কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

চার বছর ধরে শুভেন্দুকে ডাকছিলেন, স্বীকার করে ফেললেন 'চাণক্য' মুকুল রায়

চার বছর ধরে শুভেন্দুকে ডাকছিলেন, স্বীকার করে ফেললেন 'চাণক্য' মুকুল রায়

মুকুল তাঁর সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় জানিয়ে দিলেন, যেদিন তিনি তাঁর পুরনো দল ছেড়েছেন, সেদিন থেকেই মনে প্রাণে চাইছিলেন শুভেন্দুকে দলে টানতে।

  • Share this:

#কলকাতা: হেস্টিংসে বিজেপির সংক্ষিপ্ত বৈঠক ও সংবর্ধনা কর্মসূচি নিয়ে ফের তুমুল শোরগোল। ধুন্ধুমারের মাঝেই মুকুল রায়ের ঝুলি থেকে বেরিয়ে পড়ল বেড়াল। মুকুল তাঁর সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় জানিয়ে দিলেন, যেদিন তিনি তাঁর পুরনো দল ছেড়েছেন, সেদিন থেকেই মনে প্রাণে চাইছিলেন শুভেন্দুকে দলে টানতে।

মুকুল এদিন বলেন, "আমাকে এই দলে যোগ দিতে প্রভাবিত করেছেন কৈলাশ বিজয়বর্গীয় ও শিবপ্রকাশ । আমি ৪ বছরে এই দলের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে গিয়েছি। যখন দল ছেড়েছি তখন থেকেই ওকে বলেছি, অসম্মানিত হয়ে ওই দলে থাকিস না।" প্রসঙ্গত বিজেপির সঙ্গে সম্পর্কটা যে অনেকদিনের তা যোগদানের দিনই স্পষ্ট করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। সেই পেঁয়াজেরই আরেকটু খোসা যেন ছাড়ালেন আজ মুকুল। তিনিই আজ কবুল করলেন, শুভেন্দুকে তিনি সেদিন বলেছিলন, "ভয় পাচ্ছিস জানি। কিন্তু তৈরি হয়ে যা।"

ভোটবাজারে বিজেপিকে বিঁধতে তৃণমূলের অস্ত্র বহিরাগত তত্ত্ব এবং 'বিশ্বাসঘাতকতার' নানা নমুনা।শুভেন্দু অধিকারীকে প্রকাশ্যেই মীরজাফর বলছেন তৃণমূলের নেতানত্রীরা, আর তাঁকে বলা হচ্ছে, গদ্দার। সেই প্রসঙ্গেও মুখ খুললেন মুকুল এদিন। মুকুলের কথায়,"যারা আমাদের গদ্দার বলছে। তারাও গদ্দারি করছে৷ আজ মঞ্চ বেঁধে যা করছে তা ঠিক নয়। আমি আজ বলছি লিখে রাখুন, আমাদের এই রাজ্যে টিএমসি, বিপ্লবী বাংলা কংগ্রেসের থেকে খারাপ হবে৷"

বিজেপির অন্দরে কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে সংঘাতের ইঙ্গিত। নয়া বিজেপি আদি বিজেপি সংঘাতের কিছু নমুনাও সামনে আসছে। বিজেপির বাকপটু চাণক্য, মুকুল রায় এই তাই মেপে পা ফেলছেন। নিজের থেকে এগিয়ে রাখছেন দলকে, নতুন পুরনো সকলকই তাঁর বার্তা, "দলের প্রতি আস্থা, বিশ্বাস রাখুন। সম্মান রাখুন।"

অন্য দিকে তাঁকে দেখে যারা এসেছে, তাদের প্রতিও দায় রয়েছে তাঁর, মুকুল রায় তাদের এদিন রিওয়ার্ড মডেলটা বুঝিয়ে দিলেন। নব্য বিজেপিদের উদ্দেশ্যে উদ্দেশ্যে মুকুল উবাচ, "বিজেপি, অন্য৷ দল থেকে আসা সদস্যদের সম্মান দিতে জানে। তৃণমূল থেকে আমাকেও তো সহ সভাপতি করা হল কেন্দ্রীয় স্তরে৷ দল যেভাবে আপনাকে গ্রহণ করেছে তাতে আস্থা রাখুন। এই বিধানসভা ভোটে তৃণমূলকে সরাতে হবে। আমরা নিশ্চিত করে বিদায় দেব।"

Published by: Arka Deb
First published: December 26, 2020, 3:56 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर