিন গড়ে ১০০ টিরও বেশি করে সংশোধনের আবেদন জমা পড়ছে। আমরা এই পরিসংখ্যান আগে দেখিনি।"পর্ষদ অফিসে নথি জমা দিতে আসা এক পরীক্ষার্থী কলকাতার সুভাঞ্জন দাস বলেন "এনআরসি হবে নাকি তা আমি বলতে পারবো না। বর্তমান পরিস্থিতিতে তথ্যপঞ্জি সংশোধন করা দরকার বলে মনে হয়েছে ।"পর্ষদ সূত্রের খবর মাধ্যমিকের অ্যাডমিট বা শংসাপত্র প্রাথমিক নথি। এই অ্যাডমিট কার্ড দেখিয়েই প্রয়োজনে ভোটার কার্ড, আধার কার্ডের মত গুরুত্বপূর্ণ নথি গুলি পরিবর্তন করা যায়। পর্ষদের আধিকারিকরা মনে করছেন তার জন্যই এত সংশোধনের আবেদন জমা পড়ছে পর্ষদে।

SOMRAJ BANDOPADHYAY

Published by: Elina Datta
First published: January 22, 2020, 9:04 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर