পেঁয়াজের চড়া দামের কোপ পড়েছে মাংসেও, কমেছে বিক্রি

পেঁয়াজের চড়া দামের কোপ পড়েছে মাংসেও, কমেছে বিক্রি
ছবি: সংগৃহীত
  • Share this:

Abhijit Chanda

#কলকাতা: রবিবার মানেই কবজি ডুবিয়ে খাসির মাংস খাওয়া, নিদেনপক্ষে মুরগির মাংস। সেই সোনালী দিন এখন অতীত। একদিকে মাংসের চড়া দাম আর তার সঙ্গে পেঁয়াজের ছেঁকা। দুইয়ে মিলে জেরবার আম বাঙালি। গত বেশ কিছুদিন ধরেই যেভাবে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে, তাতে একপ্রকার পেঁয়াজ খাওয়া বন্ধই করে দিচ্ছেন অনেকে। তবে বাঙালির পাতে রবিবার একটু খাসির মাংস পড়বে না এ কেমন কথা। পেঁয়াজের দাম প্রতিদিনই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। কলকাতার বেশিরভাগ বাজারে বড় পেঁয়াজ ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা, আর ছোট পেঁয়াজ ১২০ টাকা। রসুনও আড়াইশো টাকা কেজি।

পেঁয়াজ-রসুন ছাড়া মাংস রান্নার কথা ভাবতেই পারেনা বাঙালি। ফলে খাসির মাংস খাওয়া অনেকটাই কমিয়ে দিয়েছেন প্রত্যেকে‌। রবিবারে খাসির মাংস ভাত স্বপ্ন হয়ে দাঁড়াচ্ছে অনেকের কাছেই। ৬০০ থেকে ৬৪০ টাকা কেজি খাসির মাংস, তাওবা মাসে কোনওক্রমে এক বা দুই রবিবার খেতো অনেকেই। না পারলে মুরগির মাংস দিয়েই কাজ চালাতো।সে দিনও সুখস্মৃতি হচ্ছে। মানিকতলা বাজারের বহু পুরনো খাসির মাংস বিক্রেতা মহম্মদ নাফিস মাথায় হাত দিয়ে বসেছেন ।রবিবারে যে পরিমাণে মাংস বিক্রি হয়েছে,তা কল্পনার অতীত। তার বক্তব্য গোটা মাংসের বাজারই পেঁয়াজ খেয়ে নিয়েছে।

মাংসের বিক্রি এতটাই কম যে আগামী দিন কি হবে তা ভাবতেই পারছিনা। রবিবার মানে কমপক্ষে ১০০ থেকে ১৫০ কেজি মাংস বিক্রি বাধা ছিল, আর এখন তা কমে দাঁড়িয়েছে ৫০ কেজিতে। মুরগির মাংস বিক্রেতা তপন কোলে জানান, পেঁয়াজের দাম মুরগির মাংসের দামকে ছাপিয়ে যাবে। ব্যবসার অবস্থা শোচনীয়। আর ক্রেতাদেরও অবস্থা একই রকম, যারা এক কেজি খাসির মাংস কিনত,তারা এখন কেউ আড়াইশো কিনছেন,কেউবা খাওয়াই বন্ধ করে দিয়েছে।

মানিকতলা বাজারের দীর্ঘদিনের বাজারু সুনীল চট্টোপাধ্যায় আক্ষেপ করে বলছেন,জন্মের পর কোনওদিন এই রকম অবস্থা তিনি দেখেননি। পেঁয়াজের দাম আর মুরগির মাংসের দাম একই । কিভাবে খাব ? খাসির মাংস ৬৪০ আর পেঁয়াজ ১৫০ টাকা কেজি ৷ আদা-রসুনেরও দাম চড়া।ফলে মাংস খাওয়া ছেড়ে দিতে হবে। সুদিন ফিরবে কবে সে আশাতেই তাকিয়ে আছে এখন আম বাঙালি। আবার কবে রবিবার কবজি ডুবিয়ে মাংস খেয়ে ভাতঘুম দেবে সেই চিন্তাতেই রয়েছে তারা।

First published: 01:56:45 PM Dec 08, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर