• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • মায়ের বিরুদ্ধে ছেলেকে খুনের অভিযোগ, বাড়ির ছাদে মিলল কঙ্কাল! সল্টলেকে চাঞ্চল্য়

মায়ের বিরুদ্ধে ছেলেকে খুনের অভিযোগ, বাড়ির ছাদে মিলল কঙ্কাল! সল্টলেকে চাঞ্চল্য়

সল্টলেকের সেই বাড়ির সামনে পুলিশ৷

সল্টলেকের সেই বাড়ির সামনে পুলিশ৷

অভিযোগকারী ব্যবসায়ী অনিল কুমার মহেনসারিয়া এবং তার স্ত্রী গীতা সল্টলেক সেক্টর ২-এর এজে- ২২৬ ঠিকানায় থাকতেন৷ তাঁদের তিনটি সন্তান ছিল৷

  • Share this:

    #কলকাতা: মায়ের বিরুদ্ধেই ছেলেকে খুনের অভিযোগ৷ সল্টলেকের বাড়ি থেকে উদ্ধার হল প্রায় কঙ্কাল৷ ছেলে নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার পর নিজের স্ত্রীর বিরুদ্ধেই খুনের অভিযোগ করেন বাবা৷ তারই ভিত্তিতে তদন্তে নেমে কঙ্কালের খোঁজ পায় পুলিশ৷ খাস কলকাতায় এমন ঘটনায় রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে৷ অভিযুক্ত মহিলা এবং তার ছোট ছেলেকে গ্রেফতার করে জেরা করছে পুলিশ৷

    জানা গিয়েছে, অভিযোগকারী ব্যবসায়ী অনিল কুমার মহেনসারিয়া এবং তার স্ত্রী গীতা সল্টলেক সেক্টর ২-এর এজে- ২২৬ ঠিকানায় থাকতেন৷ তাঁদের তিনটি সন্তান ছিল৷ কিন্তু পারিবারিক বিবাদের জেরে ২০১৯ সালের অগাস্ট মাস থেকে অনিল রাজারহাটের একটি আবাসনে একাই থাকতেন৷ দুই ছেলে এবং এক মেয়েকে নিয়ে সল্টলেকের বাড়িতে থাকতেন গীতা৷

    অনিলের অভিযোগ, গত ২৯ অক্টোবর তিনি জানতে পারেন, তিন ছেলেমেয়েকে নিয়ে রাঁচিতে নিজের মায়ের বাড়িতে চলে গিয়েছেন গীতা৷ কিন্তু নভেম্বর মাসে তিনি জানতে পারেন, ছোট ছেলে বিদুর এবং মেয়ে বৈদেহী সেখানে থাকলেও বড় ছেলে অর্জুন রাঁচিতে নেই৷ অথচ ফোনে তাঁর স্ত্রী তাঁকে জানান যে অর্জুনও সেখানেই রয়েছে৷ য

    বেশ কিছুদিন ধরে চেষ্টা করেও বড় ছেলে অর্জুনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেননি অনিল৷ তাঁর কোনও খোঁজও পাননি ওই ব্যবসায়ী৷ এর পরেই বৃহস্পতিবার বিধাননগর পূর্ব থানায় অর্জুনের নামে নিখোঁজ ডায়েরি করেন অনিল৷ তিনি পুলিশের কাছে আশঙ্কা প্রকাশ করেন, ঘনিষ্ঠ কয়েকজনের সাহায্য নিয়ে হয়তো অর্জুনকে অপহরণ করে খুন করে ফেলেছে তাঁর মা গীতা৷

    এই অভিযোগের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাতেই সল্টলেকের এজে ২২৬ নম্বর বাড়িতে হানা দেয় পুলিশ৷ তল্লাশিতে বাড়ির ছাদ থেকে একটি কঙ্কাল মেলে৷ ওই কঙ্কালটি নিখোঁজ অর্জুনের বলেই অনুমান তদন্তকারীদের৷ নিখোঁজ অর্জুনের মা গীতা এবং তার আর এক ছেলে বিদুইকে গ্রেফতার করে জেরা চালাচ্ছে পুলিশ৷

    জানা গিয়েছে, ১৯৮৮ সালের ১০ ডিসেম্বর অনিল এবং গীতার বিয়ে হয়েছিল৷ তাঁদের তিন সন্তানের মধ্যে নিখোঁজ অর্জুনের বয়স ছিল ২৫ বছর৷ তাঁর ভাই বিদুইয়ের বয়স ২২, বোন বৈদেহীর বয়স ২০৷ উদ্ধার হওয়া কঙ্কালটি অর্জুনেরই কি না, সে বিষয়ে নিশ্চিত হতে ফরেন্সিক পরীক্ষা করছে পুলিশ৷ এই ঘটনায় আর কেউ জড়িত কি না, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

    Anup Chakraborty

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: