corona virus btn
corona virus btn
Loading

ফিরে দেখা ২০১৭: রাজ্যে নতুন জেলা-কমিশনারেট

ফিরে দেখা ২০১৭: রাজ্যে নতুন জেলা-কমিশনারেট
File Photo

রাজ্যে ক্ষমতায় এসে উন্নয়নকেই পাখির চোখ করে তৃণমূল কংগ্রেস সরকার। সেই লক্ষ্যে বিকেন্দ্রীকরণের দিকে নজর দেওয়া হয়।

  • Share this:

#কলকাতা: রাজ্যে ক্ষমতায় এসে উন্নয়নকেই পাখির চোখ করে তৃণমূল কংগ্রেস সরকার। সেই লক্ষ্যে বিকেন্দ্রীকরণের দিকে নজর দেওয়া হয়। আর তাতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতিয়ার ছিল জেলা বিভাজন। তাঁর পরিকল্পনাতেই রাজ্যের মানচিত্রে যোগ হয় নতুন নতুন জেলা। শুরু হয়েছিল, গত ফেব্রুয়ারি মাসে।

রাজ্যে নতুন জেলা - পশ্চিম মেদিনীপুর ভেঙে তৈরি করা হয় পৃথক জেলা ঝাড়গ্রাম

- বর্ধমান ভেঙে তৈরি হয় ২ জেলা পূর্ব বর্ধমান ও পশ্চিম বর্ধমান - জলপাইগুড়ি ভেঙে তৈরি করা হয় আলাদা জেলা আলিপুরদুয়ার - দার্জিলিং থেকে তৈরি করা হয় পৃথক জেলা কালিম্পঙ

এলাকার মানুষের দাবিকে গুরুত্ব দিয়েই রাজ্যে নতুন নতুন জেলা তৈরি করা হয়। উনিশ থেকে রাজ্যে জেলার সংখ্যা পৌঁছয় তেইশে। একইসঙ্গে, নজর ছিল রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির দিকেও। সেই লক্ষ্যপূরণে রাজ্যে নতুন নতুন কমিশনারেটও তৈরি হয়। এর আগে কলকাতা ছাড়াও, হাওড়া, বিধাননগর, শিলিগুড়ি ও বারাকপুর কমিশনারেট ছিলই। ২০১৭ সালে আরও দুটি নতুন কমিশনারেট তৈরি করা হয়।

রাজ্যে নতুন কমিশনারেট - রাজ্যের শিল্প অঞ্চলে অপরাধ দমনে তৈরি করা হয় আসানসোল-দুর্গাপুর কমিশনারেট - হুগলি জেলায় বেড়ে চলা অপরাধে লাগাম পরাতে তৈরি করা হয় চন্দননগর কমিশনারেট

রাজনৈতিক ভাবেও মুখ্যমন্ত্রীর এই পদক্ষেপ যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। দার্জিলিং জেলা ভেঙে আলাদা জেলা তৈরি হওয়ায় বেশ কিছুটা ধাক্কা খায় বিমল গুরুঙের নেতৃত্বাধীন মোর্চা বাহিনী। উন্নয়নের লক্ষ্যকে সামনে রেখে বিপুল জনসমর্থন আদায় করে নেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

First published: December 30, 2017, 12:10 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर