১৭ জুলাই বনধে অফিস না এলে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের জন্য বিপদ– News18 Bengali

১৭ জুলাই বনধে অফিস না এলে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের জন্য বিপদ

১৭ জুলাই বনধে অফিস না এলে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের জন্য বিপদ

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Jul 12, 2017 05:48 PM IST
১৭ জুলাই বনধে অফিস না এলে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের জন্য বিপদ
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Jul 12, 2017 05:48 PM IST

#কলকাতা: আগামী ১৭ জুলাই রাজ্যে শিক্ষাব্যবস্থায় পাশ-ফেল প্রথা ফিরিয়ে আনার দাবিতে ১২ ঘণ্টার জন্য বনধের ডাক দিয়েছে SUCI ৷ ১৭ জুলাই রাজ্যে জনজীবন স্বাভাবিক রাখতে ঝাঁপাচ্ছে রাজ্য সরকার। বনধের দিন সরকারি কর্মীদের হাজিরা নিশ্চিত করতে নবান্নের তরফে জারি হল গেজেট নোটিফিকেশন। যানবহন সচল রাখতে বাড়তি উদ্যোগ নিচ্ছে পরিবহণ দফতরও।

পাশ-ফেল নিয়ে কেন্দ্রের মুখাপেক্ষী রাজ্য ৷ অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত পাশ ফেল প্রক্রিয়া ফিরিয়ে আনার পক্ষেই নিজের মত জানিয়ে কেন্দ্রকে চিঠি দিয়েছিল রাজ্য ৷ কিন্তু কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের তরফে কোনও স্পষ্ট নির্দেশ না আসায়, ফের কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রীকে চিঠি দিচ্ছেন শিক্ষামন্ত্রী পা‍র্থ চট্টোপাধ্যায় ৷ কিন্তু তা সত্ত্বেও রাজ্যের তরফে স্পষ্ট উদ্যোগ না দেখে বনধের রাস্তায় হাঁটছে SUCI ৷ তাদের দাবি, পড়ুয়াদের উন্নতির জন্য অবিলম্বে ফিরিয়ে আনা হোক পাশ-ফেল প্রথা ৷

বনধ রুখতে মরিয়া সরকার ৷ এদিন নবান্নের তরফে নির্দেশিকা জারি করে জানানো হল, আগামী সোমবার কোনও কর্মী ন্যায্য কারণ ছাড়া অনুপস্থিত থাকলে ব্যবস্থা নেবে নবান্ন ৷ অনুপস্থিতির জন্য একদিনের বেতন কেটে নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চাকরিজীবন থেকে কমিয়ে দেওয়া হবে একটি দিনও ৷

রাস্তায় বেড়িয়ে কোনওভাবেই সমস্যায় পড়তে হবে না ৷ তা আগে থেকেই তা নিশ্চিত করতে চাইছে রাজ্য প্রশাসন। এই সূত্রেই নেওয়া হচ্ছে একাধিক ব্যবস্থা,

-বনধের দিন সরকারি কর্মীদের অফিসে আসা বাধ্যতামূলক

Loading...

-বিশেষ কারণ ছাড়া ছুটি নিলে জবাবদিহি করতে হবে

-পরিবহণ দপ্তরের হাতে থাকা সব বাস-ট্রাম রাস্তায় নামবে

-সচল থাকবে জলপথও

-ট্যাক্সি সহ বেসরকারি পরিবহণও সচল রাখার চেষ্টা হবে

- যে্ কোনও সমস্যায় পড়লে সাহায্য করতে থাকবে হেল্পলাইন ও কিয়স্ক

বর্তমানে মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের নো ডিটেনশন পলিসি অনুযায়ী, ক্লাস এইট পর্যন্ত কাউকে ফেল করানো হয় না ৷ অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ হলেও নতুন শ্রেণীতে ক্লাস করার যোগ্যতা আপনাআপনিই পেয়ে যায় পড়ুয়ারা ৷ শুধু মাত্র শেখার উপর জোর দিতেই এই নীতি চালু করা হয়েছিল ৷ SUCI-এর অভিযোগ এর ফলে পড়ুয়াদের শিক্ষার মান ক্রমাগত নিম্নমুখী হচ্ছে ৷

First published: 05:46:43 PM Jul 12, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर