বিজেপির প্রার্থী তালিকায় একাধিক হেভিওয়েট সাংসদ? নাম নিয়ে তুঙ্গে জল্পনা

বিজেপির প্রার্থী তালিকায় একাধিক হেভিওয়েট সাংসদ? নাম নিয়ে তুঙ্গে জল্পনা

কোন কোন সাংসদ প্রার্থী তালিকায়?

শনিবার সকালেই দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডার বাড়িতে বৈঠকে বসেছিলেন অমিত শাহ, কৈলাস বিজয়বর্গীয়, দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায় ও শুভেন্দু অধিকারী।

  • Share this:

    #কলকাতা: প্রথম দু'দফার প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হয়েছে বেশ কিছুদিন। কিন্তু বাকি কেন্দ্রের প্রার্থীদের নাম ঘোষণা হবে কবে? জেলায়-জেলায় বিজেপি কর্মীদের প্রশ্ন এখন একটাই। এই পরিস্থিতিতে গেরুয়া শিবিরের শীর্ষ নেতারা বলছেন, সম্ভবত রবিবারই প্রকাশিত হতে চলেছে বিজেপির বাকি প্রার্থীদের তালিকা। শনিবার সকালেই দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডার বাড়িতে বৈঠকে বসেছিলেন অমিত শাহ, কৈলাস বিজয়বর্গীয়, দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায় ও শুভেন্দু অধিকারী। সেই বৈঠকে যোগ দেওয়ার আগেই দিলীপ বলেছিলেন, 'মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিসর্জন দিতে সকলে প্রস্তুত হয়ে গিয়েছেন। বাকি প্রার্থীদের নিয়ে আমরা আলোচনা করব।' আর সেই সূত্রেই গেরুয়া শিবিরের অন্দরের একটা অংশের দাবি, বাকি প্রার্থী তালিকায় তারকা চমক যেমন থাকবে, একইভাবে বিজেপির এ রাজ্যের বেশ কয়েকজন সাংসদের নামও দেখা যেতে পারে বাকি প্রার্থীদের তালিকায়।

    যদিও বিজেপির আরেকটা অংশ বলছে, বাকি থাকা ২৩৪ আসনে আজই পূর্ণাঙ্গ প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হবে না। হতে পারে ৭৫ জনের নাম ঘোষণা। আর সেই তালিকাতেই বিজেপির বেশ কয়েকজন লোকসভা ও রাজ্যসভার সাংসদের নাম থাকতে পারে। তাঁরা কারা? সূত্রের খবর, প্রার্থী হতে পারেন গেরুয়া শিবিরের রাজ্যসভার দুই সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত ও রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। প্রসঙ্গত, স্বপন ও রূপা-দুজনেরই আগামী বছর সাংসদ পদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। তাই তাঁদের মতো স্বচ্ছ ভাবমূর্তির সাংসদদের প্রার্থী করতে চাইছে বিজেপির একটা বড় অংশই।

    তবে, ঝোড়ো বক্তৃতা ও সক্রিয়তার জন্য বিধানসভা ভোটে প্রার্থী করা হতে পারে হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়কেও। আসলে লকেটের জনপ্রিয়তা এ ক্ষেত্রে একটা বড় ফ্যাক্টর হিসেবে উঠে আসছে। ঠিক যেভাবে নিজের নিজের সংসদীয় এলাকায় ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতার জন্য প্রার্থীতালিকায় নাম থাকতে পারে আসানসোলের সাংসদ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় ও কোচবিহারের সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক। তবে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী থেকে সটান বিজেপির প্রার্থী, বাবুলের নাম তালিকায় রেখে রীতিমতো চমক দিতে পারে বিজেপি।

    যদিও আগে বিজেপি নেতৃত্ব সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, কোনও সাংসদকে এবারের বিধানসভা ভোটে দাঁড় করানো হবে না। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে তৃণমূলকে হারাতে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসা হয়েছে। প্রসঙ্গত শনিবার বিজেপির সদর দফতরে প্রায় মধ্যরাত পর্যন্ত চলেছে বিজেপির নির্বাচন কমিটির বৈঠক। সেই বৈঠকে নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহরাও ছিলেন। সদ্য তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যাওয়া রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেন, আরও ৮০ আসনের প্রার্থী চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছে। তা ঘোষণা এখন স্রেফ সময়ের অপেক্ষা।

    Published by:Suman Biswas
    First published: