• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • ফেসবুক মেসেঞ্জার হ্যাক, অশ্লীল মেসেজ পাচ্ছেন চেনা বন্ধুরা, থানার দ্বারস্থ বারাসাতের দম্পতি

ফেসবুক মেসেঞ্জার হ্যাক, অশ্লীল মেসেজ পাচ্ছেন চেনা বন্ধুরা, থানার দ্বারস্থ বারাসাতের দম্পতি

বুধবার সকালেই নাগ দম্পতি হাজির হয়ন বারাসত থানায়। তাঁরা জানান স্বামীর ফেসবুক আ্যকাউন্ট থেকে অশ্লীল ম্যাসেজ গিয়েছে বন্ধুদের কাছে. ঘুম ভাঙার আগে শুভাকাঙ্ক্ষীদের ফোনে অস্বস্তিতে নাজেহাল তাঁরা।

বুধবার সকালেই নাগ দম্পতি হাজির হয়ন বারাসত থানায়। তাঁরা জানান স্বামীর ফেসবুক আ্যকাউন্ট থেকে অশ্লীল ম্যাসেজ গিয়েছে বন্ধুদের কাছে. ঘুম ভাঙার আগে শুভাকাঙ্ক্ষীদের ফোনে অস্বস্তিতে নাজেহাল তাঁরা।

বুধবার সকালেই নাগ দম্পতি হাজির হয়ন বারাসত থানায়। তাঁরা জানান স্বামীর ফেসবুক আ্যকাউন্ট থেকে অশ্লীল ম্যাসেজ গিয়েছে বন্ধুদের কাছে. ঘুম ভাঙার আগে শুভাকাঙ্ক্ষীদের ফোনে অস্বস্তিতে নাজেহাল তাঁরা।

  • Share this:

#বারাসাত: নয়া ফেসবুক মেসেঞ্জার থেকে নাগাড়ে মেসেজ যাচ্ছে তালিকায় থাকা বন্ধুদের কাছে। উপায়ন্তর না দেখে সাতসকালে থানায় আসতে বাধ্য হলেন বারাসাতের ডাকবাংলো মোড়ের নাগ দম্পতি।

বুধবার সকালেই নাগ দম্পতি হাজির হয়ন বারাসত থানায়। তাঁরা জানান স্বামীর ফেসবুক আ্যকাউন্ট থেকে অশ্লীল ম্যাসেজ গিয়েছে বন্ধুদের কাছে. ঘুম ভাঙার আগে শুভাকাঙ্ক্ষীদের ফোনে অস্বস্তিতে নাজেহাল তাঁরা। অনর্গল পরিচিতদের ফোন আসছে, জানতে চাইছেন তাঁরা, কী ব্যাপার, এমন অশ্লীল ম্যাসেজ কেন পাঠানো হচ্ছে।

বুধবার সকালে ধাক্কাটা খেয়ে ব্যতিব্যস্ত নাগ দম্পতি তরিঘড়ি সব কাজ ফেলে ঘুম জড়ানো চোখে মোবাইল খুলে ফেসবুকে ঢুকতে যান। কিন্তু চমক ছিল সেখানেই। তাঁরানি দেখেন, নিজের ফেসবুক পাসওয়ার্ড কাজ করছে না। এরপর পরিচিতজনের থেকে মেসেজের বয়ান শুনে লজ্জায় মাটিতে মিশে যান তাঁরা।

আর দেরি না করে সটান তাঁরা চলে আসেন বারাসত থানায়। হাতে লিখিত অভিযোগ জানান নাগ দম্পতি। তাঁদের দাবি, তাঁরা আজন্ম সিপিএমের কর্মী। এলাকায় তাদের যথেষ্ট সুনাম আছে। ফলে রাজনৈতিক বিরোধ সব সময় বিরোধীদের সঙ্গে লেগেই আছে। নাগ দম্পতির দাবি, রাজনৈতিক বিরোধ তো মাঠে ময়দানের লড়াই। সেই লড়াই তো চলছে। তা বলে স্বামীর ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার কে এমন কদর্য ভাবে ব্যবহার হবে -তা তার কখনই ভাবতে পারেননি।

ভদ্রলোকের আক্ষেপ, ফেসবুক হ্যাক করে তার প্রবীণ শ্বাশুড়ি কে নিয়ে এমন অশ্লীলতা তাদের পীড়া দিচ্ছে সবচেয়ে বেশী। তাই দোষীর শাস্তির দাবীতেই সকাল সকাল পুলিশের কাছে এসেছেন। বারাসত থানার পুলিশ অভিযোগ নিলেও নাগ দম্পতিকে জেলা পুলিশ সুপারের অফিসে সাইবার ক্রাইম থানায় যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে।এখনও হদিশ মেলেনি হ্যাকারের।

Published by:Arka Deb
First published: