• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • MAMATA BANERJEE WRITES LETTER TO NARENDRA MODI ON FLOOD SITUATION IN BENGAL DMG

Mamata Banerjee writes letter to Narendra Modi: কেন প্রতি বছর ভুগবে বাংলা? রাজ্যের বন্যা সমস্যা নিয়ে মোদিকে চিঠি মমতার

মোদিকে চিঠি মমতার৷

রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতি এড়াতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির (Narendra Modi) কাছে বেশ কয়েকটি প্রস্তাবও দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)৷

  • Share this:

    #কলকাতা: ফোনে অভিযোগ জানার পর এবার রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ চিঠিতেও রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতির জন্য ডিভিসি-কেই দায়ী করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তাঁর অভিযোগ, ডিভিসি-র অতিরিক্ত জল ছাড়ায় এবং তাদের জলাধারগুলিতে ড্রেজিং না করানোয় তার ফল ভুগতে হচ্ছে বাংলাকে৷ এ দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে খোঁজ নিতে মুখ্যমন্ত্রীকে ফোন করলে তখনও একই অভিযোগ জানিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

    চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন, পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে দিয়ে এমন বেশ কিছু নদী বয়ে গিয়েছে যেগুলির অববাহিকা রয়েছে ঝাড়খণ্ড বা বিহারে৷ ফলে ওই রাজ্যগুলিকে বৃষ্টি হলে তার জল চলে আসছে পশ্চিমবঙ্গ দিয়ে বয়ে যাওয়া মূল নদীগুলিতে৷ উদাহরণ হিসেবে ঝাড়খণ্ডে প্রায় এক হাজার বর্গ কিলোমিটার জুড়ে ছড়িয়ে থাকা দামোদর এবং বরাকরের অববাহিকার কথা তুলে ধরেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ যার ফলে ঝাড়খণ্ডে মাঝারি বৃষ্টি হলেও এ রাজ্যের জলাধারগুলিতে বিপুল পরিমাণ জল জড়ো হয়৷ মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন, 'গত কয়েকদিন নিম্নচাপের জেরে পশ্চিমবঙ্গ এবং ঝাড়খণ্ডে প্রবল বৃষ্টি হচ্ছে৷ মাইথন, পাঞ্চেত এবং তেনুঘাট জলাধার থেকে ২ লক্ষ কিউসেক জল ছাড়ায় পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া, হুগলি, পূর্ব বর্ধমান, পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূম এবং পশ্চিম মেদিনীপুরের বিস্তীর্ণ এলাকায় বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে৷'

    মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, অতি বর্ষণ এবং বন্যায় রাজ্যে ১৬ জনের প্রাণহানি ছাড়াও লক্ষ লক্ষ মানুষ এবং কৃষক দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছেন৷ বাড়ি, ঘর, চাষের জমি, রাস্তাঘাট, সেতু, বিদ্যুতের খুঁটি সহ অন্যান্য পরিকাঠামোরও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে৷

    ডিভিসি-র দিকে আঙুল তুলে প্রধানমন্ত্রীকে লেখা চিঠিতেও ম্যান মেড বন্যার অভিযোগ তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তিনি লিখেছেন, 'পশ্চিমবঙ্গ নদীমাতৃক রাজ্য৷ ডিভিসি-র জলাধার থেকে বিপুল পরিমাণ জল ছাড়ায় অতীতেও বছরের পর বছর রাজ্যে ম্যান মেড বন্যা হয়েছে৷ ২০১৫ সালের পর ২১০৭, ২০১৯ এবং এ বছরও রাজ্যকে জটিল বন্যা পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়েছে৷ ' মুখ্যমন্ত্রী আরও অভিযোগ করেছেন, ২০১৫ সালেও এই সমস্যার কথা উল্লেখ করে ডিভিসি-র জলাধারগুলির জলধারণ ক্ষমতা বাড়াতে ড্রেজিংয়ের দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখেছিলেন তিনি৷ যাতে পশ্চিমবঙ্গকে বন্যার গ্রাস থেকে রক্ষা করা যায়৷ কিন্তু তার পরেও সমস্যার সমাধানে কোনও নজর দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

    রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতি এড়াতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বেশ কয়েকটি প্রস্তাবও দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তার মধ্যে যেমন পাঞ্চেত এবং মাইথনের জলাধারগুলি থেকে পলি তোলার প্রস্তাব রয়েছে, সেরকমই ঝাড়খণ্ডের বালপাহাড়িতে ডিভিসি-র ষষ্ঠ বাঁধ তৈরি করারও প্রস্তাব দিয়েছেন তিনি৷

    মুখ্যমন্ত্রীর মতে, বিচ্ছিন্ন ভাবে নয়, আঞ্চলিক সমস্যা হিসেবে কেন্দ্র বিষয়টি নিয়ে ভাবতে হবে কেন্দ্রীয় সরকারকে৷ তিনি আরও লিখেছেন, যে বাঁধগুলি ঝাড়খণ্ড এবং বাংলায় রয়েছে, পলি জমে এবং রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে সেগুলির জলধারণ ক্ষমতা অনেকটাই কমে গিয়েছে৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও অভিযোগ করেছেন, বিভিন্ন কারণে বাঁধগুলির নকশা অনুযায়ী সেগুলির যথাযথ ব্যবহার করা হচ্ছে না৷ ফলে বাঁধগুলি থেকে কখন জল ছাড়া হবে তা আগাম অনুমান করা যায় না৷ পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে বঙ্গোপসাগরের উপরে এখন ঘন ঘন শক্তিশালী নিম্নচাপ তৈরি হয়ে প্রবল বর্ষণ হচ্ছে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বিষয়টির সঙ্গে যেহেতু তিনটি রাজ্যের স্বার্থ এবং ডিভিসি জড়িয়ে রয়েছে, তাই জাতীয় সমস্যা হিসেবে বিবেচনা করে দ্রুত এর নিষ্পত্তি করার জন্যও অনুরোধ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনি লিখেছেন, 'অমূল্য জীবন এবং সম্পদ রক্ষায় এটা করতেই হবে৷ কারণ পশ্চিমবঙ্গ নদীমাতৃক রাজ্য হওয়ায় প্রতি বছর তার খেসারত দিতে হচ্ছে৷ '

    চার পাতার চিঠির শেষ দিকে মুখ্যমন্ত্রী আরও অভিযোগ করেছেন, নিয়মিত ঘূর্ণিঝড় এবং মানুষের তৈরি করা বন্যার মতো দুর্যোগের শিকার হতে হচ্ছে বাংলাকে৷ তা সত্ত্বেও কেন্দ্রীয় সরকারের থেকে কোনওরকম আর্থিক সাহায্যই পাচ্ছে না রাজ্য৷ এবারের বন্যাতেও রাজ্যের কত ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তার হিসেব খুব শিগগিরই কেন্দ্রীয় সরকারকে পাঠানো হবে বলে চিঠিতে লিখেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে হস্তক্ষেপ করতেও অনুরোধ করেছেন তিনি৷ পাশাপাশি রাজ্যের বন্যা সমস্যার সমাধানে ডিভিসি-র জলাধারের সংস্কার সহ দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা করার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: