কলকাতার রাস্তা-ঘাট জল দিয়ে পরিষ্কার করার দায়িত্ব নিজেদের কাঁধে নিল রাজ্য দমকল বিভাগ

কলকাতার রাস্তা-ঘাট জল দিয়ে পরিষ্কার করার দায়িত্ব নিজেদের কাঁধে নিল রাজ্য দমকল বিভাগ

শহর দূষণ মুক্ত করতে এবার পুরসভাকে সাহায্য করবে দমকল বিভাগ

  • Share this:

ABIR GHOSHAL

#কলকাতা: শহর দূষণ মুক্ত করতে রাস্তায় জল দেওয়ার মতো পর্যাপ্ত গাড়ি নেই। তাই এবার সাহায্য নেওয়া হবে দমকল বিভাগের। শহর দূষণ মুক্ত করতে এবার পুরসভাকে সাহায্য করবে দমকল বিভাগ। শহর দূষণ মুক্ত করতে সকালে কলকাতার রাস্তায় জল দেওয়ার কাজ শুরু করেছিল পুরসভা। এবার আগুন নেভানোর পাশাপাশি শহর কলকাতার রাজপথ জল দিয়ে পরিষ্কার করার দায়িত্ব নিজেদের কাঁধে তুলে নিল রাজ্য দমকল বিভাগ৷ সিদ্ধান্ত হয়েছে, এখন থেকে দমকল বিভাগ সপ্তাহে দু’তিন দিন শহরের রাস্তা জল দিয়ে পরিষ্কার করবে৷ পরিবেশ দফতরের আর্জিতেই এই কাজ শুরু হয়েছে বলে দমকল সূত্রে খবর৷ শহরের রাস্তা পরিষ্কারের কাজে কোনও অসুবিধা দেখছেন না খোদ দমকলমন্ত্রী৷ জনস্বার্থে কাজ বলে মন্ত্রী দাবি তুললেও নীচু তলার দমকল কর্মীদের মধ্যেই শুরু হয়েছে প্রতিক্রিয়া৷

দমকম কর্মীদের একাংশের দাবি, শহরের রাস্তা জল দিয়ে পরিষ্কার করার কাজ পুর নিগমর৷ কিন্তু, পুর নিগমর বদলে এখন সপ্তাহে দু’তিন রাস্তা ধোয়ার কাজে নেমেছে দমকল৷ দমকলের ঘাড়ে অভিনব দায়িত্ব ঘিরে ইতিমধ্যেই কর্মী মহলে উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন৷ তাঁদের অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন, বিপর্যয় মোকাবিলা, আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার ঝুঁকিপূর্ণ কাজের পাশাপাশি কেন তাঁদের ‘সাফাই কর্মী’ হিসাবে কাজ করতে হবে?

জানা গিয়েছে, পরিবেশ দফতরের নির্দেশ, সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন রাস্তায় জল ঢেলে পরিষ্কার করতে হবে৷ তাতে দূষণ কিছুটা কমবে৷ কয়েক দশক আগে সকালে শহরের রাস্তা ধোয়া হত৷ সে দায়িত্ব ছিল পুর নিগমর৷ কিন্তু, পুর নিগম হঠাৎ কেন তাদের সেই পুরানো দায়িত্ব থেকে পিছু হটল? রাস্তা পরিষ্কার করা কি আদৌ দমকলের কাজের মধ্যে পড়ে? প্রশ্ন তুলছেন দমকম কর্মীদের একাংশ৷ যদিও মন্ত্রীর দাবি, যে কোনও কাজ করাই আমাদের দায়িত্ব৷ জনস্বার্থেই এই কাজ চলছে৷ আধিকারিকদের দাবি, গাড়ি দিয়ে রাস্তায় জল দেওয়ায় কোনও ভাবেই দমকলের কাজে সমস্যা হবার কথা নয়। শহর পরিষ্কার রাখতে সবাইকেই এগিয়ে আসতে হবে।

দেড় বছর আগেই পরিবেশ দফতর শহরকে দূষণ মুক্ত করতে বেশ কয়েকটি গাড়ি কেনার কথা জানিয়েছিল, যা দিয়ে রাস্তা পরিষ্কার করা যাবে। তবে এতদিন পেরিয়ে গেলেও সব জায়গায় সেই গাড়ি এসে পৌঁছায়নি। অন্যদিকে শহরের দূষণের মাত্রা ক্রমশ বেড়েছে। তাই এই কাজে দমকলের সাহায্য নেওয়া হচ্ছে।

অন্যদিকে, গাড়ি দূষণ নিয়ন্ত্রণে কড়া পদক্ষেপ করতে হবে সরকারকে৷ যানজট নিয়ন্ত্রণ করতে হবে৷ কঠোর করতে হবে পলিউশন সার্টিফিকেট দেওয়ার বিধি৷ এমনই সুপারিশ পেশ করেছে খড়গপুর আইআইটি’র বিশেষজ্ঞরা৷ সূত্রের খবর, সেই সুপারিশ কলকাতা পুর নিগমে পাঠানো হয়েছে৷

First published: 09:13:53 PM Dec 14, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर