Mukul Roy: চাণক্য-বিদায়! বারবার ফোন এল দিল্লি থেকে, ধরলেনই না মুকুল

গন্তব্যে মুকুল

Mukul Roy: বঙ্গ ভোটে মুকুলকে কার্যত গুরুত্বহীন করে রাখা হলেও তিনি বিজেপির সর্বভারতীর সহসভাপতি। বিজেপিতে যে পদের গুরুত্ব অসীম।

  • Share this:

    #কলকাতা: অভিমান, দলে যোগ্য সম্মান না পাওয়া, বঙ্গ নির্বাচনে প্রায় গুরুত্বহীন করে রেখে দেওয়া-- মুকুল রায়ের সঙ্গে বিজেপির সম্পর্কচ্ছেদের কারণ হিসেবে আপাতত এই বিষয়গুলিকেই তুলে আনছে রাজনৈতিক মহল। এখনও আনুষ্ঠানিক যোগদান না হলেও সপুত্র মুকুলের তৃণমূলে যোগ জাতীয় রাজনীতিতেও সাড়া ফেলে দিয়েছে। কারণ বঙ্গ ভোটে মুকুলকে কার্যত গুরুত্বহীন করে রাখা হলেও তিনি বিজেপির সর্বভারতীর সহসভাপতি। বিজেপিতে যে পদের গুরুত্ব অসীম। আর তাই মুকুল রায়ের বিজেপি ত্যাগে দিল্লিতেও আলোড়ন পড়ে গিয়েছে।

    যদিও যে নেতারা দীর্ঘদিন সকাল-বিকেল মুকুলকে ফোন করতেন, তাঁর স্ত্রী অসুস্থ হওয়ার পর কিংবা তিনি নিজে কোভিড আক্রান্ত হওয়া সত্ত্বেও কোনও যোগাযোগ করেননি। কিন্তু শুক্রবার সকাল থেকেই মুকুলকে নিয়ে জল্পনা শুরু হতেই বিজেপির তরফে নানা জনের ফোন আসতে থাকে মুকুলের উদ্দেশে। সেই তালিকায় রাজ্য বিজেপির নেতারা যেমন ছিলেন, ছিলেন বিজেপির এ রাজ্যের পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়ও। কিন্তু ততক্ষণে তৃণমূল ভবনে যাওয়ার জন্য মনস্থির করে ফেলেছেন মুকুল। ফলে বিজেপির তরফে যা ফোন এসেছে, তার একটিও ধরেননি মুকুল। এড়িয়ে গিয়েছেন। অর্থাৎ, স্পষ্ট করে দিয়েছেন যত ফোনই আসুক, আর তাঁকে আটকানো যাবে না। সেই বার্তা পৌঁছে গিয়েছে দিল্লিতেও। তাই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশংকর প্রসাদ বলেন, 'জল্পনা নিয়ে কোনও কথা বলব না।' মুখ খুলতে চাইছে না রাজ্য বিজেপিও। রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, 'এখনও হাজার হাজার কর্মী ঘরছাড়া। তাঁদের ঘরে ফেরানোই এখন মূল কাজ।'

    বস্তুত বিজেপির সঙ্গে মুকুলের দূরত্ব তৈরি হচ্ছিল বিধানসভা ভোটের আগে থেকেই। মুকুলকে ভোট পরিচালনার দায়িত্বে না রাখা, নবাগত শুভেন্দু অধিকারীদের অধিক গুরুত্ব, জোর করে ভোটে দাঁড় করানো সহ একাধিক ইস্যুতে মুকুল নিজেকে গুটিয়েই নিয়েছিলেন। কৃষ্ণনগর উত্তরে তাঁকে প্রার্থী করেছিল বিজেপি। যা একেবারেই চাইছিলেন না 'রায়সাহেব'। কিন্তু শেষমেশ নিজে ভোটে জিতলেও দলের সঙ্গে তাঁর দূরত্ব তৈরি হয়েই গিয়েছিল।

    আর এমন এক প্রেক্ষাপটে তৃণমূলের বিপুল ভোটে জিতে আসা। আর ধীরেধীরে মুকুলের সঙ্গে পুরনো দলের দূরত্ব লাঘব। সেই প্রচেষ্টা গতি পায় সম্প্রতি মুকুল রায়ের স্ত্রীকে দেখতে হাসপাতালে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতি থেকেই। এরপরই এল শুক্রবার। সাড়ে তিন বছরের দূরত্ব মিটিয়ে ফের তৃণমূল ভবনে ঢুকলেন রাজ্য রাজনীতির চাণক্য।

    Published by:Suman Biswas
    First published: