শিশু পাচারকাণ্ডে চাঞ্চল্যকর তথ্য, হোমেই শিশু প্রসবের পর চলত পাচার

শিশু পাচার কাণ্ডে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য ৷ মূল অভিযুক্ত চন্দনা চক্রবর্তীর হোম থেকে উদ্ধার করা হয় দুই অন্তঃসত্ত্বা মহিলাকে ৷

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Feb 22, 2017 01:17 PM IST
শিশু পাচারকাণ্ডে চাঞ্চল্যকর তথ্য, হোমেই শিশু প্রসবের পর চলত পাচার
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Feb 22, 2017 01:17 PM IST

#জলপাইগুড়ি: শিশু পাচার কাণ্ডে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য ৷ মূল অভিযুক্ত চন্দনা চক্রবর্তীর হোম থেকে উদ্ধার করা হয় দুই অন্তঃসত্ত্বা মহিলাকে ৷ তাদের বয়ানেই যে তথ্য উঠে আসে তা শুনে চমকে উঠেন তদন্তকারীরা ৷ স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার আড়ালে গরীব বাবা-মায়ের সন্তানকে এনে মোটা টাকার বিনিময়ে চলত দত্তক ও পাচার ৷ শুধু তাই নয়, দুঃস্থ গর্ভবতীদের হোমে এনে, সেখানেই প্রসব করানো হত ৷ প্রসবের পর সদ্যজাত সন্তানকে নিয়ে চলত ব্যবসা ৷

চন্দনার আশ্রয় হোম থেকে উদ্ধার হওয়া ওই দুই গর্ভবতী মহিলা জানান, দুঃস্থ গর্ভবতীদের হোমে আনা হত ৷ সেখানেই জন্ম নিত সন্তান ৷ প্রসবেরই পরই সেই সন্তানদেরই বিক্রি করার ব্যবস্থা করত হোম ৷ তৈরি করা হত নকল কাগজপত্র ৷

দুই জন গর্ভবতী মহিলা ছাড়াও হোম থেকে চার নাবালিকাকে উদ্ধার করেছে জলপাইগুড়ি থানার পুলিশ ৷ পাচারকাণ্ডে ধৃত চন্দনা ও সোনালিকে বুধবার ফের জেরা করবে CID ৷

অ্যাডপশন এজেন্সি 'নর্থ বেঙ্গল পিপলস ডেভলপমেন্ট সেন্টার'-এর আশ্রয় হোমে মোট ২১জন রয়েছেন। জেলাশাসক রচনা ভগত ওই দুই গর্ভবতী আবাসিককে জলপাইগুড়ি সদর হাসপাতালে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন ৷ একইসঙ্গে জেলা সমাজকল্যাণ দফতর হোম থেকে উদ্ধার হওয়া চার নাবালিকাকে ইতিমধ্যেই অন্যান্য হোমে পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছে ।

অ্যাডপশন এজেন্সি 'নর্থ বেঙ্গল পিপলস ডেভলপমেন্ট সেন্টার'-এর চেয়ারপার্সন চন্দনা চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে জলপাইগুড়ির কোতয়ালি থানায় অভিযোগ অভিযোগ দায়ের করবে জেলা প্রশাসন ৷ চন্দনার হোম থেকে নিখোঁজ ৯ মহিলা ৷ তার জন্যই চন্দনার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা শাসক রচনা ভগৎ ৷ একইসঙ্গে খতিয়ে দেখা হচ্ছে শুধুই কি শিশু পাচার নাকি মেয়ে পাচার চক্রের সঙ্গেও কি যুক্ত ছিল এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ৷

First published: 01:17:14 PM Feb 22, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर