Mamata Left Nizam Palace : "আদালত যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার নেবে", ৬ ঘণ্টা পর CBI দফতর ছাড়লেন মমতা

৬ ঘণ্টা পর CBI দফতর ছাড়লেন মমতা

এদিন সকালেই মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim), সুব্রত মুখোপাধ্যায় (Subrata Mukherjee), বিধায়ক মদন মিত্রকে (Madan Mitra) তুলে আনা হয় সিবিআই দফতর নিজাম প্যালেসে। নিয়ে আসা হয় শোভন চট্টোপাধ্যায়কেও (Sovan Chatterjee)। এরপরেই নিজাম প্যালেসে পৌঁছন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Bandopadhyay)।

  • Share this:

    #কলকাতা :সোমবার বিকেলে ব্যাঙ্কশাল কোর্টের শুনানি শেষ হওয়ার পরেই নিজাম প্যালেস ছাড়লেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee left Nizam Palace)। আইনের ওপরে ভরসা রয়েছে তাঁর। তাই গ্রেফতার হওয়া রাজ্যের মন্ত্রীদের নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে আদালতই। এমনটাই জানালেন মমতা। এদিন সকালেই মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, বিধায়ক মদন মিত্রকে তুলে আনা হয় সিবিআই দফতর নিজাম প্যালেসে। নিয়ে আসা হয় শোভন চট্টোপাধ্যায়কেও। এরপরেই নিজাম প্যালেসে পৌঁছন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Bandopadhyay)। সকাল ১০ টা ৪৭ মিনিটে মুখ্যমন্ত্রী পৌঁছন সিবিআই দফতরে। তারপর থেকে তিনি সেখানেই উপস্থিত ছিলেন। আধিকারিকদের কথা বলেন মমতা। দফায় দফায় দলীয় নেতা মন্ত্রীরাও হাজির হন সেখানে। প্রায় ছ'ঘণ্টা পর বিকেল ৪ টে ৪২ মিনিট নাগাদ নিজাম প্যালেস থেকে বেরিয়ে যান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Bandopadhyay)। যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে মমতা বলেন, "আদালত যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার নেবে।"

    নারদকাণ্ডে রাজ্যের দুই মন্ত্রী-সহ এক তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ককে গ্রেফতার করে সিবিআই। গ্রেফতার করা হয়েছে প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। তা নিয়েই সোমবারের সকালে সরগরম হয়ে ওঠে রাজ্য রাজনীতি। ভরকেন্দ্র হয়ে ওঠে সিবিআই-এর কার্যালয় নিজাম প্যালেস। কোনও নোটিশ ছাড়া মাত্র ঘণ্টা দেড়েকের ব্যবধানে চার জনকে তুলে আনা হয়। পরে গ্রেফতার করা হয় তাঁদের।

    প্রসঙ্গত, এদিন সকালে মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে তাঁর চেতলার বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর মমতা প্রথমে যান ফিরহাদের বাড়িতে। সেখান থেকে তারপর সোজা চলে আসেন নিজাম প্যালেসে। সেখানে সাংবাদিকরা মমতাকে জিজ্ঞেস করেন তাঁর আসার কারণের বিষয়ে। তিনি বলেন, ‘‘ওদের সঙ্গে দেখা করতে এসেছি।’’ সূত্রের খবর, এই গ্রেফতারির সমালোচনায় মুখর মমতা এদিন বলেন যতক্ষণ না তাঁকে গ্রেফতার করা হচ্ছে, তিনি নিজাম প্যালেস ছাড়ছেন না।

    অন্যদিকে তৃণমূলের দলীয় তরফে দাবি, প্রতিহিংসার কারণে শুধুমাত্র তৃণমূল নেতাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। অথচ অভিযোগ তালিকায় বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী এবং মুকুল রায় থাকলেও গ্রেফতার করা হয়নি। যদিও বিজেপির দাবি, নিজেদের মতো তদন্ত করছে সিবিআই। অন্যদিকে সিবিআই একটি বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, গত ৭ মে সিবিআইকে এই অনুমতি দেন বাংলার রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। সেই ভিত্তিতে এবার দাখিল করা হবে চার্জশিটও। পাশাপাশি নিজের গতিতে এগিয়ে চলছে তদন্ত প্রক্রিয়া।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: