• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • MANY TMC LEADERS WILL PRESENT TRINAMOOL BHAWAN DAILY BASIS AS PER ROSTER SB

Trinamool Bhawan: তৈরি রুটিন, তৃণমূল ভবনে উপস্থিত থাকবেন কোন কোন নেতানেত্রীরা?

তৃণমূল ভবনের গুরুত্ব বাড়ছে

Trinamool Bhawan: রাজনৈতিক মহলের মতে, ২০২১ এর বিধানসভা ভোটের ভালো ফলের পিছনে পার্টি অফিসের গুরুত্ব বৃদ্ধি অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

  • Share this:

#কলকাতা: ২০১৯ এর লোকসভা ভোটে খারাপ ফলের পরেই তৃণমূলে গুরুত্ব বাড়তে শুরু করে রোস্টারের। দলনেত্রী ও ভোট স্ট্র‍্যাটেজিস্ট প্রশান্ত কিশোর তৈরি করেন দলের নেতাদের জন্যে রোস্টার। যে রোস্টার মেনে ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচন অবধি বাইপাসের ধারে তৃণমূল ভবনে বসতে শুরু করেন শাসক দলের নেতারা। যেখানে সংবাদমাধ্যমের সাথে কথা বলে দলের অবস্থান জানিয়েছেন শাসক দলের প্রতিনিধিরা। ঠিক তেমনই নিরন্তর যোগাযোগ রেখেছেন একেবারে নীচু তলার কর্মীদের সাথে। রাজনৈতিক মহলের মতে, ২০২১ এর বিধানসভা ভোটের ভালো ফলের পিছনে পার্টি অফিসের গুরুত্ব বৃদ্ধি অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

বাংলার ভোটে বিপুল জয়ের পরেও এই অবস্থান থেকে সরছে না শাসক দল। ফের তৈরি করা হয়েছে রুটিন। যেখানে নিয়ম মেনেই হাজির হচ্ছেন দলের সাংগঠনিক নেতা-নেত্রী, সাংসদ, মন্ত্রী, বিধায়করা। এমনকী নিয়মিত হাজির হচ্ছেন দলের যুব, সাংস্কৃতিক, শ্রমিক সংগঠনের দায়িত্বশীল নেতারা। তাদের নিজ নিজ ক্ষেত্রে আলোচনা যেমন সারছেন তারা, তেমনই দলের কর্মীদের সাথে রাখছেন যোগাযোগ। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে তৃণমূলের কৌশল, প্রশাসন আলাদা, দল আলাদা। দুটো একে অপরকে সাহায্য করবে। তৃণমূলের একাংশের মতে, এই ভাবে সময় বেঁধে দায়িত্ব ভাগ করে দেওয়ার মধ্যে দলে শৃঙ্খলা ও পেশাদারিত্বের বার্তা আরও একবার বেশি করে দিতে চাইছেন দলনেত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়।

দলীয় সূত্রে খবর, আগামী লোকসভা ভোট ২০২৪ অবধি এই রোস্টার ফর্মূলা বহাল থাকবে। এই রস্টারে বিভিন্ন বিষয়ে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন নেতাদের রাখা হয়েছে। রাজ্য রাজনীতি, জাতীয় রাজনীতি, বিদেশনীতি, আইনশৃঙ্খলা সহ বিভিন্ন বিষয়কে ভাগ করে দেওয়া হয়েছে বলে তৃণমূল সূত্রে খবর। এখন যেমন প্রতিদিনই আসছেন সায়নী ঘোষ, ঋতব্রত বন্দোপাধ্যায়, রাজ চক্রবর্তী। আসছেন কুণাল ঘোষ, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, শতাব্দী রায়, প্রতিমা মন্ডল, কাকলি ঘোষ দস্তিদার, মালা রায় সহ অনেকেই।   তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দু শেখর  রায় জানিয়েছেন, "এটা একটা রাজনৈতিক দলের সংস্কৃতি। সংগঠন মজবুত করার লক্ষ্যে এটা ভীষণ কাজ করবে। তবে শুধু কলকাতা নয়, জেলাগুলিতেও এই অবস্থা চালু হতে পারে। যেখানে সমস্ত স্তরের কর্মীরা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপন বাড়াচ্ছেন। যা সংগঠনে দক্ষতা বাড়াতে কাজ করবে।" ২০২৪ নির্বাচন এখন প্রধান লক্ষ্য তৃণমূল কংগ্রেসের। রাজনৈতিক মহলের মতে, প্রশাসনিক প্রকল্পের সব সুবিধা যাতে সমস্ত স্তর অবধি যেতে পারে তাতে দলের এই সাংগঠনিক বাঁধন ভীষণ কাজ দেবে।

Published by:Suman Biswas
First published: