কলকাতা থেকে গ্রেফতার বিহারের মাওবাদী লিংকম্যান

কলকাতা থেকে গ্রেফতার বিহারের মাওবাদী লিংকম্যান
বুধবার রাতে স্ট্র্যান্ড ব্যাংক রোড থেকে উত্তর বন্দর থানার পুলিশ গ্রেফতার করে সুনীল কুমার নামে ওই মাওবাদী লিংকমানকে

বিহারে মাওবাদীদের খাবার ও বস্ত্র সরবরাহ করা-সহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে সুনীলের বিরুদ্ধে

  • Share this:

Sujay Pal

#কলকাতা: পুলিশের উপর হামলা, খুন, অপহরণ-সহ একাধিক মামলায় যুক্ত থাকার অভিযোগে কলকাতা থেকে গ্রেফতার মাওবাদী লিংকম্যান। বুধবার রাতে স্ট্র্যান্ড ব্যাংক রোড থেকে উত্তর বন্দর থানার পুলিশ গ্রেফতার করে সুনীল কুমার নামে ওই মাওবাদী লিংকম্যানকে। পুলিশসূত্রে খবর, বিহারে মাওবাদীদের খাবার ও বস্ত্র সরবরাহ করা-সহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে সুনীলের বিরুদ্ধে।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, বিহার থেকে পালিয়ে গত পাঁচ মাস ধরে কলকাতাতেই ছিল সুনীল। বড়বাজার, পোস্তায় মুটে-মজদুর সরবরাহ করত। তার আড়ালেই মাওবাদীদের বিভিন্ন জিনিস সরবরাহ করছিল কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সুনীলকে গ্রেফতারের পর বিহার পুলিশের সঙ্গে

যোগাযোগ করা হয়। শুক্রবার বিহার পুলিশ কলকাতায় এসে ধৃতকে ট্রানজিট রিমান্ডে সেখানে নিয়ে যায়। খুন, অপহরণ সহ পাঁচটি মামলা তার বিরুদ্ধে থাকলেও পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় ইউএপিএ ধারায় মামলা রয়েছে সুনীলের বিরুদ্ধে। সেই মামলাতেই বিহার পুলিশ খুঁজছিল তাকে।

চলতি বছরেই বিহারের লক্ষীসরাইয়ের বরিয়ারপুরে একটি পাহাড়ে পুলিশের সাথে মাওবাদীদের গুলির লড়াই চলে। সেখানেই মাওবাদীদের সঙ্গে সুনীলও যুক্ত ছিল বলে অভিযোগ। সেই মামলা হওয়ার পর থেকেই কলকাতায় আত্মীয়ের বাড়িতে গা ঢাকা দিয়েছিল। সুনীলের সন্দেহজনক গতিবিধি দেখে সন্দেহ হওয়ায় পুলিশকে খবর দেয় এলাকাবাসী। সেই সূত্রেই তাকে গ্রেফতার করা হয়।

সূত্রের খবর, মাওবাদীদের সঙ্গে সুনীলের যোগাযোগ দীর্ঘদিনের। বিহারে এনটিপিসির জলাধার তৈরির সময় থেকে মাওবাদীদের সঙ্গে তার যোগাযোগ তৈরি হয়। সেখানেও ঠিকা শ্রমিক নিয়োগ করেছিল সুনীল। মাও ডেরাতেও দীর্ঘসময় কাটিয়েছে। মাওবাদীদের অ্যাকশন স্কোয়াডের 'সঙ্গী'থেকেও একাধিক অপারেশন চালিয়েছে। ২০১২ সালে মাওবাদীদের সংগঠন চালানোর জন্য অপহরণের অভিযোগে নাম জড়ায় সুনীলের। তারপর ২০১৫ একটি, ২০১৭ তে একটি খুন ও তোলাবাজির ঘটনাতেও মাওবাদীদের সঙ্গে নাম জড়িয়েছে সুনীলের। মাওবাদী নেতা গৌতম পতি খুনের অভিযোগে সরাসরি থাকার অভিযোগ রয়েছে। যদিও সেই মামলায় জামিনে মুক্ত।

আপাতত বিহার পুলিশ তাকে ট্রানজিট রিমান্ডে নিয়ে গেলেও কলকাতায় মাওবাদী সংগঠন বিস্তার করার চেষ্টা করেছিল কিনা তা জানার চেষ্টা করছে লালবাজার।

First published: 06:19:05 PM Dec 05, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर