• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • স্কুল সার্ভিস কমিশনের কর্মরত শিক্ষকদের বিদ্যালয় থেকে নিতে হবে না এনওসি

স্কুল সার্ভিস কমিশনের কর্মরত শিক্ষকদের বিদ্যালয় থেকে নিতে হবে না এনওসি

এর আগে কেন্দ্রের শিক্ষা নীতি নিয়ে বিজ্ঞানী কে কস্তুরীরঙ্গনের নেতৃত্বে প্যানেল একটি খসড়া প্রস্তাব জমা দেয়৷ সেই প্রস্তাবে বলা হয়, স্কুলে তিনটি ভাষা আবশ্যিক করা হোক৷ ইংরেজি, সংশ্লিষ্ট রাজ্যের আঞ্চলিক ভাষার পাশাপাশি হিন্দিও আবশ্যিক হবে ৷ Photo Collected

এর আগে কেন্দ্রের শিক্ষা নীতি নিয়ে বিজ্ঞানী কে কস্তুরীরঙ্গনের নেতৃত্বে প্যানেল একটি খসড়া প্রস্তাব জমা দেয়৷ সেই প্রস্তাবে বলা হয়, স্কুলে তিনটি ভাষা আবশ্যিক করা হোক৷ ইংরেজি, সংশ্লিষ্ট রাজ্যের আঞ্চলিক ভাষার পাশাপাশি হিন্দিও আবশ্যিক হবে ৷ Photo Collected

এনওসি। নো অবজেকশন সার্টিফিকেট। স্কুল সার্ভিস কমিশনের কর্মরত শিক্ষকদের সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয় থেকে আর হয়তো নিতে হবে না এনওসি।

  • Share this:

    #কলকাতা: এনওসি। নো অবজেকশন সার্টিফিকেট। স্কুল সার্ভিস কমিশনের কর্মরত শিক্ষকদের সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয় থেকে আর হয়তো নিতে হবে না এনওসি। হাইকোর্টে এই প্রথা কড়া সমালোচিত হওয়ার পর এমন জল্পনাই জোরালো হচ্ছে।

    স্টেট লেভেল সিলেকশন টেস্টের মাধ্যমে কর্মরত স্কুল শিক্ষকদের শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য এতদিন জরুরি ছিল সংশ্লিষ্ট স্কুলের নো অবজেকশন সার্টিফিকেট বা এনওসি। কর্মরত শিক্ষকরা এসএলএসটি উত্তীর্ণ হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয় থেকে এনওসি নিতে হয়। অভিযোগ, এনওসি দেওয়ার নাম করে কর্মরত শিক্ষকদের হেনস্থা ও হয়রানির শিকার হতে হয়। এই অভিযোগে একাধিক মামলাও হয়েছে হাইকোর্টে। কর্মরত শিক্ষদের অভিযোগ ------------------------ - অধিকাংশ ক্ষেত্রেই কর্মরত শিক্ষকদের এনওসি দিচ্ছে না বিদ্যালয়গুলি - বিদ্যালয়গুলিতে শিক্ষকের সংখ্যা কম - কর্মরত শিক্ষকের পড়ানোর বিষয়ে বিকল্প শিক্ষক নেই - এই যুক্তি দেখিয়ে এনওসি দিতে গড়িমসি করে বিদ্যালয়গুলি - এতে সুযোগ হারাচ্ছেন কর্মরত শিক্ষকরা

    মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী এনওসি পদ্ধতির সমালোচনা করে জানান

    বিচারপতির পর্যবেক্ষণ ------------------- - স্কুল সার্ভিস কমিশনের নিয়োগ পদ্ধতিতে নির্দিষ্ট ক্যাটেগরিেত আছে কর্মরত শিক্ষক পদটি - কর্মরত শিক্ষক বা শিক্ষিকা পরীক্ষায় বসলে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয় থেকে এনওসি নেওয়ার প্রয়োজনীয়তা কোথায়? - সেক্ষেত্রে শূন্যপদ বা কর্মরত শিক্ষকের পড়ানো বিষয়টির বিকল্প শিক্ষক না থাকতে পারে - কিন্তু তার দায় কেন সেই কর্মরত শিক্ষক নেবেন? - বিদ্যালয়গুলির শূন্যপদ পূরণের দায়িত্ব ও কর্তব্য রাজ্যের - এনওসি আদতে একটি বিশুদ্ধ অপ্রয়োজনীয় হয়রানির ব্যবস্থা - রাজ্য সরকারই স্কুলগুলিতে এনওসি নিয়ে হয়রানি রুখতে বার্তা পাঠাক

    এরপরই বিচারপতি পূর্ব মেদিনীপুরের ওয়েস্ট করণজি বিদ্যাসাগর হাইস্কুলের কর্মরত শিক্ষক রাজীব বেরার আবেদন মঞ্জুর করে তাঁর এনওসি দেওয়ার জন্য বিদ্যালয়কে নির্দেশ দেন।

    সোমবার পুরুলিয়ার শালুগাড়া হাইস্কুলে কর্মরত শিক্ষিকা ঝরনা ঘোষের এনওসি আবেদন মঞ্জুর করে আদালত। হাইকোর্টের এনওসি পর্যবেক্ষণের পর রাজ্য কী পদক্ষেপ করে সেদিকেই তাকিয়ে হাজার হাজার শিক্ষক-শিক্ষিকা।

    First published: