• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • MESSAGE TO TMC LEADERS FROM PARTY TOP LEADERS THE CITY MUST BE WRAPPED WITH TMC CAMPAIGN MATERIALS AKD

অভিনব রণকৌশল! মোদিকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানাবে 'ঘরের মেয়ে' মমতার কলকাতা

এই পোস্টারেই শহর মুড়ে ফেলতে চাইছে তৃণমূল।

Message to TMC leaders from party's top brass The city must be wrapped with TMC campaign materials Before Narendra Modi Brigade rally

  • Share this:

#কলকাতা: ৭ মার্চ কলকাতায় আসছেন নরেন্দ্র মোদি। তার আগে গোটা শহর  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পোস্টারে মুড়ে ফেলতে হবে। পোস্টারে লেখা থাকবে- বাংলা তার নিজের মেয়েকে চায় অর্থাৎ বার্তাটা যেন এমন, মমতার কলকাতা স্বাগত জানাচ্ছে, উষ্ণ অভ্যর্থনা জানাচ্ছে নরেন্দ্র মোদিকে।তৃণমূল ভবনে, আজ পুর-প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে দলের শীর্ষ নেতারা এমনটাই নির্দেশ দিলেন। পুরপ্রতিনিধিদের প্রত্যেককে আজ দলের তরফে একটি ডিভিডিও দেওয়া হয়েছে। সেখানে রয়েছে বাংলার নিজের মেয়েকেই চাই পোস্টারটির ডিজিটাল ফাইল। সেখান থেকেই শয়ে শয়ে পোস্টার ছাপিয়ে দেওযাল ভরানো হবে আগামী ৭২ ঘণ্টায়।থাকবে দলীয় পতাকা, ব্যানার।

রাত পোহালেই দলনেত্রী প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করবেন। এর আগে হঠাৎ কেন  কলকাতার পুর প্রতিনিধিদের ডাক, এই নিয়ে জল্পনা তৈরি হয়েছিল। এ দিনের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন প্রশান্ত কিশোর ,অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সী, পার্থ চট্টোপাধ্যায়রা। বৈঠকে উপস্থিত পুর-প্রতিনিধিদের এখান থেকেই স্পষ্ট বার্তা দেওয়া হয়, প্রার্থী বাছাইয়ের বিষয়ে কোনও মনোমালিন্য চলবে না। কারণ প্রার্থী বাছাইয়ে নেত্রীর সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। সেই সিদ্ধান্তকেই গ্রহণ করতে হবে। এক্ষেত্রে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কোন অবকাশ যাতে না থাকে তা সুনিশ্চিত করতে চাইছে তৃণমূল। একইসঙ্গে চাইছে অল আউট প্রচার। যাতে ছোটখাটো বিবাদ ভুলে এখন কঠিন সময় কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করা হয় প্রতিটি ওয়ার্ডে তা সুনিশ্চিত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে কাউন্সিলরদের।

কলকাতা জোনে ৫১ টি আসন। এই ৫১ টি আসনে পাখির চোখ তৃণমূল-বিজেপির। এই  আসনগুলিতে খুব ভালো ফল করতে পারেনি বিজেপি। বিশেষত কলকাতা জেলায় পদ্ম ফোটেইনি। তবে মাথাব্যথা রয়েছে তৃণমূলেরও। কারণ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কেন্দ্র ভবানীপুর, তৃণমূলের দুর্গ বলে পরিচিত রাসবিহারী বা উত্তর কলকাতার জোড়াসাঁকোর মতো আসনগুলিতে তৃণমূল শিবিরের রীতিমতো কাঁপন ধরিয়ে ছিল বিজেপি। কাজেই এবার ভোটের আগে কোন রকম ভাবেই ঢিলেমি চায় না তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্ব। জয় সুনিশ্চিত করতেই হবে এই আসনগুলোতে,  সেই কারণেই কাউন্সিলরদের যুদ্ধকালীন বার্তা দেওয়া। একই সঙ্গে একজোট হয়ে লড়াই করার অনুরোধ। প্রাথমিক লক্ষ্য ৭ মার্চ মোদিকে বার্তা দেওয়া, বিজেপির পালের হাওয়া কাড়া। তবে মূল লক্ষ্যটা কোমর বেঁধে লড়ে নির্বাচনের বৈতরণী পার হওয়া।

এর পাশাপাশি পুর প্রতিনিধিদের বার্তা দেওয়া হয়েছে পুর ভোট নিয়েও। দলের তরফে সাফ বার্তা, কাজের ভিত্তিতেই মিলবে টিকিট। দল ভোটে জিতলে উন্নয়ন খাতে বার্ষিক ১ কোটি টাকা করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেওয়া হয়েছে পুর প্রতিনিধিদের।

Published by:Arka Deb
First published: