Home /News /kolkata /
Narada Scam Case Charge sheet: নারদা মামলায় চার হেভিওয়েটের শুনানি দুপুর দুটোয়, কী আছে ৫৩ পাতার চার্জশিটে?

Narada Scam Case Charge sheet: নারদা মামলায় চার হেভিওয়েটের শুনানি দুপুর দুটোয়, কী আছে ৫৩ পাতার চার্জশিটে?

৫৩ পাতার চার্জশিট নিয়ে প্রস্তুত সিবিআই।

৫৩ পাতার চার্জশিট নিয়ে প্রস্তুত সিবিআই।

কী আছে ওই চার্জশিটে? নারদ মামলার চার্জশিট ৫৩ পাতার। সেখানে স্পষ্ট বলা আছে ২০১৪ সালের মার্চ থেকে মে ছদ্মবেশী সাংবাদিক ম্যাথু স্যমুয়েল ইমপ্যাক্ট কনসালট্যান্সি সংস্থার নামে স্টিং অপারেশন করেন।

  • Share this:

    #কলকাতা: হাইকোর্টে নারদা মামলায় রাজ্যের চার হেভিওয়েটে নেতামন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত, মুখোপাধ্যায়, মদন মিত্র, শোভন চট্টোপাধ্যায়ের শুনানি পিছিয়ে গেল। আজ হাইকোর্টর প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দলের ডিভিশন বেঞ্চে এই শুনানি শুরু হবে দুপুর দুটো নাগাদ। চার্জশিট নিয়ে তৈরি সিবিআই। শাসকদলের প্রশ্ন এই চার্জশিট নিয়েই, তাঁদের যুক্তি যদি চার্জশিটই থাকে তাহলে জেল হেফাজত কেন প্রয়োজনীয়? সিবিআই-এর পাল্টা যুক্তি, অভিযুক্তরা বাইরে থাকলে প্রমাণ প্রভাবিত হতে পারে। ফলে যত সময় গড়াচ্ছে, উত্তেজনা টানটান।

    কী আছে ওই চার্জশিটে? নারদ মামলার চার্জশিট ৫৩ পাতার। সেখানে স্পষ্ট বলা আছে  ২০১৪ সালের মার্চ থেকে মে ছদ্মবেশী সাংবাদিক ম্যাথু স্যমুয়েল  ইমপেক্স কনসালট্যান্সি সংস্থার নামে স্টিং অপারেশন করেন। সন্তোষ শঙ্করন নাম নিয়ে তিনি স্টিং অপারেশনা চলানা। সুবিধে দেওয়ার কথা উল্লেখ করে ঘুষ দেন প্রায় ১৩ জন নেতামন্ত্রীকে। এদের মধ্যেই রয়েছেন ফিরহাদ হাকিম, মদন মিত্র, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, শোভন চট্টোপাধ্যায়রা। ম্যাথুর যুক্তি ছিল প্রশাসনিক সুবিধে পাইয়ে দেওয়ার নাম করেই টাকা নিতে রাজি হয়েছিলেন প্রশাসকরা।

    নারদা মামলার চার্জশিট বলছে, ম্যাথু স্যামুয়েল অথেন্টিক স্টিং অপারেশন চালিয়েছিলেন। অভিযুক্তদের ভিডিও স্যাম্পেল ১০০ শতাংশ ম্যাচ করছে। তাঁদের কথোপকথনের ভয়েস স্যাম্পেল ম্যাচ করছে। এই চারজনকেই স্টিং অপারেশনে চারজনকে টাকা নিতে দেখা যায়, লেখা হয়েছে চার্জশিটে।

    সিবিআই চাইছে এই মামলা ভিনরাজ্যে নিয়ে যেতে, মন্ত্রীদের জেল হেফাজত বহাল রাখতে। অন্য দিক অভিযুক্তদের হয়ে সওয়াল করতে আসা দুঁদে আইনজীবী অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি, সিদ্ধার্থ লুথরা। হাইকোর্টে মামলা নিষ্পত্তি না হলে সুপ্রিম কোর্টে যেতে পারে অভিযুক্তের আইনজীবীরা, তাই আগেভাগেই ক্যাভিয়েট দাখিল করে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে সিবিআইও।

    এ দিকে গড়িয়াহাট থানায় চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের অভিযোগের ভিত্তিতে সিবিআই-এর অফিসারদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু হয়েছে আজ। তৃণমূলের যুক্তি এই গ্রেফতারি বেআইনি। চার্জশিট  পেশ হয়ে গেলে আর গ্রেফতারির কী প্রয়োজন, প্রশ্ন তৃণমূলের। সব মিলিয়ে টানটান নাটক, আজ আর কিছুক্ষণেই জানা যাব হাইকোর্টের রায় পরিষ্কার হবে জেল না বেল, চার হেভিওয়েটের ভাগ্যের গতিবিধি।

    Published by:Arka Deb
    First published:

    Tags: Mamata Banerjee, Narada Scam

    পরবর্তী খবর