Home /News /kolkata /
Kolkata Metro || এ কী বিপত্তি! কাদা-মাটিতে আটকে গেল মেট্রোর রেক, আনতে হল ক্রেন 

Kolkata Metro || এ কী বিপত্তি! কাদা-মাটিতে আটকে গেল মেট্রোর রেক, আনতে হল ক্রেন 

Kolkata Metro || সরাসরি নর্থ-সাউথ মেট্রোর সঙ্গে লাইনে সংযুক্ত নয় জোকা-বিবাদী বাগ লাইন। তাই লরিতে করে পাঠানো হবে জোকায়। তাতেই বিপত্তি!

  • Share this:

#কলকাতা: রেক পাঠাতে গিয়ে যেন কালঘাম ছুটল মেট্রো রেলের৷ জোকা থেকে তারাতলা মেট্রোর ট্রায়াল রান হবে শীঘ্রই। অবসরপ্রাপ্ত নন এসি রেক দিয়ে হবে এই ট্রায়াল রান। ইতিমধ্যে নোয়াপাড়া কারশেডে  নন এসি মেট্রো রেকের পরীক্ষা করা হয়েছে। সরাসরি নর্থ-সাউথ মেট্রোর সঙ্গে লাইনে সংযুক্ত নয় জোকা-বিবাদী বাগ লাইন। তাই লরিতে করে পাঠানো হবে জোকায়। তাতেই বিপত্তি! যে ট্রেলারে চাপিয়ে রেক পাঠানো হবে জোকা কারশেডে, সেই ট্রেলারই রেক সহ কাদা-মাটিতে আটকে। অবস্থা এমনই যে বিশালাকার ক্রেন নিয়ে এসে তাকে কাদা-মাটি থেকে তোলার চেষ্টা করছে মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ। এরপর সেই ট্রেলার নিয়ে যাওয়া হবে জোকায়। জোকা থেকে তারাতলা পর্যন্ত হবে ট্রায়াল রান।

ইতিমধ্যেই লাইন বসানো হয়েছে এই অংশে। আগামী বছর জোকা থেকে তারাতলা মেট্রো চালু করার লক্ষ্য নিয়েছে রেল। আত্মনির্ভর প্রকল্পে প্রথম কাজের সূচনা কলকাতা থেকে। শুরু হয়েছিল জোকা-বিবাদী বাগ মেট্রো প্রকল্পে লাইন পাতার কাজ। ছত্তীসগঢ় থেকে কলকাতায় এসে পৌছেছিল ইস্পাতের রেল। লাইন বা রেল বসানোর জন্য এসেছে নেদারল্যান্ডের  মেশিন 'মোবাইল ফ্ল্যাশব্যাট ওয়েল্ডিং'। যা দিয়ে জোড়া হয় লাইনের অংশ। আর ভি এন এল সূত্রে খবর, জোকা ডিপো থেকে মাঝেরহাট পর্যন্ত প্রায় ১০ কিমি লাইন পাতার মতোই ইস্পাত এসে পৌঁছে গিয়েছে। কাজও শেষ।

আরও পড়ুন:  জেলা থেকে আসত টাকা! কেন? উৎস কোথায়? জেরায় চাঞ্চল্যকর তথ্য জানালেন অর্পিতা!

যে সংস্থা এই লাইন পাতার কাজ করবে তাদের প্রতিনিধিরাও এসে  কাজ শেষ করে দিয়েছেন। জোকা ডিপো থেকে তারাতলা পর্যন্ত মেট্রোর স্টেশন বিল্ডিং নির্মাণের কাজ শেষ। এবার এই পথে শুরু হতে চলেছে মেট্রোর ট্রায়াল রানের কাজ। লাইন পাতার জন্য ছত্তীসগঢ় থেকে আনা  ১৮ মিটার করে লম্বা এক একটি রেলের খণ্ডকেই জোড়া হয়। আর ভি এন এলের এক শীর্ষ আধিকারিক জানিয়েছেন, "মেট্রো লাইনে কোনও জয়েন্ট থাকে না৷ তাই প্রতিটি খণ্ড বসিয়ে বিশেষ যন্ত্র মোবাইল ফ্ল্যাশব্যাট ওয়েল্ডিং দিয়ে জোড়া হচ্ছে। তারপর বিভিন্ন তাপমাত্রায় তা পরীক্ষা করা হবে।"

আরও পড়ুন Name plate of Partha Chatterjee removed from Ministry: মন্ত্রিত্ব গেল, খুলে ফেলা হল নেম প্লেট! এখন নজর আরও কত 'কোটি' উদ্ধার হয় অর্পিতার নতুন ফ্ল্যাট থেকে

পণ্যবাহী ট্রেন বা মেল, এক্সপ্রেস ট্রেন যখন চলাচল করে তখন রেল লাইনের উপরে তার ভার অনেক বেশি হয়। সেই তুলনায় মেট্রোর ভার অনেকটা কম। কিন্তু মেট্রো পরিষেবা যেহেতু ঘন ঘন হয় তাই রেলের ওপরে ঘর্ষণ এবং তাপ এতটাই উৎপন্ন হয় যে কাজ অনেক বেশি নিখুঁত ও সচেতনতার সঙ্গে করতে হয়। আর ভি এন এলের আধিকারিকরা জানাচ্ছেন, মেট্রো লাইন হয় সুড়ঙ্গ, নয়তো মাটির অনেক উপরে হয়। ফলে এখানে লাইন বদলানো খুব একটা সহজ ব্যপার নয়। তাই কমপক্ষে ১০০ বছর ধরে পরিষেবা দিতে হবে এমনটা ভেবেই এই রেল বা ইস্পাত নিয়ে আসা হয়েছে। আর ভি এন এল সূত্রে খবর, জিন্দলদের ছত্তীসগঢ় কারখানা থেকে রেলে করে শালিমার ইয়ার্ডে নিয়ে আসা হয়েছিল এই ইস্পাত। ক্রোমিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ-সহ নানা উপকরণ দিয়ে এই ইস্পাত বানানো হয়েছে। সাধারণ লাইনের চেয়ে এই লাইনের পীড়ন সহ্য করার ক্ষমতা অনেকটা বেশি। বিশেষ প্রযুক্তিতে বানানো এই ইস্পাত কয়েক মিনিট অন্তর ট্রেন চলাচলের পরেও ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। তাই এই ভারতীয় সংস্থাকে বাছাই করেছে আর ভি এন এল। যেহেতু ইউরোপ  রেল লাইন তৈরিতে দক্ষ, তাই সেখান থেকেই আগে ইস্পাত আনা হত।

Published by:Rachana Majumder
First published:

Tags: Kolkata Metro Rail

পরবর্তী খবর