'নিজস্ব' প্রার্থী কই, বিজেপি-তালিকায় ফের তৃণমূলত্যাগীদের লাইন! বাড়বে বিক্ষোভ?

'নিজস্ব' প্রার্থী কই, বিজেপি-তালিকায় ফের তৃণমূলত্যাগীদের লাইন! বাড়বে বিক্ষোভ?

বিতর্ক থামছে না

তৃণমূলত্যাগীদেরই ফের প্রার্থী তালিকায় বড়ভাবে জায়গা দিলেন অমিত শাহরা। আর এতেই ফের মাথাচাড়া দিচ্ছে প্রশ্ন, প্রথম চার দফা প্রার্থী ঘোষণার পর যে ক্ষোভের আগুন জ্বলেছিল বিজেপির অন্দরে, তা কি আরও বাড়বে পরের চার দফার প্রার্থী তালিকা ঘোষণার পর?

  • Share this:

    #কলকাতা: কেউ বলেছিলেন, 'আর ভোটে লড়তে চাই না', কেউ বলেছিলেন, 'দলে দমবন্ধ হয়ে যাচ্ছে', কারও আবার মন্তব্য ছিল, 'মানুষের জন্য কাজ করতে চাই'। আদতে তৃণমূল ছেড়ে সকলেরই গন্তব্য ছিল বিজেপি। আর সেই তৃণমূলত্যাগীদেরই ফের প্রার্থী তালিকায় বড়ভাবে জায়গা দিলেন অমিত শাহরা। আর এতেই ফের মাথাচাড়া দিচ্ছে প্রশ্ন, প্রথম চার দফা প্রার্থী ঘোষণার পর যে ক্ষোভের আগুন জ্বলেছিল বিজেপির অন্দরে, তা কি আরও বাড়বে পরের চার দফার প্রার্থী তালিকা ঘোষণার পর? আশঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছেন না বিজেপির অন্দরেই অনেকে। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ শুরুও হয়ে গিয়েছে।

    দীর্ঘ কুড়ি বছর পর ফের মুকুল রায়কে ভোটে ময়দানে নামাচ্ছে বিজেপি। ২০০১ সালে জগদ্দল থেকে লড়ার পর আর ভোটে দাঁড়াননি মুকুল। সূত্রের খবর, বিজেপিতে গিয়েও তাঁর ভোটে দাঁড়ানোর কোনও ইচ্ছা ছিল না। বরং এবারের ভোটে মুকুল চাইছিলেন, ছেলে শুভ্রাংশুকে নিজের কেন্দ্র বীজপুর থেকে প্রার্থী করতে। মুকুলের সেই আবদার রাখলেও তাঁকে 'আত্মত্যাগ' করতে দিল না বিজেপি। মুকুলকে প্রার্থী করা হল কৃষ্ণনগর উত্তর কেন্দ্র থেকে।

    আর মুকুলের হাত ধরে বিজেপিতে যাওয়া প্রায় সমস্ত নেতাকেই প্রার্থী তালিকায় জায়গা দিয়েছে গেরুয়া শিবির। বিধাননগর থেকে প্রার্থী করা হয়েছে সব্যসাচী দত্তকে, খড়দা থেকে শীলভদ্র দত্তকে, শুভ্রাংশু রায় প্রত্যাশা মতোই পেয়েছেন বীজপুর আসন, ভাটপাড়া থেকে লড়বেন অর্জুন সিংয়ের ছেলে পবন সিং, টিকিট পেয়েছেন গৌরীশঙ্কর দত্তও।

    এর আগে তৃতীয় ও চতুর্থ দফার জন্য আংশিক প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছিলেন দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অরুণ সিং। তখনও দেখা যায়, তৃণমূল বিধায়ক হিসেবে রাজীবের জেতা ডোমজুড়, সিঙ্গুরে রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য, উত্তরপাড়ায় প্রবীর ঘোষালকে ফের তাঁদের কেন্দ্রেই প্রার্থী করেছে বিজেপি। বঙ্গ রাজনীতির পর্যবেক্ষকদের একাংশের মতে, রাজীব কিংবা প্রবীরকে যেভাবে চাটার্ড ফ্লাইটে উড়িয়ে নিয়ে গিয়ে বিজেপিতে যোগ দিইয়েছিলেন অমিত শাহ, তাতে তাঁদের প্রার্থী হওয়ার একপ্রকার পাকা ছিলই। কিন্তু রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য হালে বিজেপিতে যোগ দিলেও তাঁকেও প্রার্থী করেছে দল। আর এরপরই প্রায় গোটা রাজ্যজুড়েই বিজেপি প্রার্থীদের বিরুদ্ধে ক্ষোভে পথে নেমেছেন দলীয় কর্মীরাই। কিন্তু নবান্ন দখলে মরিয়া বিজেপি এখন শেষ ঝুঁকি নিয়েই প্রার্থী ঘোষণা করছে, আর তাতেও সেই তৃণমূল ত্যাগীদেরই জায়গা করে দিতে হচ্ছে।

    ইতিমধ্যেই শাসক দল তৃণমূল এ নিয়ে কটাক্ষ করতে শুরু করেছে। তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, 'বিজেপি বসে আছে, কবে কে তৃণমূল ছাড়বেন, আর ওরা প্রার্থী করবে।' যদিও বিজেপির যুক্তি, 'যাঁরা যোগ্য, তাঁদেরই প্রার্থী করা হচ্ছে।' তাতে অবশ্য বিতর্ক থেমে থাকছে না।

    Published by:Suman Biswas
    First published: