• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • MUKUL ROY RELEASED FROM HOSPITAL IN THE DAY OF ADMISSION AKD

Mukul Roy| এখনই হাসপাতালে ভর্তির দরকার নেই, মুকুলকে পরীক্ষা করে জানাল এসএসকেএম

হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেন মুকুল রায়।

Mukul Roy-আগামিকাল সম্ভবত আবার মুকুল রায় বেশ কিছু পরীক্ষার জন্য এসএসকেএম-হাসপাতালে হাসপাতাল আসবেন।

  • Share this:

#কলকাতা: মুকুল রায়কে (Mukul Roy) আজকের মতন হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হল। আজ তিনি ভর্তির পরেই  পাঁচ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছিল। সমস্ত রকম শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা দীর্ঘক্ষণ ধরে করা হয়। সব দেখেই চিকিৎসকরা সিদ্ধান্ত নেন আপাতত হাসপাতালে ভর্তি কোনও প্রয়োজন নেই। আগামিকাল সম্ভবত আবার তিনি বেশ কিছু পরীক্ষার জন্য এসএসকেএম-হাসপাতালে হাসপাতাল আসবেন।

মুকুল রায়ের স্নায়ুজনিত বেশ কিছু সমস্যা রয়েছে। সোডিয়াম পটাশিয়াম এর তারতম্য রয়েছে। আচ্ছন্ন ভাব আছে। এই সব উপসর্গ দেখেই এদিন দুপুরে  মুকুল রায়ের চিকিৎসায় পাঁচ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছিল তজডিঘড়ি। স্নায়ু বিশেষজ্ঞ গৌতম গঙ্গোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে এই বোর্ড তৈরি হতেই উডবার্ন ব্লকের ১০৩  নম্বর কেবিনে ভর্তি করার প্রক্রিয়া শুরু হয়। কিন্তু চিকিৎসকদের মত, এক্ষুনি তাঁকে ভর্তি না করলেও চলবে। আজ নির্মল মাঝি, ববি হাকিম দেখা করতে আসেন মুকুল রায়ের সঙ্গে।মুকুল রায়ের সঙ্গে সর্বক্ষণ ছিলেন তাঁর পুত্র শুভ্রাংশু রায়।

আর এই ঘোলা জলেই মাছ ধরতে নেমেছে বিজেপি। পিএসি মালায় হাইকোর্টে শুনানি এড়াতেই কি মুকুলের উডবার্নে ভর্তি হওয়া? প্রশ্ন করছেন বিজেপির নেতারা। গতকালই এই নিয়ে হুঁশিয়ারি দিয়ে শুভেন্দু বলেছিলেন, "অসুস্থ সাজিয়ে মুকুল রায়কে আড়াল করা হচ্ছে। একটাও বৈঠক করছেন না মুকুল। তবু, পিএসির চেয়ারম্যান করে মুকুলকে বসিয়ে রেখেছেন মমতা। শুভেন্দু আরও বলেন মনিপুরের মামলার রায়কে দৃষ্টান্ত করব আমরা। শুনানি ঝুলিয়ে রেখে পিএসি মামলাকে অনির্দিষ্টকাল ফেলে রাখতে দেব না। "

এরপর আজই এসএসকেএম যান মুকুল। যদিও, সূত্রের খবর, প্রাথমিক ভাবে হাসপাতালে ভর্তি হতে চাননি মুকুল।  উল্লেখ্য ৬ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টে পিএসি মামলার শুনান‌ি।ওই মামলায় ইতিমধ্যেই হলফনামা জমা দিয়েছে মুকুল ও স্পিকারের হয়ে বিধানসভার সচিব।

এদিন বিজেপির উষ্মা নিয়ে মুখ খোলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়।  তিনি বলেন, "শুভেন্দুর মন্তব্যে স্পষ্ট, প্রমাণিত বিজেপি এজেন্সিকে কাজে লাগাচ্ছে। বিরোধী দলনেতা এ ধরনের মন্তব্য এ তাই বোঝাতে চাইছেন।" দিলীপ ঘোষে‌র পাল্টা শ্লেষ,  "আমরা রাজনীতি করিনি। ওই স্কুলে আমরা পড়িনি।  পার্থদা তো ওই স্কুলের হেডমাস্টার ছিলেন। তাই সবটা ভাল জানেন।"

পার্থ চট্টোপাধ্যায় অবশ্য শেষমেষ খেললেন রক্ষণাত্মক। বললেন, "দিলীপবাবুরা সব ব্যাপারেই মন্তব্য করেন, আমরা বিচারাধীন কোনও বিষয়ে মন্তব্য করব না।"

Published by:Arka Deb
First published: