corona virus btn
corona virus btn
Loading

টানা বৃষ্টিতে উত্তরবঙ্গে জল-যন্ত্রণা, জলমগ্ন ডুয়ার্সের বিস্তীর্ণ এলাকা, কত দিন পর্যন্ত অতিভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস?

টানা বৃষ্টিতে উত্তরবঙ্গে জল-যন্ত্রণা, জলমগ্ন ডুয়ার্সের বিস্তীর্ণ এলাকা, কত দিন পর্যন্ত অতিভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস?
Representational Image

অবিরাম বৃষ্টিতে উত্তরবঙ্গে জল-যন্ত্রণা। জলমগ্ন জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহারের বিস্তীর্ণ এলাকা। তিস্তা, তোর্সা, জলঢাকা, রায়ডাক নদীতে বেড়েই চলেছে জলস্তর।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: উত্তরবঙ্গে অতিভারী বৃষ্টি অব্যাহত। রবিবার পর্যন্ত চলবে ভারী বৃষ্টি উত্তরবঙ্গে। রবিবার আরও বৃষ্টি বাড়বে দক্ষিণবঙ্গে। পাশাপাশি বাতাসে জলীয় বাষ্প বেশি থাকায় আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি থাকবে দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে।

অবিরাম বৃষ্টিতে উত্তরবঙ্গে জল-যন্ত্রণা। জলমগ্ন জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহারের বিস্তীর্ণ এলাকা। তিস্তা, তোর্সা, জলঢাকা, রায়ডাক নদীতে বেড়েই চলেছে জলস্তর।

বৃহস্পতিবার থেকে একটানা বৃষ্টি চলছে উত্তরবঙ্গে। বৃষ্টির জেরে বাড়ছে আতঙ্কও। জলপাইগুড়ি, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহারের বিস্তীর্ণ এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। অবিরাম বৃষ্টিতে জলপাইগুড়ি জেলায় তিস্তা, জলঢাকা, ডুডুয়া, করোলার মতো নদীর জল বাড়তে শুরু করেছে। শনিবার সকাল থেকে জলমগ্ন জলপাইগুড়ি পুরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের রাজবাড়ি পাড়া। অনেকেই ঘর ছেড়ে উঁচু জায়গায় আশ্রয় নিয়েছেন।

ধূপগুড়ি পুরসভার তিন, দশ, এগারো, বারো এবং পনেরো নম্বর ওয়ার্ডেও জল যন্ত্রণার ছবি দেখে গিয়েছে। রাস্তা ছাপিয়ে ঘরের মধ্যে ঢুকে গিয়েছে বৃষ্টির জমা জল। বেহাল নিকাশি নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন বাসিন্দারা। জল যন্ত্রণার একই ছবি ধূপগুড়ি গ্রামীণ-সহ জেলার বিভিন্ন প্রান্তে। ধূপগুড়ি গ্রামীণ এলাকায় জলের জলের তলায় বিস্তীর্ণ চাষ জমি ৷ বানারহাট, বিন্নাগুড়ি এলাকায় একাধিক চা-বাগান জলমগ্ন ৷ ভুটান পাহাড়ে অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে হাতিনালায় জল বেড়ে যাওয়ায় এই বিপত্তি ৷  জলের তলায় হলদিবাড়ি-বিন্নাগুড়ি রাজ্য সড়ক ৷ অতিরিক্ত বৃষ্টিতে জলপাইগুড়ি-ধূপগুড়ি হাইওয়েতে ব্যাপক যানজট তৈরি হয় ৷  জলপাইগুড়ির তিস্তাসেতু লাগোয়া জাতীয় সড়কেও গাড়ির লম্বা লাইন পড়ে যায় ৷

আলিপুরদুয়ারে রায়ডাক, সঙ্কোচ, কালজানি নদীতেও জলস্তর বাড়ছে। অতিরিক্ত বৃষ্টির জেরে ফালাকাটা ব্লকে বিস্তীর্ণ চাষের জমি জলের তলায়।কোচবিহারে তোর্সার জল বাড়ায়, নদী পাড়ের বাসিন্দাদের সতর্ক করেছে প্রশাসন। পরিস্থিতির অবনতি হলে বাঁধের উপরেই তাঁদের আশ্রয় নিতে হবে।

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: June 27, 2020, 7:59 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर