শেষ দফার ভোটেও নানা অব্যবস্থা, ভোট না দিয়েই ফিরলেন অনেকে, দায়িত্ব এড়াল কমিশন

শেষ দফার ভোটেও নানা অব্যবস্থা, ভোট না দিয়েই ফিরলেন অনেকে, দায়িত্ব এড়াল কমিশন
  • Share this:

#কলকাতা: ঘটা করে বিজ্ঞাপন। শয়ে শয়ে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন। তিন মাস ধরে বিপুল আয়োজন। কিন্তু, নির্বাচন কমিশনের ব্যবস্থায় যেন গোড়ায় গলদ। নানা অব্যবস্থা কাঁটা হয়ে ফুটল দিনভর। বুথে গিয়েও, ভোট না দিয়েই ফিরলেন অনেকে।

নেতা-নেত্রী থেকে অভিনেতা। ভোট দিতে সাধারণ মানুষের কাছে আবেদন সকলের। কিন্তু, কমিশনের আয়োজন কি সম্পূর্ণ? বরং, রবিবার, দিনভর কমিশনের ব্যর্থতার ছবিই ফের একবার স্পষ্ট হল। সাত সকালে লাইনে দাঁড়িয়েও কেন ভোট দিতে এত দেরি?

ভোটার তালিকায় বয়স্কের সংখ্য অনেক। কিন্তু, তাঁদের জন্য সুব্যবস্থা দূর অস্ত, বরং, একেবারে উল্টো ছবি। এই ছবি খাস কলকাতার। দক্ষিণ কলকাতা লোকসভা কেন্দ্রের সেলিমপুরের ভোটার মিত্র অ্যান্ড ঘোষ প্রকাশনা সংস্থার কর্ণধার সবিতেন্দ্রনাথ রায় ওরফে ভানুবাবু। বয়স সাতাশি। অথচ, ভোট দিতে তাঁকে সিঁড়ি ভেঙে উঠতে হত দোতলায়। এই প্রথমবার ভোট দিতে পারেননি ভানুবাবু।

লক্ষ্য নাকি, হিংসা-হীন ভোট। তাই, প্রবীণ নাগরিকদের অভাব-অভিযোগের কোনও গুরুত্বই নেই নির্বাচন কমিশন নিয়োজিত বিশেষ পর্যবেক্ষকের কাছে। গত তিন মাস ধরে বিপুল আয়োজন। ভোটদানে উৎসাহ দিতে বিজ্ঞাপনের ছড়াছড়ি। অথচ, শেষ দফার ভোটের ছবিটা যেন সবকিছুকে বেশ কিছুটা ম্লান করে দিল। ভোট দিতে না পারলে তার দায়িত্ব নিলেন না বিশেষ পর্যবেক্ষকরা. শুধুই কি হিংসা আটকানো কাজ? নাকি ভোটদান নিশ্চিত করাও দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের? এই প্রশ্ন দেখা দিল।

First published: 01:21:52 PM May 20, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर