কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ব্যস্ত সময়ে মেট্রো লাইনে নেমে পড়ল যুবক ! আতঙ্ক দমদম স্টেশনে

ব্যস্ত সময়ে মেট্রো লাইনে নেমে পড়ল যুবক ! আতঙ্ক দমদম স্টেশনে

আচমকাই প্লাটফর্ম থেকে নেমে হাঁটতে শুরু করেন মেট্রো লাইনে। সঙ্গে সঙ্গে স্টেশনে দাঁড়ানো অন্য যাত্রীরা চিৎকার শুরু করেন

  • Share this:

#কলকাতা: বলা নেই কওয়া  নেই, দুম  করে মেট্রো প্লাটফর্ম থেকে নেমে সোজা মেট্রো লাইনের উপর দিয়ে হাঁটতে  শুরু করলেন! যা দেখে যাত্রীরা চিৎকার করতে শুরু করেন। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টা নাগাদ। পুলিশ সূত্রের খবর, ওই যুবকের নাম সান ঘোষ। বছর বিয়ালিসের ওই যুবক খড়দহর বাসিন্দা। বেলা সাড়ে ব১২টা নাগাদ দমদম ডাউন মেট্রো লাইন ট্র্যাকে আচমকাই প্লাটফর্ম থেকে নেমে হাঁটতে শুরু করেন। সঙ্গে সঙ্গে স্টেশনে দাঁড়ানো অন্য যাত্রীরা চিৎকার শুরু করেন। কারণ ওই মেট্রো লাইনে প্রায় ২৫ হাজার ভোল্টস কারেন্ট রয়েছে। স্পর্শ হলেই বড়োসড়ো দুর্ঘটনা ঘটে পারে।

মেট্রো রেল পুলিশ দ্রুত বাঁশি বা হুইসেল বাজাতে শুরু করে। সান সঙ্গে সঙ্গে থেমে গিয়ে পিছনে ফিরে দেখতে শুরু করেন। পলক ফেলার মাঝেই মেট্রো রেল পুলিশ মেট্রো কর্তৃপক্ষ সঙ্গে যোগাযোগ করে ওই কারেন্ট বন্ধ করে দেয়। সানকে কোনও মতে সেখান থেকে উদ্ধার করে দমদম মেট্রো রেল স্টেশন মাস্টারের ঘরে আনা হয়। নাম ঠিকানা জিগ্যেস করা হয়। এরপর যোগাযোগ করা হয় সিঁথি থানায়। খবর দেওয়া হয় সানের বাড়িতে। পুলিশ সূত্রের খবর, সানের বাবার দাবি ছেলে একটু মানসিকভাবে অসুস্থ, তাই এমন করেছে। কিন্তু পুলিশের প্রশ্ন, যার মানসিক অবসাদ বা মাথার সমস্যা তিনি কি করে স্মার্ট কার্ড পাঞ্চ করে স্টেশনে ঢুকলেন? সানের বাবার দাবি পুলিশের কাছে, "সান একটি কোম্পানিতে কাজ করতেন। সেখানে কিছু সমস্যা হয়। এরপর থেকেই তাঁর মাথার ব্যামো দেখা দেয়। মানসিক অবসাদে ভুগছে সান। বাড়ি থেকে সকালে বেরিয়ে যে এমন কান্ড ঘটাবে তা জানতাম না। দমদম মেট্রো স্টেশন পুলিশের ফোন পেয়ে ছুটে আসি।" অন্যদিকে ।সান পুলিশের কাছে বলেন, "তাকে সবাই বলে মাথার সমস্যা, তাই আর কিছুই ভালো লাগে না। তাই মেট্রো লাইনে নেমে হাঁটতে শুরু করি।"

তবে ঘটনায় হতবাক যাত্রীরা। যাত্রীদের দাবি, 'আমরা তো ভয় পেয়ে গেছিলাম। যেভাবে আচমকা মেট্রো লাইনে নেমে হাঁটতে শুরু করে ওই যুবক আমরা তো ভাবছিলাম উনি কোনো বড়ো দুর্ঘটনা ঘটিয়ে না ফেলেন। সঙ্গে সঙ্গে মেট্রো রেল পুলিশ ওআরপিএফ পুলিশ আধিকারিকরা আসায় ওই যুবকের প্রাণ রক্ষা পায়।" নাহলে অফিস ব্যস্ত সময়ে এমন ঘটনা দেখে অনেকেই শিহরিত। ওই যুবকের কোনো ক্ষতি হয়নি এটাই অনেক। কোনও কোনও যাত্রী বলছেন, "মেট্রো রেল পুলিশ বাঁশি  বাজিয়ে  সুপার হিরোর মতো ওই যুবকের প্রাণ রক্ষা করেছে। নাহলে আজ অন্য যা কিছু ঘটে পারতো।"

নিমেষের মধ্যে ওই যুবককে মেট্রো লাইনের ট্র্যাক থেকে উদ্ধার করার ফলে বিপত্তি কিছুটা এড়ানো গিয়াছে বলে দাবি যাত্রীদের। তবে সকলের একটাই প্রশ্ন, মেট্রো লাইনে বারবার এর আগে আত্মহত্যা ঘটনা বা আত্মহত্যার চেষ্টা ঘটনা ঘটেছে। তার ফলে অফিস টাইমে ব্যস্ত সময়ে অনেক সমস্যাতে পড়তে হয় যাত্রীদের। তবে আজকের ঘটনাতে মেট্রো রেল পুলিশের তৎপরতায় খুশি সানের পরিবার থেকে মেট্রো যাত্রীরা সকলেই।

অর্পিতা হাজরা

Published by: Ananya Chakraborty
First published: January 5, 2021, 10:01 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर