অ্যান্টাসিডে ক্যান্সার আতঙ্ক, ৬০ বছর আগেই সতর্ক করেছিলেন ডঃ বিধানচন্দ্র রায়

হজমের সমস্যা, মাথাব্যথা থেকে গলাবুক জ্বালা -- যে কোনও ছোটখাটো সমস্যার রেডিমেডি সমাধান। সেই অভ্যেসে এখন হয়ে দাঁড়িয়েছে মারণ

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 26, 2019 08:59 PM IST
অ্যান্টাসিডে ক্যান্সার আতঙ্ক, ৬০ বছর আগেই সতর্ক করেছিলেন ডঃ বিধানচন্দ্র রায়
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 26, 2019 08:59 PM IST

#কলকাতা: প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টাসিড বিষের থেকেও মারাত্মক। অন্তত ৬০ বছর আগে সতর্ক করেছিলেন এরাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ডঃ বিধানচন্দ্র রায়। ব্যাগ বা পার্স হাতড়ালেই অনেকের কাছেই মিলবে অ্যান্টাসিড। হজমের সমস্যা, মাথাব্যথা থেকে গলাবুক জ্বালা -- যে কোনও ছোটখাটো সমস্যার রেডিমেডি সমাধান। সেই অ্যান্টাসিড থেকে ক্যান্সারের সম্ভাবনা। আমেরিকার পর ভারতেও সতর্কতা জারি হল।

নির্দিষ্ট এক ধরণের রাসায়নিক ব্যবহার হচ্ছে। আর অ্যান্টাসিডের এই রাসায়নিক থেকেই শরীরে ক্যান্সার ছড়াচ্ছে। গবেষণায় এই তথ্য সামনে আসার পরই র‍্যানিটিডিন জাতীয় ওষুধ নিয়ে সতর্কতা জারি করল ড্রাগ কন্ট্রোল অথরিটি।

অ্যান্টাসিডে নাইট্রোসোডিমিথালালিনের উপস্থিতির প্রমাণ মিলেছে ৷ এই রাসায়নিক ক্যান্সারের সম্ভাবনা অনেকটা বাড়িয়ে দেয় ৷ র‍্যানিটিডিন জাতীয় ওষুধে এই রাসায়নিক ব্যবহার হয় ৷

অ্যান্টাসিডে নাইট্রোসোডিমিথালালিনের প্রভাব নিয়ে নিশ্চিত হওয়ার পরই ওই ধরণের রাসায়নিক ব্যবহার নিষিদ্ধ করে মার্কিন ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এরপরই এদেশেও জারি হল সতর্কতা। তারপরই বাজার থেকে এই ধরণের ওষুধ তুলে নেওয়ার ঘোষণা করেছে ওষুধ নির্মাতা সংস্থা গ্লাকসো।

মাথার যন্ত্রণা থেকে হার্টের সমস্যা - দেশের বাজারে ছোটবড় ১৫টি অসুখে র‍্যানিটিডিন জাতীয় ওষুধের ব্যবহার হয়। ট্যাবলেট ও ইনজেকশনে এই জাতীয় ওষুধের ব্যবহার ৷ ড্রাগ কন্ট্রোলের শিডিউল এইচ তালিকায় ৷ ২৬টি স্বীকৃত সংস্থা ১৮০টিরও বেশি ওষুধে র‍্যানিটিডিন ব্যবহার করে ৷

Loading...

জিনট্যাক থেকে অ্যাসিলক, র‍্যানটাক ওডি কিংবা আর-ল্যাক -- ছোটবড় সমস্যায় চোখ বুঁজে এসব ওষুধ খাওয়া অনেকেরই অভ্যস। অর্থাৎ অ্যান্টাসিডের অভ্যেস ছেড়ে ডঃ বিধানচন্দ্র রায়ের স্মরণ নিতেই হচ্ছে।

First published: 08:59:30 PM Sep 26, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर