বাদুড়িয়ায় অশান্তি নিয়ে কড়া অবস্থান রাজ্যের, ফেসবুকে উসকানিতেই হিংসা বলে তোপ মুখ্যমন্ত্রীর !

বাদুড়িয়ায় অশান্তি নিয়ে কড়া অবস্থান রাজ্যের, ফেসবুকে উসকানিতেই হিংসা বলে তোপ মুখ্যমন্ত্রীর !

বাদুড়িয়ায় গোষ্ঠী সংঘর্ষ নিয়ে বিজেপির সঙ্গে সম্মুখসমরে মুখ্যমন্ত্রী।

  • Share this:

#কলকাতা: বাদুড়িয়ায় গোষ্ঠী সংঘর্ষ নিয়ে বিজেপির সঙ্গে সম্মুখসমরে মুখ্যমন্ত্রী। ‘‘টাকা ছড়িয়ে, সোশ্যাল সাইটে উসকানি দিয়ে দাঙ্গা লাগাচ্ছে বিজেপি....সাংবাদিক সম্মেলনে এমনই তোপ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। এলাকায় শান্তি রক্ষার বার্তা দিয়েছেন তিনি। একইসঙ্গে, অশান্তির আগুন জ্বললে কাউকে ছাড়া হবে না বলেও যুযুধান দু’পক্ষকে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। পুলিশকে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নামানো হয়েছে আধাসেনাও।

ফেসবুকের একটা পোস্ট থেকে যদি দাঙ্গা লেগে যায়, তা হলে তার থেকে দুঃখের কিছু হয় না...বিতর্কের সূত্রপাত সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে একটি পোস্ট থেকেই। যা থেকেই গোলমাল শুরু। হিংসা, পুলিশের গাড়িতে আগুন। নির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতেই যার অ্যাকাউন্ট থেকে ওই বিতর্কিত পোস্ট করা হয়, তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

‘‘ছেলেটিকে অ্যারেস্ট করার পরও যে পক্ষ কাল সকাল থেকে...তারা রাজ্যের পক্ষে বলে বিশ্বাস করি না। কিন্তু কারা রাজ্যে সাম্প্রদায়িক হানাহানি, বিভেদের রাজনীতি করছেন? সত্যিই কি কোনও ষড়যন্ত্র চলছে পশ্চিমবঙ্গকে ঘিরে ? শাসক দলের একটা অ্যাজেন্ডা আছে...মিথ্যে ছবি দেওয়া হচ্ছে, বাস্তবের সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই...যাঁরা করছেন ঠিক করছেন না৷ দু’পক্ষের কাছে আবেদন দাঙ্গা নিয়ে রাজনীতি করবেন না...মাসের ওপর গুলি চালানো যায় না...আমার ধৈর্য যেন দুর্বলতা না ভাবে...আগুন জ্বললে আমি ছেড়ে দেব না। ’’ সাংবাদিক সম্মেলনে আজ, মঙ্গলবার এমনটাই বলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ৷

গোয়েন্দাদের রিপোর্ট দু’পক্ষেরই কিছু ধর্মীয় নেতা, অশান্তিতে উসকানি দিচ্ছেন। তাঁদের চিহ্নিত করেও ফেলেছে পুলিশ।কয়েকটি ধর্মীয় নেতা টাকা দিয়ে আগুন লাগাচ্ছে...আগুন নিয়ে খেলবেন না..

হিংসার মোকাবিলায় প্রশাসনকেও চূড়ান্ত ব্যবস্থা নিতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। শান্তি ফেরাতে কড়া পদক্ষেপ নিতে বলেছেন। ইতিমধ্যেই পুলিশ ও আধাসামরিক বাহিনী পৌঁছেছে ঘটনাস্থলে।

- মোতায়েন করা হয়েছে ৪ কোম্পানি বিএসএফ

- পাঠানো হয়েছে ৩০০ আধাসেনাও

- এছাড়া, কলকাতা ও হাওড়া পুলিশের তরফে বাড়তি বাহিনী পাঠানো হচ্ছে

- দায়িত্বে রয়েছেন আইপিএস বিনীত গোয়েল, ডি পি সিং ও সঞ্জয় সিং

শুধু তাই নয়, সোমবারের ঘটনার পর থেকে সোশ্যাল সাইটের উপর আরও বেশি করে নজরদারি রাখছে প্রশাসন। যে সব গ্রুপ বা ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট থেকে সাম্প্রদায়িক উসকানি ছড়ানো হচ্ছে, পুলিশ প্রয়োজনে তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে চলেছে।

First published: 08:29:05 PM Jul 04, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर