• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • MODI GOVERMENT PRAISES MAMATA BANERJEES GOVERMENT PROJECT NAMED BANGLAR BARI IS BEST IN INDIA SB

Banglar Bari: নবান্নে খবর দিল মোদি সরকার, 'বাংলার বাড়ি' প্রকল্পে দেশে সেরা মমতার সরকার!

বাংলার বাড়িতে সাফল্য!

Banglar Bari: বাংলার বাড়ি প্রকল্পে কেন্দ্র রাজ্যকে ৩৩ শতাংশ টাকা দেয় এই প্রকল্পের জন্য। বাকি টাকা রাজ্যই দেয়।

  • Share this:

    #কলকাতা: বাংলার বাড়ি প্রকল্পে দেশের মধ্য প্রথম হল পশ্চিমবঙ্গ। কেন্দ্রীয় নগর উন্নয়নমন্ত্রকের তরফে এমনই জানানো হল রাজ্যকে। Geo-tagging পদ্ধতির মাধ্যমে মূলত এই কাজটি করা হয়। রাজ্যে এখনও পর্যন্ত দেড় লক্ষ বাড়ি তৈরি হয়েছে এই প্রকল্পের অধীনে। ২০১৫-২০১৬ থেকে এই প্রকল্প শুরু হয়। যদিও কেন্দ্র-রাজ্যকে ৩৩ শতাংশ টাকা দেয় এই প্রকল্পের জন্য। বাকি টাকা রাজ্যই দেয়। এদিন নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ প্রসঙ্গে বলেন, 'এটি খুব গর্বের বিষয়। ১০০ দিনের কাজের পাশাপাশি এবার বাংলার বাড়ি প্রকল্পও দিল্লিতে প্রশংসিত হল।

    রাস্তা, পানীয় জল, বিদ্যুৎ, দু’টাকা কেজি চাল-গমের সঙ্গে কন্যাশ্রী, সবুজশ্রী আর সবুজসাথীর মতো একগুচ্ছ উন্নয়ন প্রকল্পের সফল রূপায়ণের পর দুঃস্থ-গরিব মানুষের জন্য ‘মাথার ছাদ’-এর সংস্থান করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। বাংলা আবাস যোজনার অন্তর্গত আবাসন প্রকল্পে পাঁচ লক্ষ পরিবারের জন্য ‘বাংলার বাড়ি’ তৈরী করাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্য বিজেপি তাই যতই মমতার সরকারের নিন্দায় মুখর হোক জাতীয় স্তরে কিংবা আন্তর্জাতিক স্তরেও বাংলার প্রকল্পের কদর রয়েছে বেশ উঁচুতেই।

    নবান্নে চিঠি পাঠিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের 'বাংলার বাড়ি' প্রকল্পের প্রশংসা করেছেন কেন্দ্রীয় নগরোন্নয়ন দফতর। স্বভাবতই খুশির হাওয়া তৈরি হয়েছে রাজ্যজুড়ে। আগেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৈরি নিজস্ব কিছু প্রকল্প জাতীয় স্তরের ব্যাপক সাড়া ফেলে দিয়েছিল। এবার বাংলার বাড়ি প্রকল্পের প্রশংসায় পঞ্চমুখ কেন্দ্রের মোদি সরকার।

    শহরাঞ্চলে বাংলার বাড়ি প্রকল্পটি সমাজে আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া মানুষজনের জন্য চালু হয়েছে। মাথার উপর ছাদ তৈরি করে দেওয়ার উদ্দেশ্যেই এই প্রকল্প চালু করা হয়। যদিও গ্রামাঞ্চলে এই প্রকল্পই 'বাংলা আবাস যোজনা' নামে পরিচিত। পঞ্চায়েক দফতর এই কর্মসূচির দায়িত্বে। তবে, শহরাঞ্চলে বাংলার বাড়ি প্রকল্পের পরিষেবা দেয় পুর ও নগরোন্নয়ন দফতর।

    Published by:Suman Biswas
    First published: