Home /News /kolkata /
Mamata Banerjee: বাংলা মডেল কেন প্রয়োজন, দিল্লি গিয়ে বিরোধী নেতাদের সুফল বোঝাবেন মমতা

Mamata Banerjee: বাংলা মডেল কেন প্রয়োজন, দিল্লি গিয়ে বিরোধী নেতাদের সুফল বোঝাবেন মমতা

মমতার দিল্লি সফরের দিকে নজর গোটা দেশের৷

মমতার দিল্লি সফরের দিকে নজর গোটা দেশের৷

তৃণমূল কংগ্রেসের 'শহিদ দিবস'-এর মঞ্চ থেকে দিল্লি জয়ের ডাক দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপি-র বিরুদ্ধে ফ্রন্টের ডাক দিয়ে মমতা বুঝিয়ে দিয়েছেন ২০২৪-এর কাউন্টডাউন শুরু হয়ে গিয়েছে (Mamata Banerjee)।

  • Share this:

#কলকাতা: আগামী সপ্তাহের শুরুতেই দিল্লি যাচ্ছেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। সূত্রের খবর এই দিল্লি সফরে তিনি গিয়ে দেখা করতে পারেন বিজেপি বিরোধী সমস্ত রাজনৈতিক দলের প্রধানদের সঙ্গে৷ ২০২৪- এর আগে শুরু হয়ে যেতে পারে মহাজোটের প্রস্তুতি। আর সেখানেই বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলিকে বাংলা মডেলের সুফল বোঝাবেন মমতা বন্দোপাধ্যায়।

২০২১-এর ২১ শে জুলাই। তৃণমূল কংগ্রেসের 'শহিদ দিবস'-এর মঞ্চ থেকে দিল্লি জয়ের ডাক দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপি-র বিরুদ্ধে ফ্রন্টের ডাক দিয়ে মমতা বুঝিয়ে দিয়েছেন ২০২৪-এর কাউন্টডাউন শুরু হয়ে গিয়েছে। ২০২৪-কে সামনে রেখে তৃণমূলনেত্রীর হুঙ্কার, 'গুজরাত নয়, বাংলাই আদর্শ মডেল৷ট

কী এই বাংলা মডেল? তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক কুণাল ঘোষ বলছেন, '২০১৯- এর লোকসভা ভোটের পরে রাজনৈতিক অবস্থান যা ছিল। ২০২১ এর বাংলার ভোটের পরে সেটা আমূল বদলে গিয়েছে। মানুষ মমতা বন্দোপাধ্যায়ের উন্নয়নে শামিল। ভিন রাজ্যের মানুষও কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, সমব্যথী, স্বাস্থ্যসাথী, খাদ্যসাথী, দুয়ারে সরকার প্রকল্পের স্বাদ পেতে চায়। আর এটাই হচ্ছে বাংলা মডেল। এর আগেও বিরোধীদের জোট হয়েছে৷ কিন্তু মানুষের জন্য উন্নয়নমূলক প্রকল্পের জোরেই যে বিজেপি-কে রুখে দেওয়া সম্ভব, সেটা ২০১১ সালের পর এই প্রথম বুঝতে পারছে বিরোধী দলগুলি।'

সূত্রের খবর, বাংলা মডেলকে সামনে রেখেই জোট বাঁধা হতে পারে।বিজেপিকে করোনাভাইরাসের চেয়েও বিপজ্জনক ভাইরাস তকমা দিয়ে মমতা বন্দোপাধ্যায়  দাবি করেছিলেন, 'খেলা একটা হয়েছে, খেলা আবার হবে। যত দিন বিজেপি-কে বিদায় করতে না পারি রাজ্যে রাজ্যে খেলা হবে। সমস্ত জায়গায় খেলা হবে। ১৬ অগাস্ট খেলা হবে দিবস হিসেবে পালিত হবে৷'

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন ২১-এর মঞ্চের ভাষণ দিয়েছেন তা শুনেছেন, পি চিদাম্বারাম, দ্বিগবিজয় সিং, সুপ্রিয়া সুলেরা। প্রত্যেক বিরোধী নেতামন্ত্রীর নাম নিয়ে তাঁদের বিরোধী ফ্রন্ট গড়ার ডাক দিয়ে মমতার দাবি ছিল, বিরোধী ফ্রন্ট দেশ চালানোর ক্ষমতায় এলে বাংলা মডেলকেই বেছে নেওয়া হবে।

তাঁর কথায়, 'আমাদের রাজ্যে আমরা ফ্রি রেশন দিই। কোন কোন রাজ্যে আপনারা ফ্রি-তে রেশন দেন? প্রধানমন্ত্রীজি দয়া করে গোটা দেশে বিনামূল্যে রেশন দেওয়ার ব্যবস্থা করুন। আমাদের বিরক্ত করবেন না। আমাদের ফ্রন্ট যদি ক্ষমতায় আসে, তাহলে দেশের সব নাগরিককে বিনামূল্যে রেশন দেওয়া হবে। বাংলায় বিনামূল্যে রেশন দেওয়া হয়। বিনামূল্যে চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া হয়। আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প নয়, আমরা স্বাস্থ্যসাথীতে ৫ লক্ষ টাকা করে প্রতি পরিবারকে বছরে দিই। সরকারি হাসপাতালে পুরো বিনামূল্যে চিকিৎসা হয়।'

বাংলা মডেলকে আরও বিস্তারিত ভাবে দেশবাসীর সামনে তুলে ধরতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, 'রাজ্যে ১০ লক্ষ টাকা করে স্মার্টকার্ডে পড়ুয়াদের ক্রেডিট কার্ড চালু করা হয়েছে। আমরা মহিলাদের জন্য ভেবেছি। তপশিলি জাতির মহিলাদের প্রতি মাসে ১ হাজার করে দিই। জেনারেল কাস্ট পায় ৫০০ টাকা করে। রাজ্যের কন্যাশ্রী প্রকল্প সারা বিশ্বে এক নম্বর হয়েছে। চাষিদের জন্য আমরা ১০ হাজার টাকা করে দিচ্ছি। এক একর জমির জন্য। এক কাঠা জমি থাকলেও ৪ হাজার টাকা দেওয়া হয়। জমির মিউটেশন পুরোপুরি ফ্রি। বাংলাই মডেল, গুজরাত নয়। আপনারা গুজরাতে কী করেছেন তা সবাই জানে। এখানে কেউ মারা গেলেও, শেষকৃত্যের জন্য ২ হাজার টাকা দিই। বিয়ের জন্য মেয়েদের ২৫ হাজার দেওয়া হয় রূপশ্রীতে। এছাড়াও রয়েছে মাটিসৃষ্টি, খাদ্যসাথী, সবুজশ্রী, সমব্যথী, আনন্দধারা, দুয়ারে সরকার, পাড়ায় পাড়ায় সমাধান আছে। আমরা জনগণের জন্য কাজ করি। ই-কমার্স থেকে স্মল স্কেল ইন্ডাস্ট্রিতে আমরা এক নম্বর। ১০০ দিনের কাজে আমর এক নম্বর। দারিদ্রতা কমেছে ৪০ শতাংশ।'

সব রাজ্যকে মমতার আহ্বান ছিল 'গঙ্গায় মৃতদেহ ভাসছে আর প্রধানমন্ত্রী বলছেন উত্তরপ্রদেশ দেশের মধ্যে সেরা রাজ্য। একটুও লজ্জা নেই। টিকা নেই, ওষুধ নেই, অক্সিজেন নেই, মৃতদেহ সৎকার পর্যন্ত করতে দিতে হচ্ছে না। আমরা গঙ্গা থেকে তুলে সৎকার করেছি। খালি বড় বড় কথা। আপনার ব্যর্থতা চূড়ান্ত। আপনাদের জন্য ৪ লক্ষ লোক মারা গিয়েছে। সঠিক সময় ব্যবস্থা নিলে দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণ করা যেত। কিন্তু বাংলায় ডেইলি প্যাসেঞ্জারের মতো এসে গণতন্ত্র ধ্বংস করতেই ব্যস্ত ছিলেন আপনারা। বাংলার মানুষ বুঝিয়ে দিয়েছেন, স্বাধীনতা আন্দোলন হোক বা যে কোনও লড়াই, লড়তে প্রস্তুত বাংলা। সব রাজ্যকে বলব, একজোট হয়ে লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত হন। জোট গড়ে তুলুন। এটাই ঠিক সময়। যত দেরি করবেন, ততই সময় নষ্ট হবে। আমি দিল্লি যাচ্ছি। শরদ পাওয়ার, পি চিদম্বরমকে বলব বৈঠক ডাকলে আমরা যাব৷'

আর এই বৈঠকের দিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল। কুণাল ঘোষের কথায়, "আগে ফ্রন্ট গঠন করার ক্ষেত্রে এবারের মতো চেষ্টা হয়নি। রোগীর রোগ সারানোর সময় নিয়েই চিকিৎসা শুরু হয়েছে। এবারের জোট মানুষের মহাজোট। জনবিরোধী নীতীর বিপক্ষেই জোট। এবার দেশের মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি দেখে এই জোট হবে। নির্দিষ্ট কাঠামো তৈরি করলে হারানো যায়। যার মোকাবিলা বিজেপি আগে করেনি।'

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

Tags: Mamata Banerjee

পরবর্তী খবর