• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • NANDIGRAM CONSTITUENCY RESULT LEGAL BATTLE OF MAMATA BANERJEE STARTS TODAY IN CALCUTTA HIGH COURT AKD

Nandigram Case hearing| মমতার অনাস্থা, নন্দীগ্রাম মামলা কৌশিক চন্দের বেঞ্চ থেকে সরানোর আর্জি

নন্দীগ্রাম ভোটের ফল নিয়ে হাইকোর্টে যুদ্ধ শুরু।

Nandigram Case in High Court| শুনানিতে ভার্চুয়ালি উপস্থিত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। শুক্রবারই কৌশিক চন্দ বলে দেন শুনানির দিন আবেদনকারীর থাকা বাধ্যতামূলক।

  • Share this:

    #কলকাতা: নন্দীগ্রাম মামলার বৃহস্পতিবারের   শুনানি শেষ হল। হাইকোর্টের অন্য বেঞ্চে মামলা সরানোর আবেদন বিবেচনা করা হবে বলেই আশ্বস্ত করলেন বিচারপতি কৌশিক চন্দ।  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আইনজীবী অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি এদিন স্পষ্ট করে দেন,  যেহেতু কৌশিক চন্দ অতীতে বহু মামলা লড়েছেন বিজেপির হয়ে, তাই তিনি এই মামলায় রায়দান করলে মুক্তমনা মানুষ তা ভালো ভাবে নেবে না। নিজের যুক্তির সপক্ষে বিজেপি যোগের প্রমাণাদিও তুলে ধরেন তিনি। সবটা শুনেই বিচারপতি শুনানি মুলতুবি রাখেন এবং পুনরায় বিষয়টি বিবেচনার প্রতিশ্রুতি দেন

    নন্দীগ্রামের ফল চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে মামলা (Nandigram Case) করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি কৌশিক চন্দের বেঞ্চে মামলার শুনানি হয়। শুনানিতে ভার্চুয়ালি উপস্থিত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর হয়ে সওয়াল করছেন অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি। সওয়াল জবাবের শুরুতেই বিচারপতি কৌশিক চন্দের উপরে অনাস্থা প্রকাশ করেন। অনুরোধ করা হয়, তিনি যেন স্বেচ্ছায় এই মামলা থেকে সরে যান।

    গত শুক্রবারই কৌশিক চন্দ বলে দিয়েছিলেনন, শুনানির দিন আবেদনকারীর থাকা বাধ্যতামূলক। সেই কারণেই আজ ভার্চুয়াল হাজিরা মুখ্যমন্ত্রীর।নন্দীগ্রামে শুভেন্দু অধিকারীর জয় কে চ্যালেঞ্জ করে এই মামলা লড়ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই মামলা বিচারপতি কৌশিক চন্দের বেঞ্চে হওয়া নিয়ে তীব্র আপত্তি তোলা হয়েছিল তৃণমূলের তরফে। বলা হয়েছিল কৌশিক চন্দকে বিরোধীপক্ষের  আয়োজিত অনুষ্ঠানে দেখা গিয়েছে। সেই কারণে বিচার পক্ষপাতদুষ্ট হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল তৃণমূল। আজও  অনাস্থা আনা হয় সেই প্রেক্ষিত থেকেই।

    এই মামলার নিরপেক্ষতা নিয়ে টিম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে প্রশ্ন তুলছে, তাই নিয়েই কথাবার্তা শুরু হয় এ দিন আদালতে। বিচারপতি চন্দ অভিষেক মনু সিঙ্ঘভিকে সরাসরি প্রশ্ন করেন, "আপনারা যে মামলার নিরপেক্ষতা নিয়ে সন্দিহান তা আগে জানাননি কেন?" তাঁর প্রশ্ন, "কী এমন ঘটল যাতে শুনানি সম্পূর্ণ না করেই আপনাদের মনে হল সুবিচার পাবেন না! ক্ষুব্ধ কৌশিক চন্দ আরও বলেন, এটা কোন ধরনের শিষ্টাচার।" অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি সরাসরি অভিযোগ জানিয়েছেন, কৌশিক চন্দ বিজেপি ঘনিষ্ঠ। ঠিক সেই সময়ে  কৌশিক চন্দ পাল্টা বলেন, তিনি কখনও  বিজেপির লিগাল সেলের কনভেনর ছিলেন না। ‌ অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি তখন ট্যুইটারে ছড়িয়ে পড়া ছবিগুলির কথা তোলেন যেখানে বিজেপির সদস্যদের সঙ্গে দেখা গিয়েছিল বিচারপতি কৌশিক চন্দকে। অভিষেক সিঙ্ঘভি এও বলেন, বিচারপতিদের ভূমিকা আর বিচারকের ভূমিকা সাধারণ মানুষের চোখে ভিন্ন, সেই কারণেই তাঁরা চাইছেন কৌশিক চন্দ এই মামলা থেকে সরে যান। সূত্রের খবর, স্থির হয়েছে জনপ্রতিনিধি আইনের ৮১ নম্বর ধারা অনুযায়ী এই মামলার শুনানি চলবে। জোর কথার টক্করে শেষ হয় মামলার শুনানি।

     

    Published by:Arka Deb
    First published: