New Town Shootout: সিউড়িতে আটক ট্রাকের সূত্রে কীভাবে খোঁজ মিলল পঞ্জাবের মোস্ট ওয়ান্টেড যশপ্রীত- জয়পালের?

নিউ টাউনের আবাসনে শ্যুটআউটের পর পুলিশ বাহিনী৷

নিউ টাউনের শাপুরজি আবাসনে দিনেদুপুরে শ্যুটআউট (New Town Shootout)৷ পুলিশের সঙ্গে গুলির লড়াইয়ে মৃত্যু হল পঞ্জাবের দুই কুখ্যাত দুষ্কৃতীর৷

  • Share this:

    #কলকাতা: গত রবিবার বীরভূমের সিউড়ি থেকে অস্ত্র এবং বিস্ফোরক সমেত একটি ট্রাক আটক করে পুলিশ৷ বিহার থেকে আসা ওই ট্রাকটি থেকে দু' জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ সূত্রের খবর, ওই দু'জনকে জেরা করেই নিউ টাউনে গা ঢাকা দেওয়া পঞ্জাবের এই দুই মোস্ট ওয়ান্টেড দুষ্কৃতী যশপ্রীত জসসি এবং জয়পাল ভুল্লারের খোঁজ পায় পুলিশ৷ তাদের মোবাইলেও ছিল নিউ টাউনে লুকিয়ে থাকা যশপ্রীত- জয়পালের নম্বর৷ জানা গিয়েছে, পঞ্জাবের এই দুই অপরাধীই ওই বিস্ফোরক এবং অস্ত্রের বরাত দিয়েছিল৷ মোস্ট ওয়ান্টেড দুই অপরাধী কোথায় লুকিয়ে আছে সে সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েই এ দিন বেলা তিনটে নাগাদ শাপুরজি আবাসনে হানা দেয় এসটিএফ এবং পুলিশের একটি দল৷ তখনই গুলি চালায় দুই দুষ্কৃতী৷ ইতিমধ্যেই পঞ্জাব পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে রাজ্য পুলিশ৷

    গত রবিবার বীরভূমের সিউড়িতে বিহার থেকে রাজ্যে ঢোকা একটি ট্রাককে আটক করে রাজ্য পুলিশের এসটিএফ৷ সেই ট্রাকে তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার হয় প্রায় কুড়ি কেজি বিস্ফোরক এবং বেশ কিছু আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি উদ্ধার হয়৷ বিহার থেকে আসা ওই ট্রাকটি থেকে দু' জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ তাঁদের জেরা করেই তদন্তকারীরা জানতে পারেন, নিউ টাউনের অভিজাত সাপুরজি আবাসনে গা ঢাকা দেওয়া পঞ্জাবের কুখ্যাত দুই দুষ্কৃতীই এই অস্ত্র এবং বিস্ফোরকের বরাত দিয়েছিল৷ শুধু তাই নয়, এই দুই দুষ্কৃতীর বিরুদ্ধে পঞ্জাবের চার পুলিশ অফিসারকে খুনের অভিযোগও রয়েছে বলে খবর৷ পাশাপাশি অন্যান্য গুরুতর অপরাধেও অভিযুক্ত তারা৷ নিহত দুই দুষ্কৃতীর কোনও জঙ্গী যোগ রয়েছে কি না, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

    এই খবর পাওয়ার পরই পঞ্জাবের মোস্ট ওয়ান্টেড দুই দুষ্কৃতীর গতিবিধির উপরে নজর রাখতে শুরু করে এসটিএফ৷ এ দিন সকাল থেকেও তাদের নজরে রেখেছিল পুলিশ৷ যদিও পুলিশ যে তাদের উপরে নজর রাখছে, তা বিন্দুমাত্র আঁচ করতে পারেনি দুই দুষ্কৃতি৷ শেষ পর্যন্ত বেলা তিনটে নাগাদ শুরু হয় চূড়ান্ত অভিযান৷ আর বিপদ বুঝে তখনই পুলিশককে লক্ষ্য করে গুলি চালাতে শুরু করে দুই দুষ্কৃতী৷ গুলিতে আহত হন কার্তিক ঘোষ নামে এসটিএফ-এর একজন ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার অফিসার৷ এর পরই পাল্টা জবাব দেয় পুলিশও৷ এসটিএফ-এর গুলিতে মৃত্যু হয় জয়পাল ভুল্লার এবং যশপ্রীত জসসি নামে পঞ্জাবের কুখ্যাত দুই অপরাধীর৷ তিনি সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন৷

    পুলিশ সূত্রে খবর, দুই দুষ্কৃতী ঠিক কোথায় গা ঢাকা দিয়ে রয়েছে সে বিষয়ে নিশ্চিত হতে সিউড়ি থেকে ধৃত দু' জনকেই টোপ হিসেবে ব্যবহার করা হয়৷ সিউড়ি থেকে ধৃত ওই দু' জনকে দিয়েই পঞ্জাবের ওই দুই দুষ্কৃতীকে ফোন করা হয়৷ নিজেদের পূর্ব পরিচিত হওয়ায় তারা কোথায় গা ঢাকা দিয়ে রয়েছে, সে সম্পর্কে বিশদে সবকিছু জানিয়ে দেয় যশপ্রীত এবং জয়পাল৷ দুই দুষ্কৃতীর অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার পরই অভিযানের জন্য দল গঠন করে রাজ্য পুলিশের এসটিএফ৷

    প্রাথমিক ভাবে খবর, নিহত দুই দুষ্কৃতীই এ রাজ্যে অস্ত্র পাচারের সঙ্গে যুক্ত ছিল৷ ফলে এ রাজ্যের আরও কয়েকজনের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ ছিল বলেই কার্যত নিশ্চিত পুলিশ৷ কার ফ্ল্যাটে ওই দুই দুষ্কৃতী গা ঢাকা দিয়েছিল বা ভাড়া নিয়েছিল, তা জানতে ফ্ল্যাটের মালিকের পরিচয়ও খুঁজে বের করা হচ্ছে৷ পঞ্জাবের এই দুই দুষ্কৃতীর বিরুদ্ধে সে রাজ্যের বিভিন্ন থানায় খুন, অপহরণ, অস্ত্র পাচারের মতো একাধিক গুরুতর অভিযোগ রয়েছে বলেই খবর৷ ইতিমধ্যেই পঞ্জাব পুলিশের সঙ্গেও যোগাযোগ করেছে রাজ্য পুলিশ৷

    Sukanta Mukherjee
    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: