• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • আজকের খবরের কাগজের সেরা খবর

আজকের খবরের কাগজের সেরা খবর

প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷

প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷

প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    প্রতিদিনের ব্যস্ততায় খবর কাগজ খুঁটিয়ে পড়া সম্ভব হয় না ৷ অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ খবর চোখ এড়িয়ে যায় ৷ তাছাড়া একাধিক কাগজও পড়ার মতো সময় কারোর হাতেই নেই ৷ তাই আসুন এক নজরে, একজায়গায় দেখে নিন কলকাতার বিভিন্ন কাগজের সেরা খবর গুলি ৷ শুক্রবারের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি হল-

    anandabazar11

    ১) আজ মহাষষ্ঠী, দেবীর আগেই ভিড়ের বোধন পুলিশ কমিশনার ভেবেছিলেন, বিকেল গড়ালেই সামলে দেবেন পরিস্থিতি। কিন্তু পঞ্চমীর সন্ধ্যাতেই তাঁকে কার্যত ঘোল খাওয়াল মানুষের ঢল! উৎসব কাপে ক্লাব বনাম ক্লাবের লড়াই তো রয়েইছে, এ দিন থেকে যেন লড়াই শুরু হল ভিড় আর পুলিশেও! বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই উত্তর-দক্ষিণে শুরু হয়েছিল যানজট। রীতিমতো নাকাল হচ্ছিলেন মানুষজন। কিন্তু পুলিশের আশা ছিল, বিকেলে অতিরিক্ত বাহিনী নামলেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে। দুপুরে নবান্নে দাঁড়িয়ে একই দাবি করেছিলেন কলকাতার সিপি রাজীব কুমার। শেষমেশ তেমন যে হল না তার জন্য দায়ী কিন্তু উৎসবের উন্মাদনাই। বিশদে পড়ুন...............

    ২) ৫৬ ইঞ্চির মোদীই রক্তের দালাল, রাহুলের মতে নরেন্দ্র মোদী জাতীয় রাজনীতিতে আসা ইস্তক মাত্র এক বারই তাঁর প্রশংসা করেছেন রাহুল গাঁধী! সেই এক বারের প্রশংসাও বেমালুম গিলে ফেলে ফের তাঁকে তেড়েফুঁড়ে তুলোধোনা করতে নামলেন কংগ্রেস সহসভাপতি! নিয়ন্ত্রণরেখার ও-পারে গিয়ে ভারতীয় সেনা ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক’ সেরে আসার পরে সব বিরোধী দলই পাশে দাঁড়িয়েছিল মোদী সরকারের। যে সনিয়া গাঁধী এক সময়ে মোদীকে ‘মওত কা সওদাগর’ বলে বিতর্কের ঝড় তুলেছিলেন, তিনিও সরকারের এই পদক্ষেপের সমর্থনে মুখ খোলেন। শ্লেষের সঙ্গে হলেও রাহুলকে প্রশংসা করে বলতে হয়, ‘‘এই প্রথম মোদী প্রধানমন্ত্রী-সুলভ কোনও কাজ করলেন।’’ কিন্তু বিজেপি যে ভাবে ওই সেনা অভিযান নিয়ে ঢাক পেটাতে শুরু করেছে এবং এটিকে ভোটের হাতিয়ার করে তুলেছে, তাতেই সুর বদলে যাচ্ছে বিরোধীদের।

    ৩) বোর্ডকে চব্বিশ ঘণ্টা সময়, লোঢা-সুপারিশ মামলার রায় আজ হাষষ্ঠীর বিকেল পর্যন্ত হয়তো অপেক্ষা করার প্রয়োজন পড়বে না। সব কিছু ঠিকঠাক চললে বোধনের দিন সকালেই ভারতীয় বোর্ড বনাম লোঢা যুদ্ধের ফয়সলা হয়ে যাচ্ছে। আজ, শুক্রবার আদালতের প্রথম ঘণ্টাতেই সম্ভবত বোর্ড বনাম লোঢা মামলার চূড়ান্ত রায় ঘোষণা। বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত যা খবর, তাতে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের সামনে বোর্ডের বশ্যতা স্বীকারের সম্ভাবনা প্রায় নেই। যে কারণে হয়তো অন্তর্বর্তিকালীন কমিটি গঠন করা ছাড়া আর উপায় থাকবে না সুপ্রিম কোর্টের। বিশদে পড়ুন...............

    ৪) জনজোয়ারেই স্বাগত মহাপঞ্চমী ঢাকে কাঠি পড়েছিল তৃতীয়াতেই। পঞ্চমীতে শহরে এল পুরোদমে উত্সবের মেজাজ। মেঘলা আকাশ, ঝিরঝিরে বৃষ্টি উপেক্ষা করেই। এমনকী রাতেও যানজটে আটকে ছিল শহরের উত্তর থেকে দক্ষিণ, বাইপাসও। মেট্রোতেও ছিল উপচে পড়া ভি়ড়। উৎসবের মেজাজে রয়েছে প্রশাসনও। সকালে খোদ মুখ্যমন্ত্রী ফেসবুকে রাজ্যবাসীকে ‘শারদ শুভেচ্ছা’ জানিয়েছেন। হাতিবাগানের ফুটপাথের বিকিকিনি তো ফুরোয়নি এ দিনও। তার মধ্যেই শুরু হয়েছে পুজোর ভিড়। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার শোভাবাজার মো়ড়ে কলকাতা পুলিশের এক সহকারী কমিশনার ফোনের ওপারে কাউকে বলছিলেন, ‘‘উফ! পঞ্চমীর সন্ধ্যায় এমন ভিড় আগে দেখিনি।’’ শ্যামপুকুর, সিকদারবাগান, কাশী বোস লেনের পুজো দেখে কলেজ স্কোয়ারের দিকে হাঁটা দিয়েছে ভিড়। বিশদে পড়ুন...............

    bartaman_big11

    ১) বৃষ্টি উপেক্ষা করেই পুজোর মণ্ডপে মণ্ডপে জনজোয়ার কলকাতায় কি একটা‌ই বড় পুজো? আর তার নাম দেশপ্রিয় পার্ক? দুপুর শেষ হয়নি বললেই চলে। রাসবিহারী অ্যাভিনিউয়ের পশ্চিম দিক থেকে যেভাবে মানুষ ছুটছিলেন মা দুর্গার হাজার হাত দেখার জন্য, তাতে বৃহস্পতিবার মনে হচ্ছিল, এদিনই বোধহয় নবমী! একবার মিস হলে, এ সুযোগ হয়তো আর পাওয়া যাবে না। গত বছর পঞ্চমীর বিকালে একইভাবে লাখো মানুষ ভিড় জমিয়েছিল বিশ্বের সবচেয়ে বড় দুর্গা দেখতে। আবেগ আর উৎসাহের সেই জনস্রোত উৎসবের সবচেয়ে বড় বিপর্যয়ে পরিণত হতে বেশি সময় নেয়নি সেবার। কিন্তু বৃহস্পতিবারও সেই ভিড়কেই ফের চিনিয়ে দিল দেশপ্রিয় পার্ক। সকাল থেকেই মেঘ গুড়গুড় আর হালকা বৃষ্টি যতটা দমিয়ে রেখেছিল বাঙালির উৎসাহকে, বিকালের দিকে সেই মন খারাপ ধুয়েমুছে সাফ হয়ে গেল। বিশদে পড়ুন...............

    ২) পাক অধিকৃত কাশ্মীরে জঙ্গি ঘাঁটি, ভাঙার দাবিতে বিক্ষোভ একদিকে আন্তর্জাতিকভাবে কোণঠাসা হয়ে যাওয়া এবং অন্যদিকে নিজেদের দখলে থাকা এলাকাতেই উত্তরোত্তর বিদ্রোহের মুখে পড়ে পাকিস্তান সরকার চরম সংকটে পড়েছে। কারণ বালুচিস্তানের পর এবার ভারতকে পাশে পেয়ে সাহস অর্জন করল পাক অধিকৃত কাশ্মীর। দাবি তুলল জঙ্গি শিবির ধ্বংসের। এতদিন বিচ্ছিন্নভাবে এই প্রদেশের কিছু জেলার বিদ্রোহী সংগঠন ও রাজনৈতিক দলগুলি পাকিস্তানি সেনার দমনপীড়ন নিয়ে নিয়মিত বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে এবং পাকিস্তানের সেনাবাহিনী অমানবিকভাবে সেই বিদ্রোহকে ধামাচাপা দিয়েছে। সেই গৃহযুদ্ধের খবর খুব বেশি বাইরের জগতে প্রকাশ হয়নি। কিন্তু ১৫ আগস্ট লালকেল্লা থেকে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস সংবলিত অধিকৃত কাশ্মীর, বালুচিস্তান, গিলগিটবাসীর পাকিস্তানবিরোধী মনোভাবকে উসকে দিয়ে তাদের পাশে থাকার বার্তা এবং ২৯ সেপ্টেম্বরের ভারতীয় সেনাবাহিনীর সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের দ্বিমুখী কৌশলের সুফল মিলতে শুরু করেছে। বিশদে পড়ুন...............

    ৩) বাড়ির পুজোর বিসর্জন সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত,বলল হাইকোর্ট স্বাধীনতা উত্তরকালে রাজ্যে এই প্রথম দশমীর প্রতিমা বিসর্জনে ‘অলিখিত সরকারি নিষেধাজ্ঞা’ কার্যত বহাল থাকল। বৃহস্পতিবার কলকাতা হাইকোর্টের একক এবং দুই বিচারপতির দুই আলাদা ডিভিশন বেঞ্চ ওই নিষেধাজ্ঞার পরিমার্জন করায় রাজ্যের সব বাড়ির পুজোর প্রতিমার নিরঞ্জন ওই দিন সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে করতে হবে। অন্য নির্দেশ অনুযায়ী তিন মামলাকারীর আলাদা পুজোর প্রতিমা নিরঞ্জন রাত সাড়ে ৮টার মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে। সর্বজনীন পুজোর প্রতিমার নিরঞ্জন সেদিন বিকাল ৪টের মধ্যে শেষ করতে হবে। নাহলে সকলের ক্ষেত্রে তা করা যাবে একাদশী বাদ দিয়ে দ্বাদশী বা ত্রয়োদশীর দিন। বিশদে পড়ুন...............

    ৪) ট্যাংরায় কাটা তেলের বেআইনি গুদামে বিধ্বংসী আগুন, মৃত ৩ ঞ্চমীতেই বড়সড় অগ্নিকাণ্ড ঘটল শহরে। ট্যাংরা এলাকার ক্রিস্টোফার রোডে কাটা তেলের বেআইনি গুদামে আগুন লেগে আতঙ্ক ছড়াল এলাকায়। অল্পের জন্য বস্তিবাসীরা প্রাণে বাঁচলেও অগ্নিকাণ্ডে মৃত্যু হয়েছে ওই গুদামের মালিকসহ তিনজনের। মৃত দু’জনের রাম অবতার আগরওয়াল (৫০), পঙ্কজ আগরওয়াল (৪০)। অন্যজনের পরিচয় জানা যায়নি। প্রচুর দাহ্য পদার্থ মজুত থাকায় আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। দমকলের আটটি ইঞ্জিনের চেষ্টায় দীর্ঘক্ষণ পরে আগুন আয়ত্তে আসে। দীর্ঘদিন ধরে এই গুদামটি বেআইনিভাবে চললেও কী করে স্থানীয় থানা ও দমকলের নজর এড়িয়ে গেল, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে। ঘটনার পর থেকে পলাতক গুদামের আরও দুই মালিক। তাঁদের খোঁজ চলছে। বিশদে পড়ুন...............

    First published: