corona virus btn
corona virus btn
Loading

জিডি বিড়লায় অভিভাবক একাংশের বৈঠক, প্রিন্সিপালকে বরখাস্তের দাবিতে জোর আলোচনা

জিডি বিড়লায় অভিভাবক একাংশের বৈঠক, প্রিন্সিপালকে বরখাস্তের দাবিতে জোর আলোচনা
জিডি বিড়লা

জিডি বিড়লায় অভিভাবক একাংশের বৈঠক, প্রিন্সিপালকে বরখাস্তের দাবিতে জোর আলোচনা

  • Share this:

 #কলকাতা: নো অ্যারেস্ট, নো মিটিং। প্রিন্সিপ্যাল গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কোনও বৈঠক নয়। এই দাবিতে অনঢ় নির্যাতিতার বাবা থাকলেন না বৈঠকে। গার্জেন ফোরামের অন্য একটা অংশ যোগ দিলেন স্কুল কমিটির সঙ্গে বৈঠকে।

শুক্রবার থেকে মঙ্গলবার। পাঁচদিন পরেও জিডি বিড়লায় সমাধানসূত্র দূর অস্ত। সোমবার সমঝোতার উদ্যোগের সম্ভাবনা দেখা গেলেও দিনের শেষে বদলে যায় পরিস্থিতি। স্কুল কর্তৃপক্ষ ও অভিভাবকদের মধ্যে যেন দড়ি টানাটানির লড়াই। পুলিশের উপস্থিতিতে বৈঠকের প্রথমে সায় দিয়েও সিদ্ধান্ত বদলান অভিভাবকরা। নো অ্যারেস্ট। নো মিটিং। দাবিতে অনড় ছিলেন নির্যাতিতার বাবা। মঙ্গলবার সকালে স্কুলের সামনে বৈঠকে বসেন অভিভাবকরা। সেখানেও নির্যাতিতা শিশুর বাবার ঘোষণা, প্রিন্সিপাল গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত বৈঠকের প্রশ্ন নেই। তাঁকে সায় দিয়ে গ্রেফতারের সময়সীমাও বেধে দেন অভিভাবকদের একাংশ।

অন্যদিকে, জট কাটাতে নির্ধারিত সময়ে মিটিংয়ে যোগ দিয়েছেন অভিভাবকদের একাংশ ৷ প্রিন্সিপালের অপসারণের দাবিতে অনড় অভিভাবকরা ৷ পাল্টা সওয়াল স্কুল কর্তৃপক্ষের ৷

রবিবারই অনির্দিষ্টকালের জন্য স্কুল বন্ধের নোটিস ঝোলায় কর্তৃপক্ষ। স্কুল খোলা নিয়ে অভিভাবকদের মধ্যে শুরু হয় দড়ি টানাটানি। তাঁদের একাংশ এদিন নির্যাতিতার বাবা-মাকে ছাড়াই যোগ দেন স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠকে। যদিও কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে না জানিয়েছেন তাঁরা। বৈঠকে হাজির ছিলেন না শিক্ষা দফতর ও আইসিএসই বোর্ডের কোনও সদস্য। সকাল থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য লালবাজারে স্কুলের অধ্যক্ষ শর্মিলা নাথ। বৈঠকে নেই তিনিও। স্কুলের অন্যান্য আধিকারিক, পুলিশের সঙ্গে বৈঠকে বসেন অভিভাবকদের সাতজন প্রতিনিধি। বৈঠকে ছিলেন শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারপার্সনও।

এর আগে নির্যাতিতার শিশুর বাবা দাবি করেছিলেন, দুপুরের মধ্যে প্রিন্সিপালকে গ্রেফতার না করা হলে কোনও বৈঠক হবে না। এমনকী লালবাজার ও যাদবপুর থানা ঘেরাওয়ের হুঁশিয়ারি দিয়েছিল গার্জিয়ান ফোরাম।

ক্রমেই জটিল হচ্ছে জিডি বিড়লা জট। শুক্রবার থেকে বিক্ষোভ-প্রতিবাদ। সোমবার সন্ধে পেরিয়ে আজ সকাল। ক্রমশ বদলে গেল জি ডি বিড়লার পরিস্থিতি। পুলিশের উপস্থিতিতে স্কুল কর্তৃপক্ষ ও অভিভাবকদের বৈঠক ঘিরে আড়াআড়ি দুভাগ অভিভাবকরা। নো অ্যারেস্ট, নো মিটিং। সোমাবার থেকেই এই দাবিতে অনড় নির্যাতিত শিশুর বাবা। যদিও অভিভাবকদের একাংশ আবার অন্য দাবি করছেন। স্কুল খোলা নিয়ে আড়াআড়ি বিভাজন অভিভাবকদের মধ্যে।

এদিকে নোটিস দিয়ে লালবাজারে ডেকে পাঠানো হয়েছে জিডি বিড়লা স্কুলের প্রিন্সিপাল শর্মিলা নাথকে। শিশু নির্যাতনের অভিযোগের তদন্তে তাঁকে তলব করে পুলিশ। সকাল আটটা নাগাদ কলকাতা পুলিশের সদর দফতরে পৌঁছন শর্মিলা নাথ। তাঁর বিরুদ্ধে যাদবপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন শিশুর পরিবার। এই অভিযোগ নিয়ে তথ্য পেতেই তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন তদন্তকারীরা। আজ এসএসকেএমে ফের নির্যাতিত শিশুর ডাক্তারি পরীক্ষা। লালবাজারের তরফে সকালেই শিশুকে নিয়ে এসএসকেএম-এ যেতে বলা হয়েছে পরিবারকে।

First published: December 5, 2017, 2:28 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर