• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • হাইকোর্টের রায়ে পথ খুলল বহু কর্মসংস্থানের

হাইকোর্টের রায়ে পথ খুলল বহু কর্মসংস্থানের

অনেক প্রশ্ন জিইয়ে রেখে, হাইকোর্টের রায়ের ঘণ্টাখানেকের মধ্যে টেট ও উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগের জোড়া ফল প্রকাশ করল রাজ্য।

অনেক প্রশ্ন জিইয়ে রেখে, হাইকোর্টের রায়ের ঘণ্টাখানেকের মধ্যে টেট ও উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগের জোড়া ফল প্রকাশ করল রাজ্য।

অনেক প্রশ্ন জিইয়ে রেখে, হাইকোর্টের রায়ের ঘণ্টাখানেকের মধ্যে টেট ও উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগের জোড়া ফল প্রকাশ করল রাজ্য।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: অনেক প্রশ্ন জিইয়ে রেখে, হাইকোর্টের রায়ের ঘণ্টাখানেকের মধ্যে টেট ও উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগের জোড়া ফল প্রকাশ করল রাজ্য। ফল বেরোতেই নিয়োগের আশায় বুক বাঁধছেন সফলরা। যদিও, এখনও স্পষ্ট নয় নিয়োগের প্রক্রিয়া। দুই পরীক্ষার ফলে সাফল্যের হার কত তাও সামনে আসেনি।

    প্রাথমিকে নিয়োগের টেট পরীক্ষা  পরীক্ষা হয় ২০১৫-র ১১ অক্টোবর পরীক্ষার্থী - ২০ লক্ষের বেশি

    উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগের SSC পরীক্ষা ২০১৫-র ৩০ অগাস্ট পরীক্ষার্থী - ৫ লক্ষের বেশি

    সময় পেরোলেও ফল ঘোষণা হচ্ছিল না কোনও পরীক্ষারই। বুধবার হাইকোর্টের রায় সরকারের পক্ষে যেতেই পথ খুলে গেল নিয়োগের। রায়ের ঘণ্টাখানেকের মধ্যে দুই পরীক্ষার ফল বের করল রাজ্য সরকার।

    প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ সভাপতি মানিক ভট্টাচার্য জানালেন, ‘ফল হাইকোর্টের নির্দেশ মেনে বের করা হলেও, যাদের ফল অপ্রকাশিত থেকে গেছে তাদের দফতরে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।’

    ফল বেরোলেও, পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে ঘোরাফেরা করছে বহু প্রশ্ন। উত্তর পাওয়া যায়নি, কত জন প্রশিক্ষিত ও প্রশিক্ষণহীন পরীক্ষা দিয়েছিলেন বা সফল হয়েছেন তা স্পষ্ট হয়নি। নিয়োগ প্রক্রিয়া কী হবে তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে। টেট উত্তীর্ণদের সার্টিফিকেট দেওয়া হবে। কবে তা শুরু হবে তা জানানো হয়নি।

    পর্ষদ সূত্রে জানা গিয়েছে, সার্টিফিকেট দেওয়ার পরেই নিয়োগের জন্য আলাদাভাবে আবেদন করতে হবে সফল প্রার্থীদের। সিদ্ধান্ত নিতে এ সপ্তাহেই স্কুল শিক্ষা দফতরের আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক হবে।

    মামলা উঠে গেলে ১৫ দিনে ৬৫ লক্ষ চাকরি দেওয়ার ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই কথা মাথায় রেখে দুই ক্ষেত্রেই দ্রুত নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ করতে চায় কমিশন ও পর্ষদ। আনন্দের আবহ সফল পরীক্ষার্থীদের মধ্যেও।

    First published: